হবিগঞ্জের পুরাণ মুন্সেফীর পুকুর থেকে শ্যামল দাশ (১০) নামে এক কিশোরের ভাসমান লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এই লাশ উদ্ধার করা হয়। শ্যামল দাশ লাখাই উপজেলার বুল্লা ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের রাবিন্দ্র দাশের পুত্র।

জানা যায়,শ্যামল দাশের পিতা রাবিন্দ্র দাশ পরিবার পরিজন নিয়ে শহরের কামাড়পট্টিতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করেন। পাশাপাশি একটি সিকিউরিটি কোম্পানিতে নিরাপত্তা প্রহরী হিসেবে কাজ করতেন তিনি।

প্রতিদিনের ন্যায় গত বুধবার (৩১আগস্ট) রাতে তার পুত্র শ্যামল দাশ বাসা থেকে বের হয়ে বন্ধুদের সাথে খেলতে যায়। রাতে বাসায় না ফেরায় পরিবারেরর সদস্যরা অনেক জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেন ।

পরের দিন (বৃহস্পতিবার) সকালে পুরাণ মুন্সেফী পুকুরে একটি ভাসমান লাশ দেখতে পায় এলাকাবাসী। সেখানে শ্যামলের বাবাসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা এসে লাশটি শ্যামল দাশের বলে চিহ্নিত করেন। বিষয়টি তাৎক্ষনিক হবিগঞ্জ সদর থানায় খবর দিলে থানার এসআই সজিবের নেতেৃত্বে একদল পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করেন।

তবে কিভাবে সে মারা গেল নাকি কেউ তাকে মেরে এই পুকুরে ফেলে রেখেছে বিস্তারিত কোন কিছু জানাতে পারেনি পরিবারসহ পুলিশ। এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি গোলাম মর্তুজা জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।তবে মৃত্যুর কারন জানা যায় নি