কক্সবাজারে আ’লীগের ৭, বিএনপি’র ৩, বিদ্রোহী ৩ ও স্বতন্ত্র ২ প্রার্থীর জয়

0

222405UP_Election_logoকক্সবাজার সংবাদদাতা: কক্সবাজারে প্রথম ধাপে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে টেকনাফ, মহেশখালী ও কুতুবদিয়ার ১৬ ইউপিতে ২০৮ জন জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন। রাত সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত পাওয়া খবরে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে চেয়ারম্যান হয়েছেন ৭ জন। ধানের শীষ প্রতীকে জয় পেয়েছেন ৩ জন। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচনে লড়ে জয় পেয়েছেন ৩ জন ও স্বতন্ত্র হিসেবে জয় পেয়েছেন ২ জন প্রার্থী। একটি ইউনিয়নের ফল জানা যায়নি।
বিকাল ৪ টার পর থেকে ভোট গণনা শেষে বেসরকারি ভাবে তাদের জয়ী ঘোষণা করেছেন সংশ্লিষ্ঠ রিটার্নিং কর্মকর্তারা। ইউনিয়নগুলোর ৩৬টি ভোটকেন্দ্রের ২১৬টি স্থায়ী ভোটকক্ষ ও ৪১টি অস্থায়ী ভোটকক্ষে ভোটগ্রহণ চলে।
মহেশখালীর ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ছোট মহেশখালীতে আওয়ামী লীগ প্রাথী জিহাদ বিন আলী, কুতুবজোম ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোশারফ হোসেন খোকন, মাতারবাড়ী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মাষ্টার মোহাম্মদ উল্লাহ বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। বড় মহেশখালীতে স্বতন্ত্র প্রার্থী এনায়েত উল্লাহ বাবুল (চশমা) এগিয়ে রয়েছেন। হোয়ানক ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মোস্তফা কামাল নির্বাচিত হয়েছেন। ধলঘাটায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী কামরুল হাসান।
কুতুবদিয়ার ৬ ইউনিয়নে দক্ষিণ ধুরুং ইউনিয়নে বিএনপি’র প্রার্থী ছৈয়দ আহমদ, লেমশীখালী ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী আকতার হোসাইন, উত্তর ধুরং ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আ স ম শাহরিয়ার চৌধুরী, আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নুরুচ্ছফা বিকম, বড়ঘোপ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের অ্যাড. ফরিদুল ইসলাম, কৈয়ারবিল ইউনিয়নে বিএনপির হাম জালাল বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।
টেকনাফ উপজেলার ৪ ইউনিয়নের মধ্যে বাহারছড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মৌলভী আজিজ, সেন্টমার্টিনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নুর আহমদ, সাবরাংয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী নূর হোসেন বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। রাত সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত টেকনাফ সদর ইউনিয়নে কোন প্রার্থী জয় পেয়েছেন তা নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কেউ জানাতে পারেননি। তবে অসমর্থিত এক সূত্র দাবি করেছেন অন্যান্য প্রার্থী থেকে ১৩৪ ভোটে চেয়ারম্যান পদে এগিয়ে রয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যানের ছেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহজান মিয়া।
অপরদিকে, একইদিন টেকনাফের হোয়াইক্যং ও হ্নীলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও আইনী জটিলতার কারণে নির্বাচন পিছিয়ে আগামী ২৭ মার্চ নির্ধারণ করা হয়েছে।
মঙ্গলবার চলমান অন্য ইউনিয়নের সাথে মহেশখালীর কালারমারছরায়ও নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রস্ততি নেয়ার পরও শেষ মূহুর্তে এসে সোমবার এ ইউনিয়নের নির্বাচন স্থগিত করা হয়। হাইকোর্টের একটি রীট পিটিশনের বিপরীতে নির্বাচন কমিশন এটি স্থগিত রাখতে সিদ্ধান্ত দেয়।
কক্সবাজার জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মেছবাহ উদ্দিন বলেন, ভোট সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন হয়েছে। কিছু কিছু ইউনিয়নে কেন্দ্রের বাইরে বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। অপ্রীতিকর ঘটনা প্রতিরোধে পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকায় এ সংঘর্ষ ভোট গ্রহণে কোন প্রভাব ফেলতে পারেনি।

Leave A Reply