জঙ্গিবাদের উৎপত্তি হাওয়া ভবনে: কামরুল

0

স্টাফ রিপোর্টার:
বিগত বিএনপি জোট সরকারের আমলে হাওয়া ভবন থেকেই জঙ্গিবাদের উৎপত্তি হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম। রোববার নিষিদ্ধঘোষিত জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) দেশব্যাপী সিরিজ হামলার নয় বছর উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগ আয়োজিত মানবন্ধনে কামরুল এ মন্তব্য করেন।
খাদ্যমন্ত্রী বলেন, “একাত্তরের পরাজিত শক্তি, ৭১ এর ঘাতক, জাতীয় চার নেতার হত্যাকারী, বিএনপি, জামায়াত ও জঙ্গিবাদ মিলে মিলে একাকার। হাওয়া ভবনে জঙ্গিদের নিয়ে একাধিক বৈঠক করে বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র বানানোর পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের উৎপত্তি ঘটানো হয়।” তিনি বলেন, “২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার আগে হাওয়া ভবনে বসে জঙ্গিদের সঙ্গে বৈঠকে পরিকল্পনা হয়। আর সেই পরিকল্পনা করেন বেগম খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক রহমান। একের পর এক জঙ্গি হামলা, বাংলা ভাইয়ের উত্থান এ সবই হাওয়া ভবন থেকে। এ কারণে তৎকালীন বিএনপি জামায়াত জোট সরকার সেই সময় জঙ্গিবাদ নিয়ে মিথ্যাচার করে।” খাদ্যমন্ত্রী বলেন, “৭১ এর পরাজিত শক্তি জামায়াত, বিএনপি ও জঙ্গি এদের আলাদা করে দেখার উপায় নেই। একই সঙ্গে ১৫ আগস্ট, ১৭ আগস্ট এবং ২১ আগস্ট এগুলো একই সূত্রে গাঁথা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ভূলুণ্ঠিত করে জঙ্গিদের নিয়ে নীল নকশার বাস্তবায়ন এগুলো।” বিএনপিকে অপশক্তি আখ্যা দিয়ে কামরুল ইসলাম বলেন, “রাজনৈতিক কর্মসূচি রাজনীতি দিয়ে মোকাবেলা করা যায়। তাদের সঙ্গে আলোচনাও করা হয়। কিন্তু সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদের সঙ্গে কোনো আলোচনা হয় না। এদের দমন করতে হবে। এই অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র তৈরির জন্যই বেগম খালেদা জিয়া তার পুত্র তারেক দিয়ে জামায়াতের সঙ্গে আঁতাত করে জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করেছিল।” তিনি বলেন, বাংলাদেশের তথাকথিত বুদ্ধিজীবী এদের সুরে সুর মিলিয়ে কথা বলে। তখন অবাক লাগে। এরা বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি বিশ্বাস করে না।” স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোল্লা মো. আবু কাওসার, সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ দেবনাথ, ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক ফরিদুর রহমান ইরান, দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক আরিফুর রহমান টিপু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave A Reply

Pinterest
Print