ভারতে উত্তরাখণ্ডের পর উত্তরপ্রদেশে আকস্মিক বন্যা; নেপালে ২৪০ জনের প্রাণহানি

0

201481782043765580_20আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ভারতের উত্তরাঞ্চলের রাজ্য উত্তরাখণ্ডের পর এবার উত্তরপ্রদেশসহ তৎসংলগ্ন এলাকায় আকস্মিক বন্যার খবর পাওয়া গেছে। এ বন্যার জন্য উজানের দেশ নেপালকে দুষছে ভাটির দেশটি।

রোববার সকাল পর্যন্ত উত্তরাখণ্ডে ৫০ জনেরও বেশি লোকের প্রাণহানির খবর নিশ্চিত করেছে স্থানীয় উদ্ধারকারী কর্তৃপক্ষ। আর উত্তরপ্রদেশের প্রায় ৭টি জেলা তলিয়ে গেছে বন্যার পানিতে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তিন লাখেরও বেশি মানুষ। ভারি বৃষ্টিপাতে বন্যার খবর পাওয়া গেছে বিহারেও।
 
স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো বলছে, হিমালয়ের দেশ নেপালে ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে বিপদসীমার ওপর দিয়ে সেখানকার নদীগুলোর পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এ কারণে বাঁধগুলো ছেড়ে দেওয়ায় সে পানি ভাটির দেশ ভারতের ওপর এসে পড়ছে। মাত্রাতিরিক্ত পানি প্রবাহ উত্তর প্রদেশের প্রায় পাঁচ শতাধিক গ্রাম তলিয়ে নিয়ে গেছে।

উত্তর প্রদেশের সেচ প্রকল্প বিষয়ক প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি দীপক সিংঘাল বলেন, শুক্রবার সূর্যু বাধের পানি সর্বোচ্চ সীমা দিয়ে প্রবাহিত হয়। হিসাবে দেখা গেছে, ২.৫ লাখ কিউসেক পানি প্রবাহিত হয়েছে এ বাধের ওপর দিয়ে। বাধগুলো যেন ক্ষতির সম্মুখীন না হয় সেজন্য আমরা বাঁধ গেটগুলো খুলে দিয়েছি। শনিবার বিকেলে সমস্যা কিছুটা লাগব হলেও নেপালের ছেড়ে দেওয়া পানিতেই ভাসতে হচ্ছে উত্তর প্রদেশকে।

বন্যা মোকাবেলায় উত্তরাখণ্ড, উত্তরপ্রদেশ ও বিহার রাজ্যের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠকে বসে কেন্দ্রীয় সরকার। বৈঠকে সর্বোচ্চ উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে পরিস্থিতি মোকাবেলার নির্দেশ দেওয়া হয়।

নেপালে বন্যায় ২৪০ জনের প্রাণহানি
হিমালয়ের পাদদেশের রাষ্ট্র নেপালে আকস্মিক বন্যা ও ভূমিধসের ঘটনায় গত দু’সপ্তাহে ২৪০ জনেরও বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। নিখোঁজ রয়েছে আরও প্রায় কয়েকশ’ মানুষ। গত তিন দিনেই মারা গেছে ৮৫ জন। 

দেশর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র শংকর কৈরালা সাংবাদিকদের জানান, গত তিন দিনে ৮৫ জনেরও বেশি প্রাণহানির খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। এছাড়া, আহত হয়েছেন ৪৬ জন এবং দেশজুড়ে নিখোঁজ রয়েছেন ১১৩ জনেরও বেশি।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো জানায়, চলতি সপ্তাহের শেষ দিকে এসে বন্যা ও ভূমিধসের কবলে পড়েছে দেশটির প্রায় এক তৃতীয়াংশ অঞ্চল অর্থাৎ ৩০টি জেলা।

কৈরালা জানান, দেশের দূরবর্তী পশ্চিমাঞ্চলের জেলা সুরখেত সবচেয়ে বেশি বন্যা ও ভূমিধস কবলিত এলাকা। এই জেলায়ই কয়েক ডজন লোকের প্রাণহানির খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তিনি দাবি করেন, সপ্তাহের শেষ দিকে বাঙ্কে ও বারিদ্য জেলা থেকে ১২ হাজারেরও বেশি লোককে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। রোববারও সেনাবাহিনী ও অন্য নিরাপত্তা বাহিনীর সহযোগিতায়  জাজারকোট জেলা থেকে ১৫ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে।

সুরকেত জেলার বীরেন্দ্রনগর মিউনিসিপ্যালিটির ২৫টি বসত-বাড়ি সম্পূর্ণ ভাসিয়ে নিয়ে গেছে বলেও জানান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ মুখপাত্র।

এদিকে, এ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় নেপালকে ৩ কোটি ভারতীয় রুপি ত্রাণ সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন দেশটিতে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত রণজিৎ রায়।

Leave A Reply

Pinterest
Print