শীতের আগমনী বার্তায় ব্যস্ত রংপুরের কুঠিরপাড়ার ধনুকরা

0

এভাবে ব্যস্ত সময় পার করছে কুঠিরপাড়ার ধনুকররা

রনজিৎ দাস,রংপুর: রংপুর নগরীর ৩০নং ওয়ার্ডের আলম নগর কুঠিরপাড়া এলাকার ধনুকরদের মাঝে এখন কর্মব্যস্ততা ফিরে এসেছে। কুঠিরপাড়া এলাকার প্রায় ২’শ থেকে আড়াই শত নারী ও পুরুষ শ্রমিক লেপ তোষক বানিয়ে সংসারের চাহিদা পুরনের পাশ- পাশি তাদের পরিবারকে সহযোগিতা করে আসছে যৌথভাবে।
ত্রিশ বছর ধরে প্রতি শীতের ন্যয় দিন রাত হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে এসব নারীরা তাদের নিজ গৃহে এবং পাশ^বর্তী খোলা মাঠে তৈরি করে আসছে শীতের লেপ ও তোষক। আর তাদের গৃহকর্তারা এসব তৈরি লেপ তোষক দুর-দূরান্ত এলাকায় ভ্যানে করে নিয়ে বিক্রি করে ফলে নারীদের পাশা পাশি যেন পুরুষরাও ব্যস্ত সময় পার করছে এবারের শীতে।
কুঠির পাড়ার নারীরা দিনে ৪/৬ টি করে লেপ তোষক তৈরি করে এবং প্রতিটিতে চল্লিশ টাকা করে পারিশ্রমিক পেয়ে ২থেকে আড়াই শত টাকা উপার্জন করছে।
নারী শ্রমিক ধনুকর মালা খাতুন, বিথী বেগম, ফিরোজা বেগম, টুলটুলি বেগম, নুরজাহান বেগম, আশা খাতুন, রেহেনা বেগম ও সুমনা বেগম জানান, প্রতিটির জন্য চল্লিশ টাকা করে পেলেও শ্রম অনুযায়ী মুল্য কম হওয়ায় সংসারের চাহিদা মিটাতে কষ্ট হয়।
ভ্যানে করে গ্রামে গঞ্জে ঘুরে বিক্রেতা নাজমুল হাসান (পাপন), স্বপন মিয়া, তছলিম মিয়া, আমিনুল হোসেন, মনোয়ার হোসেন ও ঈমাম হোসেন জানান, লেপ তোষকের মান অনুযায়ী প্রতি লেপে ৫০-৬০টাকা লাভ হয় তাতে দিন ঘুরে ৫/৬টি লেপ তোষক বিক্রি করে গড়ে ২ থেকে ৩ শত টাকা উপার্জন হয়। এসব কাজে নিজস্ব ভ্যান ব্যবহার করেও এই আয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে সংসার চালাতে হিমসিম খাচ্ছে তারা।
এসব ধনুকর পরিবারের দাবী সরকারী ও বেসরকারী ভাবে স্বল্প সুদে লোন পেলে ব্যবসা প্রসার করে ব্যাপক উৎপাদনে এলাকার সহ দেশের চাহিদা মেটানো সম্ভব এবং কয়েকশত বেকার যুবক ও নারীর কর্মসংস্থনের সৃষ্টি হবে বলেও জানান তারা।

Leave A Reply

Pinterest
Print