সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করলেন ‘মেয়র আলমগীর’

0

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ের সাংবাদিক খুরশিদ আলম শাওনকে ‘কেটে ফেলার’ হুমকি দেওয়ার ঘটনায় মেয়র আলমগীর সরকার সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।

বুধবার বিকেলে রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন রাণীশংকৈল পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আলমগীর সরকার।

রাণীশংকৈলে জাইকার রাস্তা সংস্কারে অনিয়ম ও দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করায় গত বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার রাণীশংকৈল উপজেলা প্রতিনিধি খুরশিদ আলম শাওনকে মুঠোফোনের মাধ্যমে ‘কেটে ফেলার’ হুমকি দিয়েছিলেন রাণীশংকৈল পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আলমগীর সরকার। এছাড়া মেয়র আলমগীর সরকার সাংবাদিকতা পেশা নিয়ে নানা ধরনের মন্তব্য করেছেন।

এরপর বিষয়টি বিভিন্ন বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরালে পরিণত হয়। এসব বিষয় নিয়ে মঙ্গলাবার রাণীশংকৈলের সাংবাদিকরা ‘কলম বিতরি’ কর্মসূচিও পালন করেছেন।

বুধবার বিকেলে রাণীশংকৈল উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা খন্দকার মো. নাহিদ হাসানের তত্ত্বাবধানে তাঁর কার্যালয়ে সাংবাদিক নেতা, মেয়র ও রাজনৈতিক নেতা সহ সুশীল সমাজের ব্যক্তিদের নিয়ে মিমাংশা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকের এক পর্যায়ে মেয়র আলমগীর সরকার তার ভুল স্বীকার করে প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার রাণীশংকৈল উপজেলা প্রতিনিধি সাংবাদিক খুরশিদ আলম শাওন সহ সাংবাদিক নেতাদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। এরপর সাংবাদিকরা বিষয়টি সমাধান করে নেয়।

পরে মেয়র আলমগীর সরকার ও সাংবাদিক খুরশিদ আলম শাওন হাতে হাত মিলিয়ে কুশল বিনিময় করেন।

রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার মো. নাহিদ হাসান বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বসবাস করতে চাই। এখানে সাংবাদিককে হুমকি দেয়ার বিষয়টি নিয়ে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। তাই উভয় পক্ষকে ডেকে বিষয়টি সমাধান করে দেয়া হয়েছে।

মিমাংশা বৈঠকে রাণীশংকৈল থানার ওসি আব্দুল মান্নান, রাণীশংকৈল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল হক, জেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুল মজিদ আপেল, ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সভাপতি আবু তোরাব মানিক, ঠাকুরগাঁও টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ফিরোজ আমিন সরকার, সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান তানু, ঠাকুরগাঁও অনলাইন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি মো. শাকিল আহমেদ, রাণীশংকৈল প্রেসক্লাবের সভাপতি মোবারক আলী সহ সাংবাদিক, রাজনৈতিক সহ সুশীল সমাজের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ২৮ জানুয়ারি প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকায় ‘বদলি ঠিকাদার ও নিম্নমানের ইট দিয়ে চলছে রানীশংকৈলে জাইকার কাজ’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হয়।

Leave A Reply