চাঁপাইনবাবগঞ্জে চোখ-কিডনি খুলে নিয়ে শিশুহত্যা, ২ নারী গ্রেপ্তার

0

Chapainawabganj-Pic-01_-01.04চাঁপাইনবাবগঞ্জের  শিবগঞ্জে ২ স্কুলছাত্রীর কিডনি ও চোখ অপসারণের পর হত্যার ঘটনায় ২ নারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এদিকে, অপহরণের পর জেলায় এ প্রথম হত্যার আগে শিশুদের শরীরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কর্তন ও হত্যার ঘটনায় গোটা উপজেলায় শিশু ও অভিভাবকের মধ্যে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। এমনকি এ ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়লে গোটা শিবগঞ্জের বিদ্যালয়ে শিশু শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার কমে গেছে। এ ঘটনায় জড়িত সংঘবদ্ধ চক্রকে দ্রুত চিহ্নিত করে তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি উঠেছে এলাকায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শিবগঞ্জ উপজেলার দুর্গম পাকা ইউনিয়নের চরকানছিড়া গ্রামের আব্দুল লতিফের ৩য় শ্রেণীতে পড়ুয়া মেয়ে লতিফা খাতুন ও একই গ্রামের আশরাফুল আলমের মেয়ে (একই ক্লাসে পড়ুয়া) আঁখি খাতুন গত ২৮ মার্চ বাবুপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাবার পর থেকে নিখোঁজ হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে, পরের দিন ২ ছাত্রীর বাবা শিবগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করলে গত ১ মার্চ শিবগঞ্জ উপজেলার দুর্লভপুর ইউনিয়নের দোভাগী এলাকার ভুট্টাক্ষেত থেকে অপহৃত লতিফা ও আঁখির গলিত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মৃতদেহের সুরতহাল ও ময়নাতদন্ত শেষে আব্দুল লতিফ বাদী হয়ে গত ২ মার্চ ১২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ১৫ জনকে আসামি করে শিবগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী  কর্মকর্তা নুরে আলম সিদ্দিকী জানান, শিশু দুটির সুরতহাল রিপোর্টে কিডনি ও চোখ অপসারণের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তবে গলিত লাশ হওয়ায় ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ছাড়া কীভাবে হত্যা করা হয়েছিল তা আগে বলা যাবে না।

এ ঘটনায় এজাহারভুক্ত শিবগঞ্জ উপজেলার দুর্লভপুর ইউনিয়নের দোভাগী গ্রামের মো. আরিফ হোসেনের স্ত্রী মেসনারা বেগম (৩০) ও একই গ্রামের আনারুল আলমের স্ত্রী আক্তারা বেগমকে (২৫) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে এবং এ হত্যার পর এলাকার কয়েক যুবক আত্মগোপন করায় প্রতীয়মান হচ্ছে যে এ নৃশংস হত্যার ঘটনায় সংঘবদ্ধ দল জড়িত রয়েছে।

এদিকে সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. শফিকুল ইসলাম জানান, মৃতদেহের দুটির ময়নাতদন্তে কিডনি ও চোখ অপসারণের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

Leave A Reply

Pinterest
Print