চট্টগ্রামে হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে বিশাল জনসভা

0

চট্টগ্রামে হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে আয়োজিত জনসভায় মঞ্চে উপবিষ্ট অতিথিবৃন্দ।

নিজস্ব প্রতিনিধি:
বন্দরনগরী চট্টগ্রামে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে এক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রামের আকবরশাহ এলকার ফিরোজশাহ কলোনি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এ জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। মানবতার কল্যাণে নিবেদিত অরাজনৈতিক আন্দোলন হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে এ জনসভার আয়োজন করা হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন হেযবুত তওহীদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মসীহ উর রহমান। হেযবুত তওহীদের কেন্দ্রীয় যুগ্মসাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম উখবাহ’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের উত্তর পাহাড়তলী ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সেলর জহুরুল আলম জসিম। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হেকিম খন্দকার মোহাম্মদ হোসেন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সমাজসেবক, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদে আক্রান্ত বিশ্বের বহু দেশ। বিকৃত ধর্মীয় আদর্শ থেকে উদ্ভূত এই জঙ্গিবাদকে নির্মূল করতে বিশ্বময় শক্তি প্রয়োগের পন্থা বেছে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখন সকলেই স্বীকার করছেন যে, শক্তি প্রয়োগের পাশাপাশি ধর্মীয় দলিল ভিত্তিক নির্ভুল আদর্শ দিয়ে জঙ্গিবাদ যে ভুল পথ তা প্রমাণ করতে হবে। অন্যথায় ধর্মব্যবসায়ীরা ধর্মবিশ্বাসী সাধারণ মানুষের ঈমানকে ভুল খাতে প্রবাহিত করে দেশে সন্ত্রাসের বিস্তার ঘটাতেই থাকবে। ফলে আমাদের এই প্রিয় মাতৃভূমিকেও ইরাক-সিরিয়ার মতো করুণ পরিণতি বরণ করতে হতে পারে। এ জন্য প্রয়োজন একটি সঠিক আদর্শের বলে মন্তব্য করেন বক্তারা। তারা বলেন,এই সঠিক আদর্শটি হেযবুত তওহীদ মানুষের সামনে তুলে ধরছে ।
দেশবাসীর প্রতি ঐক্যবদ্ধ হবার আহ্বান জানিয়ে এসময় হেযবুত তওহীদের সাধারণ সম্পাদক মসীহ উর রহমান বলেন, ধর্মব্যবসায়ীদের দ্বারা প্রচারিত ধর্মের অপব্যাখ্যা থেকে বের হয়ে আমাদের ধর্মের প্রকৃত চেতনা দ্বারা জাতিকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।
তিনি বলেন, মানুষের ধর্ম হলো মানবতা, সত্য-মিথ্যা, ন্যায়-অন্যায়ের পার্থক্য বোঝা, অন্যের দুর্দশা দেখার পর হৃদয়ে দুঃখ অনুভব করা এবং সেটা দূর করার জন্য আপ্রাণ প্রচেষ্টা করা। আত্মকেন্দ্রিক স্বার্থপর মানুষ কখনোই ধার্মিক বা মো’মেন-মুসলিম হতে পারে না। প্রকৃত মো’মেন হলেন সেই ব্যক্তি যিনি আল্লাহর হুকুমের পরিপন্থী অর্থাৎ যাবতীয় অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে তার জীবন-সম্পদকে মানবতার কল্যাণে উৎসর্গ করেন। সুতরাং স্বার্থপরের নামাজ নেই, স্বার্থপরের সমাজ নেই, স্বার্থপরের জান্নাত নেই। বর্তমানে আমাদের দেশে যে ষড়যন্ত্র চলছে, দেশ যে সঙ্কটে পতিত হয়েছে তা থেকে দেশকে বাঁচানো আমাদের ঈমানী দায়িত্ব ও সামাজিক কর্তব্য বলে মন্তব্য করেন তিনি।
মসীহ উর রহমান আরো বলেন, আমাদেরকে বাঙালি জাতিকে নিয়ে যেমন ভাবতে হবে তেমনি ভাবতে হবে মুসলিম জাতিকে নিয়ে, ভাবতে হবে মানবজাতিকে নিয়ে। কারণ সমগ্র মানবজাতি একবা পিতা-মাতা আদম-হাওয়ার সন্তান। জঙ্গিবাদের উত্থান যেমন বাঙালি জাতির জন্য সংকট, তেমনি মুসলিম জাতির জন্য এবং সমগ্র মানবজাতির জন্যই এক ভয়াবহ সংকট। যে মুসলিমদের দায়িত্ব ছিল সমগ্র মানবজাতিকে শান্তি দেওয়া, মুক্তি দেওয়া, তারাই আজ ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এর কারণ আজ হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করতে হবে। মুসলিমদেরকে বুঝতে হবে, সমাজে যখন চরম অন্যায়, অবিচার, অশান্তি চলছে তার মানে নিশ্চয় আমরা পথ হারিয়েছি। এখন সেই পথ কোথায় হারালাম আর কীভাবে সেই পথ আবার খুঁজে পাওয়া যাবে তার জন্য চেষ্টা করতে হবে।
তিনি বলেন, যাবতীয় ন্যায়ের পক্ষে আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আদম (আ.) থেকে শেষ রসুল পর্যন্ত আল্লাহ যত নবী-রসুল পাঠিয়েছেন সবাইকে একই কলেমা দিয়ে পাঠিয়েছেন, দীনের ভিত্তি সর্বদা একই থেকেছে, সেটা হচ্ছে ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’- আল্লাহ ছাড়া কোনো হুকুম দাতা নেই। আল্লাহর হুকুম মানেই হলো যাবতীয় ন্যায়। যাবতীয় ন্যায়ের পক্ষে ঐক্যবদ্ধ হওয়াই হলো কলেমার মূল ভিত্তি। আজ আমরা সেই সঠিক পথ হারিয়ে ফেলেছি। হেযবুত তওহীদ সেই সঠিক পথে মানুষকে আহ্বান করছে।চট্টগ্রামে হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে আয়োজিত জনসভায় উপস্থিত জনতার একাংশ।

আশেপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে দলে দলে সাধারণ মানুষ সভাস্থলে যোগদান করে। সভাস্থলের পাশেই ছিল তওহীদ প্রকাশনের স্টল। যেখানে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে আদর্শিক যুক্তি সংবলিত হেযবুত তওহীদের যাবতীয় প্রকাশনা সামগ্রী বিক্রয় ও প্রদর্শন চলছিল। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স গণমাধ্যমের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Leave A Reply