দোয়ারাবাজার এক কিশোরী জোরপূর্বক ধর্ষিত

0

Captureদোয়ারাবাজার প্রতিনিধি, সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার সীমান্ত এলাকায় এক অসহায় কিশোরীকে এলাকার বখাটে যুবক কর্তৃক জোরপূর্বক ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় এলাকাবাসী ও ধর্ষিতা মেয়ের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ধর্ষিতা নাজমা আক্তার (১৭) উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়নের মনু মিয়ার কন্যা। নাজমা আক্তারের শিশ তার বড়ভাই ও বাবা চট্রগ্রামে শিল্প কারখানায় কাজ করেন। নাজমা আক্তারও দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় গার্মেন্টসে কাজ করছেন। গত কয়েকদিন আগে তিনি বাড়িতে বড়ভাবী ও বোনের কাছে অবস্থান করছেন। এদিকে ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার নাজমা আক্তারের বাড়িতে তার বাবা ও বড়ভাই না থাকার সুবাধে ওই দিন রাত সারে বারোটার দিকে প্বার্শবর্তী দেলোয়ারনগর গ্রামের আজর আলীর পুত্র মুজিবুর রহমান (২০) রাতে ধর্ষিতা নাজমা আক্তারের ঘরের বেড়া ভেঙে ঘুমন্ত নাজমা আক্তারের মুখ চেপে ধরে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে নাজমা আক্তারের আর্তচিৎকারে ঘটনা জানাজানি হয়ে গেলে ঘটনাস্থল থেকে নাজমা আক্তারকে পরিবার ও তার প্রতিবেশী লোকজন অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে। লোকজনের অবস্থান টের পেয়ে বখাটে যুবক মুজিবুর রহমান তার চাদর ও জুতা ফেলে পালিয়ে যায়।
প্রতিবেশী হারুন অর রশীদ জানান, পরদিন শুক্রবার সকালে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও লক্ষীপুর ইউপি চেয়ারম্যানকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। ওইদিন সকালে দোয়ারা থানায় অভিযোগ করা হলেও থানা কর্তৃপক্ষ বিষয়টি তেমন আমলে নেয়নি।
এই প্রতিবেদন লেখার আগে সরজমিনে জানা যায়, থানায় অভিযোগ করা হলেও এখনো পর্যন্ত কোনো ধরনের তদন্ত করা হয়নি। ধর্ষিতা মেয়ের পরিবার সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, ধর্ষক মুজিবুর রহমানের পরিবার প্রভাবশালী হওয়ায় ধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলছে। ধর্ষিতা নাজমা আক্তারকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করতে নেওয়া হয়েছে।মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে ধর্ষিতা নাজমা আক্তার প্রতিনিধিকে জানান, তাকে পার্শ্ববর্তী গ্রামের বখাটে যুবক মুজিবুর রহমান জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।
লক্ষীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল হক জানান, ঘটনার সত্য মিথ্যা আমি জানিনা। মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ধর্ষণ করা হয়েছে তবে ছেলের পরিবার বলছে তাদেরকে ফাসাতে এটা ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে তাদেরকে দোষারোপ করা হচ্ছে।
এব্যাপারে দোয়ারা থানার ওসি সেলিম নেওয়াজ জানান, অভিযুক্ত ছেলের সাথে মেয়ের প্রেম ঘটিত সম্পর্ক ছিল। সকালে মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave A Reply

Pinterest
Print