মসজিদ পরিস্কার যেমন সওয়াবের, পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখাও সওয়াব

0

পরিস্কার রিয়াদুল হাসান || পরিচ্ছন্নতা অভিযান নিয়ে অনেক সভা-সেমিনার হচ্ছে, বিশেষ করে মেয়র নির্বাচনে ভোটের সঙ্গে এর খুব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক। পরিবেশ নোংরা হলে আমরাই কষ্ট পাই কিন্তু পরিবেশ নোংরাও আমরাই করি। অথচ যারা ময়লা আবর্জনাগুলো পরিষ্কার করেন তাদেরকে সমাজের চোখে সবচেয়ে হীন চোখে দেখা হয়। তাদের ইউনিফর্মে পরিচ্ছন্ন কর্মী না লিখে পরিচ্ছন্নতা কর্মী লিখলে ভাষাগতভাবে সঠিক হতো কিনা এ নিয়ে আমি দ্বিধান্বিত।
.
অ্যাটিচিউড একটি বড় বিষয়। আমি যদি ধর্মের শিক্ষা হৃদয়ে ধারণ করি তাহলে দেখব তাদের এই কাজটি একটি বড় এবাদত। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ, এ কথাটি আমরা সবাই জানি। মসজিদে ঝাড়ু দেওয়া সওয়াবের কাজ হলে রাস্তা ঝাড়ু দেওয়াও সওয়াবের কাজ। তবে মানুষের আনাগোনা রাস্তাতেই বেশি হয়।
.
জাহেলিয়াতের যুগে ক্বাবার মোতয়াল্লি আব্দুল মোত্তালিব নাকি ভক্তির আতিশয্যে নিজের দীর্ঘ দাড়ি দিয়ে ক্বাবার ধূলা ঝাড়ু দিতেন, অথচ সেই সমাজ ছিল অন্যায় অবিচারে পরিপূর্ণ। আল্লাহর রসুল এসেছিলেন এই অন্যায় অবিচার নির্মূল করতে। তিনি ঐ কাবার মোতয়াল্লিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। বর্তমানে আমাদের মসজিদগুলোও চকচকে, কিন্তু সমাজ হয়ে আছে অশান্তির নরককুণ্ড ও আবর্জনার স্তূপ। এই অবিচার দূর করবে কে? রসুলের অনুসারীদের নজর তো এখন দাড়ি-টুপি আর কুলুখের মধ্যে চুবিয়ে রাখা হয়েছে।
.
দীন মানে জীবনব্যবস্থা, দীন যদি জীবনের কোনো কাজেই না লাগে তাহলে সেই জীবনব্যবস্থা পাঠানো অর্থহীন। আলেম সাহেবরা অবশ্য ধর্মের প্রকৃত শিক্ষাগুলো মানুষকে দিতে রাজি নন কারণ তা অর্থকরী নয়। তারা যদি মুসল্লিদের শিক্ষা দেন যে, প্রত্যেকে যদি অহংকার ত্যাগ করে নিজেদের পরিবেশ নিজেরা পরিষ্কার রাখেন, রাস্তাঘাট পরিষ্কার করেন এবং বিশেষ করে সমাজের সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলেন তাহলে তারা আখেরাতে আল্লাহর কাছ থেকে এর বিনিময় পাবেন এবং তাদের ধর্মবিশ্বাস সমাজের কল্যাণে সঠিকভাবে কাজে লাগবে। এটা তাদের এবাদত হিসাবে গণ্য হবে। এই শিক্ষা আলেম সাহেবরা না দিলে সরকার বা যে কোনো প্রতিষ্ঠান বা গণমাধ্যমও দিতে পারে।

লেখক: সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

Leave A Reply

Pinterest
Print