বিলবাওয়ের কাছে ঘরের মাঠে পয়েন্ট হারাল রিয়াল

0
বিলবাওয়ের কাছে ঘরের মাঠে পয়েন্ট হারাল রিয়াল

বিলবাওয়ের কাছে ঘরের মাঠে পয়েন্ট হারাল রিয়াল

রিয়াল মাদ্রিদকে হয়তবা ফেভারিট মানা হচ্ছে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা ধরে রাখার মিশনে , কিন্তু লা লিগায় এবারের মৌসুমে নিজেদের কোনভাবেই মেলে ধরতে পারছে না বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। বুধবার ঘরের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের সাথে ১-১ গোলে ড্র করে পয়েন্ট হারিয়েছে মাদ্রিদ। যদিও এই ফলাফল চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে খুব একটা প্রভাব ফেলবে না বলেই সংশ্লিষ্টদের বিশ্বাস।

ঘরের মাঠে অনেকটা আত্মতুষ্টি নিয়েই ম্যাচ শুরু করেছিল জিনেদিন জিদানের দল। কিন্তু শেষটা মোটেই ভালো হয়নি। ম্যাচের শুরুতে ইনাকি উইলিয়ামসের গোলে যদিও অ্যাথলেটিকই এগিয়ে গিয়েছিল। ৮৭ মিনিটে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর গোলে কোনমতে ড্র নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে জিদান বাহিনীকে। তারপরও পরাজয়ের হাত থেকে রক্ষা পাওয়াই জিদানের জন্য একমাত্র সান্ত্বনা।

তবে আগামী সপ্তাহে অ্যালিয়াঞ্জ এরিনাতে শেষ চারের প্রথম লেগে বায়ার্নের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে অন্তত জিদানকে নতুন করে ভাবতেই হচ্ছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের থেকে ১২ ও রিয়াল মাদ্রিদের থেকে ১৫ পয়েন্ট এগিয়ে সুস্পষ্ট ব্যবধানেই লিগ টেবিলের শীর্ষ স্থানটি ধরে রেখেছে বার্সেলোনা।

যদিও চ্যাম্পিয়নস লিগের নক-আউট পর্বে এক ভিন্ন রিয়ালকেই সবাই দেখেছে। তারপরও এই ড্রয়ের মাধ্যমে দেখা যাচ্ছে শেষ চারটি ম্যাচে রিয়াল মাত্র একটিতে জয় তুলে নিয়েছে। রোনাল্ডোর শেষ মুহূর্তের গোলটি ছিল শেষ ১২ ম্যাচে ২২তম গোল। আর পর্তুগিজ তারকার এই ফর্মই রিয়ালকে ইউরোপিয়ান লিগে বাড়তি অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছে। বায়ার্নের ম্যাচকে সামনে রেখে রোববার মালাগার বিপক্ষে লিগ ম্যাচে জিদান মূল খেলোয়াড়দের বিশ্রামে রেখেছিলেন। তবে কালকের ম্যাচে রোনালদো, লুকা মডরিচ, টনি ক্রুস, রাফায়েল ভারানেদের ফিরিয়ে আনতে বাধ্য হন জিদান।

যদিও মালাগার বিপক্ষে দলে না থাকা গ্যারেথ বেল কালও ছিলেন বিশ্রামে। শেষ ৩০ মিনিট করিম বেনজেদমার জায়গায় তিনি মাঠে নেমেছিলেন। শক্তিশালী দল নিয়ে মাঠে নামলেও রিয়ালের শুরুটা মোটেই ভাল ছিল না। বিশেষ করে ভুল পাসে অ্যাথলেটিক প্রথম থেকেই বল নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। ডানি কারভাজালের ক্রস থেকে রোনালদোর দারুণ একটি হেড বারে লেগে ফেরত আসে। রিয়ালের মধ্যমাঠের দুর্বলতার সুযোগে ১৪ মিনিটে এগিয়ে যায় সফরকারীরা। মধ্য মাঠ থেকে ইনিকো কোরডোবা যখন বল পান তখন তার ধারে কাছে কেউ ছিল না। তার পাসেই উইলিয়ামস দারুণ দক্ষতায় কেইলর নাভাসকে পরাস্ত করেন।

দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য রিয়াল নিজেদের ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করে। মার্কো আসেনসিও তিনজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে শট নিলেও অ্যাথলেটিক গোলরক্ষক কেপার দক্ষতায় সমতায় ফেরা হয়নি রিয়ালের। দ্বিতীয়ার্ধের মাঝামাঝিতে উনাই নুনেজের ফাউলের বিপরীতে রোনালদোর পেনাল্টির আবেদন নাকচ করে দেন রেফারী হুয়ান মার্টিনেজ। ৮৭ মিনিটে অবশ্য রোনালদো আর ভুল করেননি। তার আগে বেল ও ইসকো বদলী বেঞ্চ থেকে উঠে এসে দলকে উজ্জীবিত করেছেন।

Leave A Reply

Pinterest
Print