জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চ ভাষন ইউনেস্কোর “মেমোরী অব দ্য’ ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টার”

0

মো: মিলন কবির-যশোর ।

শার্শায় ব্যাপক উৎসাহ ও ঊদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নানা কর্মসূচীতে পালিত হয়েছে। “জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চ ভাষন ইউনেস্কোর “মেমোরী অব দ্য’ ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টার”এ অন্তর্ভুক্তির হওয়ায় সারা দেশের ন্যায় শার্শায় ব্যাপক উৎসাহ ও ঊদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নানা কর্মসূচীতে পালিত হয়েছে। শনিবার ২৫ নভেম্বর শার্শা উপজেলা প্রশাসনের উদ্দোগে সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ ভবন থেকে এক বন্যাঢ আনন্দ শোভাযাত্রা ও র‍্যালি বের হয়ে উপজেলার প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে। শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডলের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন শার্শার সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দীন।এসময় তিনি তার বক্তব্যে বলেন,বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষন বাঙালী জাতির জন্য একটি মাইল ফলক।এই ভাষন বাঙালী জাতিকে দেশ মাতৃকার টানে উদ্বুদ্ধ করে পরাধীনতার কবল থেকে মুক্ত করতে সাহস যুগিয়েছিল।বিশ্বের দরবারে লাল সবুজের পতাকা সম্বলিত বাংলাদেশ কে মাথা উচু করে দাড় করেছিল।যার প্রমান ইউনেস্কোর “মেমোরী অব দ্য’ ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টার”এ অন্তর্ভুক্তির হওয়া।তিনি আরো বলেন,বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে সুযোগ্য কন্যা,বাংলাদেশের সফল প্রধান মন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে দূর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছে। বিশ্বের দরবারে শেখ হাসিনার বাংলাদেশ আজ রোল মডেল হিসাবে স্হান পেয়েছে। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে হিসাবে উপস্হিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল হক মন্জু,উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)আব্দুল ওয়াদুদ,বেনাপোল কাষ্টমস এর অতিরিক্ত কমিশনার জাকির হোসেন,উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামান,উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া ফেরদৌস,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড মোজাফ্ফার হোসেন,শার্শা থানার অফিসার ইনচার্জ এম মশিউর রহমান,বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইলিয়াছ কবীর বকুল,শার্শা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন,উলশী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আয়নাল হক,কায়বা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ আহম্মেদ টিংকু,বাগআঁচড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি আরিফুজ্জামান আরিফ,সাধারন সম্পাদক আবু সাঈদ সহ উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা,কর্মচারী, মুক্তিযোদ্ধা,বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান,ছাত্র ছাত্রী সহ সূধী জন। বন্যাঢ আয়োজনের এ আনন্দ শোভাযাত্রা র‍্যালিতে নানা ধরনের ব্যানার,পোষ্টার, ফেস্টুন নিয়ে বেনাপোল কাষ্টমস,উপজেলা আনসার,ভিডিপি, বেনাপোল পর্যটন মেটাল,শার্শা বালিকা বিদ্যালয়, বুরুজবাগান পাইলট বালিকা বিদ্যালয় সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও ছাত্র ছাত্রীরা এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা অংশ গ্রহন করেন। সবশেষে এক মনো মূগ্ধকার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

জে-থার্টিন ।

Leave A Reply

Pinterest
Print