রংপুরে লালবাগ রেলওয়ে বস্তি উচ্ছেদের নোটিশের প্রতিবাদে ডি.সি অফিস ঘেরাও

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: পুনর্বাসন ব্যতীত লালবাগ রেলওয়ে বস্তি উচ্ছেদের নোটিশের প্রতিবাদে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাও করেছে বস্তিবাসী।
২৪ জুন বেলা ১ টায় লালবাগ রেলওয়ে বস্তি রক্ষা সংগ্রাম কমিটির উদ্যোগে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। এর আগে রংপুর নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল ও কাচারী বাজার চত্বরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বস্তি রক্ষা সংগ্রাম কমিটির সভাপতি আবু তালেবের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাসদ(মার্কসবাদী) জেলা সমন্বয়ক কমরেড আনোয়ার হোসেন বাবলু,জেলা কমিটির সদস্য পলাশ কান্তি নাগ,বস্তি রক্ষা সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক নুর আলম,সদস্য ভুট্টু মিয়া,তানজু বেগম প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময় হতে এই বস্তিতে আমরা বসবাস করছি। আমাদের নিজস্ব কোন ভিটেমাটি নেই। এখান থেকে উচ্ছেদ হয়ে গেলে জমি ক্রয় কিংবা বাসা বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাসের বন্দোবস্ত করার সামর্থ্য আমাদের কারও নেই। ফলে বস্তি উচ্ছেদ হওয়া মানেই আমাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে পথে বসতে হবে।
বক্তারা আরও বলেন, আমরা দীর্ঘদিন যাবত সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে আমাদের স্থায়ী পুনর্বাসনের জন্য দাবি জানিয়ে আসছি। আজ অবধি আমাদের পুনর্বাসন করা হয়নি। রংপুর জেলায় সরকারের শত শত একর খাস জমি রয়েছে। সরকার সুবিধামত যে কোন জায়গায় আমাদের পুনর্বাসন করতে পারে। আমাদের পুনর্বাসন না করে উচ্ছেদ অভিযানের সিদ্ধান্ত অগণতান্ত্রিক। শুধু তাই নয়-পুনর্বাসন ব্যতীত বস্তি উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা লঙ্ঘনের শামিল। উক্ত নোটিশ পাবার পর থেকে বস্তিবাসীর রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। সকলেই আতংক আর শংকায় দিনাতিপাত করছে-কখন বস্তি উচ্ছেদ হয়। আমরা পরিবার-পরিজন নিয়ে পথে বসতে চাই না। আমরা মাথা গোঁজার ঠাঁই চাই। জীবনের সকল অধিকার থেকে বঞ্চিত আমরা মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকু কি পাব না?
বক্তারা পুনর্বাসন না করে লালবাগ রেলওয়ে বস্তি উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত বাতিলের ব্যাপারে রংপুরের জেলা প্রশাসকের কার্যকর পদক্ষেপ দাবি করেন।
ঘেরাও চলাকালে বস্তিবাসী জেলা প্রশাসকের নিকট একটি স্মারকলিপি পেশ করেন।

Leave A Reply

Pinterest
Print