সাভারে তিন মৃত্যুর কারন উদঘাটন, মৃত সহোদরের ‘মা’সহ আটক ২

0

savar model thana BDP

খাইরুল সিকদার, আশুলিয়া: গত ১৪ মে সাভার হেমায়েতপুরের প্রান্ত ডেইরী ফার্ম নামে একটি গরুর খামারে শ্রমিকদের থাকার ঘর থেকে দুই ভাই ও ফুফাতো ভাইসহ তিন তরুনের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছিলো । তারা তিনজন প্রতিদিনের মত রাতে খাবার খেয়ে ঐ কক্ষে ঘুমাতে যায়। সকালে ডাকাডাকি করে কোন শব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে তাদের মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাদের শরীরে কোন আঘাতের চিহৃ ছিল না। ঘটনার পর তদন্তে মায়ের আচরণ সন্দেহজনক মনে হলে, তাকে জিজ্ঞাবাদ চালাতে থাকে পুলিশ। হঠাৎ করে নাসরিণ বেগম তার বাসা থেকে পালিয়ে যায়।
এরপর থেকে তাকে আটক করতে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান শুরু হয়। দুই ভাইসহ তিন তরুনের হত্যার দায়ে মা নাসরিন বেগমকে নিলফামারী থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
জানা যায়, নাসরিন বেগমের সঙ্গে সাভারের আমিনবাজারের কেরু ডাকাত নামে একজনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এই বিষয়টি নাসরিনের ছেলেরা দেখতে পায় ও জানতে পারে। ফলে কেরু ও নাসরিন বেগম তাদের হত্যার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা মতো রাতে খাবারের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে দেয়। বিষ ক্রিয়ায় দুই সহোদর ও তার ফুফাতো ভাই মারা যায়। অন্যদিকে নাসরিনের স্বামী জিয়াউর রহমান কোন কারনে রাতে খাবার না খেলে বেঁচে যায়।
নিহত দুই ভাইয়ের নাম নাছির ও জীবন। তারা হেমায়েতপুরে একটি গ্যারেজে কাজ করত। দুই ভাই কিশোরগঞ্জ জেলার গ্রামের জিয়াউর রহমানের ছেলে। বাবা জিয়াউর রহমান হেমায়েতপুরে প্রান্ত ডেইরী ফার্মের কর্মচারী ও পাশের একটি কক্ষে দুই ছেলে ও বোনের ছেলেসহ বসবাস করত। অপর নিহত ফুফাতো ভাই শাহাদাতের বাড়ির একই গ্রামে। সে হোময়েতপুরে একটি খাবার হোটেলে কাজ করত।
বুধবার ভোরে আমিনবাজার থেকে কেরু ডাকাতকেও গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় সাভার থানা পুলিশ। মা নাসরিন প্রথমিকভাবে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্ধিতে সন্তানদের হত্যার কথা স্বীকার করেছে বলে জানা যায়।

Leave A Reply

Pinterest
Print