কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে হরতাল-অবরোধে পোল্ট্রি শিল্পে ধস

0

Hossainpur pic 109

মোঃ এখলাছ উদ্দিন(রিয়াদ), কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতা,খাদ্য,ওষুধ,বাচ্ছা ও পোল্ট্রি উপকরণসহ আনুসঙ্গিক সবকিছুর মূল্য হঠাৎ বেড়ে যাওয়ায় কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে পোল্ট্রি শিল্পে ধস নেমেছে। ফলে বন্ধ হয়ে গেছে উপজেলার বেশির ভাগ পোল্ট্রি্র খামার। বেকার হয়ে পড়েছে এ শিল্পের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে জড়িত কয়েকশ শ্রমিক-কর্মচারি। ফলে বিপুল সম্ভাবনাময় এ শিল্প রক্ষায় ভুক্তভোগীরা সংশিস্নষ্ট কতৃপক্ষের সূদৃষ্টি কামনা করেছেন। সংশিস্নষ্ট সূত্রমতে, নববই দশকের শুরম্নতে হোসেনপুর উপজেলার শত-শত শিক্ষিত বেকার তরুণ-তরুণী স্বাবলম্বী হওয়ার আশায় পোল্ট্রি শিল্পের প্রতি ঝুঁকে পড়েন। ফলে উপজেলার ছয়টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় গড়ে উঠে প্রায় তিন শতাধিক ছোট-বড় ও মাঝারী পোল্ট্রি খামার। এর মধ্যে ব্রয়লার মুরগীর খামারের সংখ্যাই বেশি।চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় পরিবহন সংকট,রোগ-বালাই,খাদ্য ও ওষুধের মূল্য বৃদ্ধিসহ নানা কারনে ইতোমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে ৬০-৭০ ভাগ খামার।

সরেজমিনে উপজেলার দ্বীপেশ্বর গ্রামের পোল্ট্রি খামারি মোঃ আব্দুল কাদির স্বপন, গড়বিশুদিয়া গ্রামের ফরিদ উদিন, ধনকুড়া গ্রামের সুমন মিয়া ও সিদলার এমরান মিয়াসহ অনেকেই জানান, বিপুল সম্ভাবনাময় এ শিল্পটি বর্তমানে লোকসানি প্রতিষ্টানে পরিণত হওয়ার মূল কারন

বিএনপি-জামাতের একটানা অবরোধ ও রক্তচোষা হরতাল। এছাড়া গাড়ি না আসায় মুরগীর বাচ্ছার খাদ্য, ওষুধ ও উপকরনের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে । এতে পোল্ট্রি শিল্পে প্রত্যেকের গড়ে প্রায় ১ লাখ টাকা করে লোকসান হয়েছে। গত ১ মাস ধরে চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় ব্রয়লার মুরগীর দরপতনে হতাশায় ভোগছেন খামারীরা। হরতাল অবরোধে এ ভাবে চলতে থাকলে লোকসানা মুখে পড়ে এ শিল্প স্থায়ী ভাবে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা এ জেড এম বদরুল হাসান জানান, হরতাল-অবরোধে পরিবহন সংকট, খাদ্য ও ওষুধের মূল্য বৃদ্ধিতে ক্ষুদ্র খামারীরা লোকসানে পড়লেও প্রাণিসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা মাঠ পর্যায়ে যথাযথ তদারকি ও পরার্মশ দিয়ে খামারীদের লাভবান করতে সচেষ্ট রয়েছেন।

Leave A Reply

Pinterest
Print