বেনাপোল বন্দরে ট্রাক টার্মিনাল না থাকায় যানজট লেগেই আছে

1

মোঃ রাসেল ইসলাম, বেনাপোল প্রতিনিধি : দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে ট্রাক টার্মিনালে পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় যানজট লেগেই আছে। দীর্ঘস্থায়ী যানজটের কারণে একদিকে যেমন ব্যাহত হচ্ছে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য অন্যদিকে বেড়েছে জনদুর্ভোগ। ঘন্টার পর ঘন্টা যত্র-তত্র ট্রাক রেখে চরম সমস্যায় পড়তে হচ্ছে ট্রাক চালকদের।বেনাপোল বন্দরে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৬শ’ পণ্যবোঝাই  ট্রাক যাতায়াত করে। এর দুই-তৃতীয়াংশ ভারতীয়। কিন্তু আমদানি পণ্যবোঝাই শত শত ট্রাক রাখার জন্য নামমাত্র একটি ট্রাক টার্মিনাল থাকলেও নেই পর্যাপ্ত জায়গা। সেখানে আবার ভারতীয় ট্রাকের চেয়ে বিভিন্ন পণ্য রাখা হয় বেশি। জায়গা না পেয়ে বাধ্য হয়ে তাই যত্রতত্র রাখা হচ্ছে মূল্যবান পণ্য বোঝাই শত শত ট্রাক। এতে বন্দরে পণ্য ও যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।ব্যবসায়ীরা জানান,ট্রাক যে কারণেই আটকা পড়–ক না কেন বন্দরের নিয়মানুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পণ্য আনলোডে ব্যর্থ হলে ট্রাক প্রতি প্রতিদিন আড়াই থেকে তিন হাজার টাকা বিলম্ব ফিস গুণতে হয়।এদিকে, দিনের পর দিন ভারতীয় ট্রাক আটকা পড়ায় ট্রাক থেকে প্রায়ই পণ্য চুরির ঘটনা ঘটছে। পথে অতি কষ্টে থাকতে হয় আটকা পড়া ট্রাকের চালকদের। মাঝেমধ্যে চাঁদাবাজির কবলেও পড়তে হয় তাদের।বন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ী ও সিএন্ডএফএজেন্ট ও রপ্তানিকারকদের অভিযোগ, সরকারি প্রতিবছর বন্দর থেকে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয় করলেও উন্নয়নে তেমন নজর নেই। বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, ট্রাক টার্মিনালে সৃষ্ট পণ্য ও যানজটের কারণে বন্দর ২৪ ঘন্টা খোলা রাখার সুফল মিলছে না।তবে জায়গা স্বল্পতার কথা স্বীকার করে সৃষ্ট পণ্য ও যানজটের জন্য বন্দর ব্যবহারকারীদের দুষলেন বেনাপোল স্থলবন্দরের পরিচালক (ট্রাফিক) আমিনুল ইসলাম। আর কাস্টমস কমিনার মো. বেলাল হোসাইন চৌধুরী বললেন, পৌর কর্তৃপক্ষের নির্মানাধীন ট্রাক ও বাস টার্মিনালের কাজ শেষ হলে সমস্যার সমাধান হবে।

j-thirteen

Pinterest
Print