রাজিবপুরে ১০টাকা কেজি চাউল বিতরনে বিক্ষোভ; গুলিবিদ্ধ-২ আহত শতাধিক, গ্রেফতার-১

0

রৌমারী (কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধি: কুড়িগ্রাম জেলার রাজিবপুর উপজেলার কোদালকাটি ইউনিয়নে ১০টাকা কেজি চাউল না পাওয়ায় কার্ডধারীদের বিক্ষোভ মিছিলে সন্ত্রাসীদের হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়েছে ২ ব্যক্তি, কোদাঁলকাটি ইউপি চেয়ারম্যানসহ আহত হয়েছে প্রায় শতাধিক।
বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে রাজিবপুর উপজেলার কোদাঁলকাটি ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার সাথে জড়িত ডিলার তোতা প্রামানিক-কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, সরকারের বরাদ্দকৃত (ফেয়ার প্রাইজ) ১০ টাকা কেজি চাউল না পাওয়ায় ১১এপ্রিল কার্ডধারীরা স্থানীয় ইউপি সদস্য কামাল হোসেনের কাছে অভিযোগ করে। তিনি ডিলার তোতা প্রামানিকের কাছে চাউল না দেওয়ার বিষয়টি জানতে চাইলে। তোতা প্রামনিক এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউপি সদস্য কামাল হোসেনকে বেধরক মারপিট করেন। এঘটনাকে কেন্দ্র করে কার্ডধারী ভুক্তভুগিরা ও এলাকাবাসি ১২এপ্রিল বেলা ১১টার দিকে ডিলারের দূর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি কোদাঁলকাটি ইউনিয়ন পরিষদ চত্তরে অবস্থান নিলে ডিলার তোতা প্রামানিক ও তার ভাড়াটিয়া লোকজন বিক্ষোভ মিছিলে অতর্কিত ভাবে শর্টগানের গুলি ও হামলা চালায়। এতে উপজেলার চরসাজাই মন্ডলপাড়া গ্রামের মাহমুদুউল্লাহ ছেলে বিপ্লব (২৬), একই গ্রামের বেলালের ছেলে মন্ডল (৩৫) গুলিবিদ্ধ হয়।
এছাড়াও ঐ হামলায় কোদাঁলকাটি ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর ছক্কু (৫০), চরসাজাই মন্ডলপাড়া গ্রামের নাইব আলীর ছেলে মাফুজল হক (৪০), ফারুকের ছেলে রুকন (৪৫), নাছেরের ছেলে তালেব আলী (৪৬), আবু বক্করের ছেলে রাজু (২০), নায়েব আলীর ছেলে সিদ্দিক (৫০), লোকমানের ছেলে সুরমান (৩৫), স্জাই সরকারপাড়া গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে দুলু (৩৭), বুলু মিয়া (৩৮)সহ শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে রাজিবপুর সরকারী স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এদের মধ্যে অবস্থায় আশংকাজনক হওয়ায় কর্মরত চিকিসৎক মাফুজল হক, বিপ্লব ও মন্ডলকে ময়ময়নসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
এ ঘটনায় ঐ এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।
কার্ডধারী আনোয়ার হোসেন, সিরাজউদ্দিন, মফিজুল ইসলাম,ইউসুফ আলী অভিযোগ করে বলেন, আমাদের ১০ টাকা কেজি চাউলের কার্ড থাকলেও গত ৭মাস থেকে ডিলার তোতা মিয়া আমাদেরকে চাউল দেয় না। চাউল চাইতে গেলে নানা ধরনের হুমকি ধামকি দেয়। আজকে আমরা ডিলারের বিরুদ্ধে মিছিল করলে তার লোকজনসহ তোতা আমাদের উপর গুলি ও হামলা চালায়।
কোদাঁলকাটি ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর ছক্কু বলেন, ১০টাকা কেজি চাউল না দেওয়ার প্রতিবাদ করায় তোতা প্রামানিক ও তার সহযোগিরা আমাদের উপর হামলা চালায়।
রাজিবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. রবিউল ইসলাম জানান, ডিলার তোতা প্রামানিক কে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঐ এলাকায় পুলিশি অভিযান অব্যহত রয়েছে।

Leave A Reply