ঢাকার রাস্তায় এক ঘণ্টা দৌঁড়ে সম্মান বাঁচালেন মংলার কিশোরী

0

মংলা প্রতিনিধি : শিরোনাম পড়ে পাঠকরা ভড়কে যেতে পারেন। ভাবতে পারেন কোনো বাংলা ছবির দৃশ্যের কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু ব্যাপারটা সত্যি। এমনি এক হৃদয়বিদারক ঘটনার শিকার হয়েছেন মংলার তেরো বছরের কিশোরী মিষ্টি (ছদ্মনাম)। প্রতিবেশী এক আন্টির সাথে বেড়াতে এসে পাচারের শিকার হন তিনি। এরপর ঢাকার রাস্তায় এক ঘণ্টা দৌড়ে নিজেকে রক্ষা করেন। মংলা থানা পুলিশ বুধবার দুপুরে তাকে ঢাকা থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। মংলা থানায় এ প্রতিনিধি উপস্থিত হয়ে ঘটনার বিস্তারিত জানতে পারেন। এ সময় মিষ্টি তার মায়ের বুকে মুখ লুকিয়ে কাঁদছিলেন।

থানার উপ-পরিদর্শক রবীন্দ্রনাথ বলেন, ‘মঙ্গলবার রাত ৩টার দিকে ঢাকার রামপুরা থানা থেকে তাকে উদ্ধার করে বুধবার সকালে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।’ ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে রবীন্দ্রনাথ আরো বলেন, ‘হতদরিদ্র ঘরের মেয়ে মিষ্টি এবার জেএসসি পরীক্ষার্থী। গত ১৫ অক্টোবর মিঠাখালী ইউনিয়নের লিপি বেগম (৩৫) তাকে মংলা বাজারে বেড়াতে নিয়ে আসে। পরে মংলার বাসস্ট্যান্ডের একটি হোটেলে খাবার খাওয়ানোর পর মিষ্টি জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।’ এরই মধ্যে মায়ের বুক থেকে মাথা তুলে মিষ্টি।

তিনি বলেন, ‘জ্ঞান ফিরে দেখি একটা ঘরে আমাকে আটকে রাখা হয়েছে। এরপর বড় বড় বেটাদের সাথে আমাকে খারাপ কাজ করতে বল্লে আমি কান্না কাটি করি। তখন তারা (বড় বড় বেটা) চলে যায়।’ মিষ্টি আরো বলেন, এভাবে কাটে কয়েকদিন। একদিন হঠাৎ ই আন্টি (লিপি) আমার রুমে একটি পিস্তল নিয়ে ঢোকে। আমার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে বলে এবার কেউ আসলে কান্নাকাটি করলে একদম মেরে ফেলবো। মিষ্টি পালানোর কথা বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন ‘এরই মধ্যে পাশের রুমে থাকা একটি মেয়ের সাথে আমার পরিচয় হয়। আমার কান্নাকাটি দেখে তার মায়া হয়। তাকে আমি অনুরোধ করে বলি তুমি আমাকে এখান থেকে পালানোর সুযোগ করে দেও তা না হলে আমি আত্মহত্যা করব।’

মিষ্টি জানান, মেয়েটি তাকে পালানোর সুযোগ করে দেয়। গত সোমবার বিকেল ৪-৫টা পাঁচটার দিকে পাঁচ তলা সিঁড়ি বেয়ে দৌড় শুরু করে। রাস্তায় নেমে প্রায় এক ঘণ্টা দৌঁড়ানোর পর এক মহিলার কাছে গিয়ে মাথা ঘুরে পড়ে যান। তিনি তাকে সুস্থ করে তোলেন। এরপর ওই মহিলাকে সব খুলে বলেন মিষ্টি। তিনি পুলিশকে খবর দেন। উপ-পরিদর্শক রবীন্দ্রনাথ আরো বলেন, রামপুরা থানা থেকে আমাদেরকে জানানোর পর আমরা মিষ্টিকে উদ্ধার করি। এ ঘটনায় মিষ্টির মা বাদি হয়ে লিপি বেগমকে আসামি করে একটি অপহরণ মামলা করেছেন।

Leave A Reply