Connect with us

জাতীয়

কঠোর বিধিনিষেধেও ঢাকায় বেড়েছে ব্যক্তিগত যান ও রিকশা

Avatar photo

Published

on

নিউজ ডেস্ক:
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে রাজধানীসহ সারাদেশে চলছে দুই সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ। চলমান বিধিনিষেধের ষষ্ঠ দিনে রাজধানীতে ব্যাপক হারে বেড়েছে ব্যক্তিগত যান চলাচল। অনেক সড়কেই দেখা গেছে গাড়ির দীর্ঘ লাইন। আছে অনেক রিকশাও। তবে নেই বাস। সেইসঙ্গে বেড়েছে মানুষের চলাচলও।

বুধবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেট, মোহাম্মদপুর, ধানমন্ডি, সাতরাস্তা ও কারওয়ান বাজার এলাকা ঘুরে দেখা যায়, গত কয়েকদিনের তুলনায় আজ সড়কে মানুষ ও যানবাহনের সংখ্যা বেশি।

আগের কঠোর লকডাউনে মূল সড়কে মানুষের আনাগোনা তেমনটা দেখা না গেলেও এবার দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। মূল সড়কের পাশাপাশি অলিগলিতেও মানুষের অবাধ চলাফেরা করতে দেখা গেছে। তাদের অনেকের মুখে নেই মাস্ক। কারও কারও অভিযোগ, জরুরি প্রয়োজন দেখানোর পরও পুলিশ ফিরিয়ে দিয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বলছে, সড়কে বের হওয়া প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষেরই জরুরি কাজ নেই।

এলাকাগুলো ঘুরে দেখা যায়, মোটরসাইকেলে দুজন এবং রিকশায় দু-তিনজনও চলাচল করছেন। মোটরসাইকেলে দুজন চলাচল করলেও পুলিশ তাদের দেখে অনেকটা নিশ্চুপ অবস্থায় রয়েছে। এমনকি মোটরসাইকেলে ডেকে ডেকে যাত্রী তুলতেও দেখা যায় অনেক রাইডারকে।

জনসাধারণের অযাচিত ঘোরাফেরা বন্ধ করতে নগরীর বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে তৎপর ছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। যদিও অনেকে দাবি করেছেন, জরুরি কাজে বেরিয়েও তাদের জরিমানার সম্মুখীন হতে হয়েছে। কেউ কেউ আবার বের হয়েছেন কাজ ছাড়াও।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক কারওয়ান বাজারে কর্তব্যরত একজন ট্রাফিক সার্জেন্ট বলেন, ‘রাস্তায় চলাচলে বিধিনিষেধ থাকলেও অনেকে বিনা প্রয়োজনেও রাস্তায় বের হচ্ছেন। আমরা এমন ক্ষেত্রে জরিমানা করছি। আবার কেউ কেউ বিভিন্ন অজুহাত দেখাচ্ছেন। জরুরি সেবায় সম্পৃক্ত ব্যক্তিরা অবাধে চলাচল করতে পারছেন।’

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি উদ্বেগজনক পর্যায়ে চলে যাওয়ায় গত কয়েক মাস ধরে বিধিনিষেধ আরোপ করে তা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে সরকার। ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে আট দিনের জন্য শিথিল করা হয়েছিল বিধিনিষেধ। এরপর আবার গত ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে আগামী ৫ আগস্ট মধ্যরাত পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েছে সরকার।

বিধিনিষেধের মধ্যে খাদ্য ও খাদ্যদ্রব্য উৎপাদন/প্রক্রিয়াজাতকরণ মিল কারখানা, কোরবানির পশুর চামড়া পরিবহন, সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং ওষুধ, অক্সিজেন ও কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য উৎপাদনকারী শিল্প-কারখানা ছাড়া বন্ধ আছে সব ধরনের গণপরিবহন, সরকারি ও বেসরকারি অফিস এবং শিল্পকারখানা। বন্ধ রয়েছে দোকান ও শপিংমলও। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া মানুষের বাইরে বের হওয়াও নিষেধ।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জাতীয়

‘দুর্গম পথের নির্ভীক যাত্রী শেখ হাসিনা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

Avatar photo

Published

on

নিজস্ব প্রতিনিধি:

বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের আয়োজনে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩ তম জন্মদিন উদযাপন এবং বিশিষ্ট চলচ্চিত্র কাহিনীকার, প্রযোজক ও পরিবেশক এবং কথা সাহিত্যিক শেখ শাহ আলম রচিত ‘দুর্গম পথের নির্ভীক যাত্রী শেখ হাসিনা’ বইটির মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার বিকাল সাড়ে ৪ টায় জাতীয় শিল্পকলা একাডেমীর জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে কেক কাটার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উদযাপন করা হয়।

জোটের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শেখ শাহ আলম এর সভাপত্বিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সম্মানিত সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, লেখক ও অর্থনীতিবিদ ডক্টর মহিউদ্দিন খান আলমগীর, এমপি। অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির পিতা, তাঁর পরিবারের অন্যান্য শহিদ সদস্য ও শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধির জন্য বিশেষ দোয়া ও মোনাজাতের মাধ্যমে শুরু হয়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল দত্ত, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক জুনায়েদ আহমেদ হালিম, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম মহানগর শাখার উপদেষ্টা সৈয়দ মাহমুদুল হক, কথা সাহিত্যিক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসহাক খান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক, বিশিষ্ট চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিবেশক অনুপ কুমার বড়ুয়া।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ডক্টর মহিউদ্দিন খান আলমগীর বলেন, ১৯২০ সালের আজকের এই দিনে টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনিই স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন আজকের এই স্বাধীন বাংলাদেশের। তাঁর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে দেশের সর্বোচ্চ উন্নয়ন এর জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সব সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভ্যান গার্ড হিসেবে থাকবে।

জোটের সভাপতি শেখ শাহ আলম বলেন, আমাদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শে সুশিক্ষিত হতে হবে। সবাইকে দেশ গড়ার কাজে অংশগ্রহণ করতে হবে, তাহলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন অভিনেত্রী ও উপস্থাপিকা, ও বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের চলচ্চিত্র বিষয়ক সম্পাদক রওনক বিশাকা শ্যামলী।

Continue Reading

Highlights

হেযবুত তওহীদের ঢাকা বিভাগীয় কর্মী সম্মেলনে ৬ দফা দাবি উত্থাপন

Avatar photo

Published

on

নিজস্ব প্রতিবেদক:
অরাজনৈতিক আন্দোলন হেযবুত তওহীদের ঢাকা বিভাগীয় কর্মী সম্মেলনে ৬ দফা দাবি জানিয়েছেন হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম। হেযবুত তওহীদের এমাম সরকারের প্রতি ৬ দফা দাবি জানিয়ে বলেন, (১) হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত যে সমস্ত আক্রমণ হয়েছে, সে সমস্ত অভিযোগগুলোকে আমলে নিয়ে আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার করা হোক। (২) বিভিন্ন ওয়াজ-মাহফিলসহ ধর্মীয় অঙ্গনকে ব্যবহার করে যে সমস্ত উগ্রবাদী বক্তা পরিকল্পিতভাবে হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে উগ্রবাদ ছড়াচ্ছে, হুমকি দিচ্ছে, মিথ্যাচার করছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে বিচার করতে হবে। (৩) ফেসবুক, ইউটিউবসহ সকল সোশ্যাল মিডিয়াতে আসল অথবা ফেইক আইডি ব্যবহার করে হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচারমূলক কন্টেন্ট প্রচারকারী, হত্যার হুমকি প্রদানকারী, গুজব রটিয়ে, মিথ্যা ফতোয়া প্রদান করে ধর্মান্ধ মানুষকে উস্কানি প্রদানকারীদের পরিচয় ও অবস্থান চিহ্নিত করে আইসিটি আইনে বিচারের আওতায় আনতে হবে। (৪) হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে ইতঃপূর্বে যে সমস্ত মিথ্যা মামলা করা হয়েছে, সে সমস্ত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। (৫) হেযবুত তওহীদ যেন নির্বিঘ্নে সারাদেশে সভা-সমাবেশ করে জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে পারে সেজন্য স্থানীয় প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা অবিলম্বে প্রদান করতে হবে। (৬) সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ-ধর্মব্যবসা-সাম্প্রদায়িকতা-মাদক, অপরাজনীতি ইত্যাদির বিরুদ্ধে আদর্শিক লড়াইয়ের জন্য ইসলামের প্রকৃত ও অকাট্য ব্যাখ্যা সংবলিত যে শক্তিশালী আদর্শের প্রস্তাব করা হয়েছে তা দেশ জাতির কল্যাণে বিবেচনা করার জন্য সরকার ও রাষ্ট্রীয় নীতিনির্ধারক মহলের কাছে আহ্বান জানান তিনি।

শনিবার (আজ ১১ মার্চ ২০২৩) রাজধানীর গুলিস্তানে কাজী বশির মিলনায়তন প্রাঙ্গণে এক বর্ণাঢ্য আয়োজনে ‘উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে ও উগ্রবাদ মোকাবেলায় করণীয়’ শীর্ষক এ কর্মী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব দাবি উত্থাপন করেন তিনি। অনুষ্ঠানে ঢাকা ও এর আশপাশের বিভিন্ন জেলা থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মী ও সমর্থক স্বতঃস্ফূর্তভাবে উপস্থিত হন। কিছুক্ষণের মধ্যেই সমগ্র ময়দান অতিথিদের আগমনে মুখর হয়ে ওঠে।

হেযবুত তওহীদের ঢাকা বিভাগীয় সভাপতি ডা. মাহবুব আলম মাহফুজের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- হেযবুত তওহীদের উপদেষ্টামণ্ডলীর প্রধান খাদিজা খাতুন, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা বিষয়ক সম্পাদক উম্মুত তিজান মাখদুমা পন্নী, নারী ও শিল্প-বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নী, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের সভাপতি মো. মশিউর রহমান। অনুষ্ঠানে পাবনায় উগ্রবাদীদের হামলায় নিহত শহীদ সুজনের ভাই মো. ইয়াকুব মণ্ডল শহীদ সুজনের স্মৃতিচারণ করলে আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। এরআগে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন রব্বানী।

এদিন সকাল ৯টায় পবিত্র কোর’আন থেকে তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয়। এরপর একে একে শুভেচ্ছা বক্তব্যে হেযবুত তওহীদের বিভাগীয় আমিরগণ উপস্থিত সদস্যদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দেন। তাদের বক্তব্যে হেযবুত তওহীদের সুদীর্ঘ পথচলার বিপ্লবী ঘটনাপ্রবাহ, ধর্মব্যবসায়ী শ্রেণি কর্তৃক হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের নিন্দা ও জবাব, অনলাইন-অফলাইনে হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে হুমকির প্রতিবাদ এবং জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের স্বর উঠে আসে।

মূখ্য আলোচকের বক্তব্যে হেযবুত তওহীদের এমাম বলেন, “একাত্তরে লাখো প্রাণের বিনিময়ে স্বাধীন হওয়া প্রিয় জন্মভূমি বাংলাদেশকে নিয়ে আজকে গভীর চক্রান্ত চলছে। পশ্চিমাদের অনুকরণে তৈরি হওয়া পুঁজিবাদী গণতান্ত্রিক, সেক্যুলার আদর্শনির্ভর রাজনৈতিক দলগুলোর হানাহানি, সংঘাত, অসুস্থ প্রতিযোগিতা দেশকে শেষ করে দিচ্ছে। এদিকে পবিত্র ধর্ম ইসলামকে আশ্রয় করে তৈরি হওয়া বিভিন্ন দল-উপদল নিজেদের মধ্যে হানাহানি-রক্তারক্তিতে লিপ্ত। কয়েকদিন পরপর একেকটা ইস্যু সৃষ্টি করে দেওয়া হচ্ছে। সেইসব ইস্যুকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক স্বার্থ উদ্ধারের জন্য হামলা, জ্বালাও পোড়াও ইত্যাদি ঘটনা নিত্য ঘটে চলেছে। এমনি একটি পরিস্থিতিতে সত্যের মশাল নিয়ে জীবন ও সম্পদের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের মুক্তির জন্য সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে হেযবুত তওহীদ।”

হেযবুত তওহীদের বক্তব্য স্পষ্ট, দ্ব্যার্থহীন, অসঙ্গতিমুক্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, “হেযবুত তওহীদের বক্তব্যকে এক শ্রেণির উগ্রবাদী, সাম্প্রদায়িক ধর্মব্যবসায়ী জনগণের কাছে পরিকল্পিতভাবে ভুলভাবে উপস্থাপন করছে। ফলে আল্লাহর সত্যদীন প্রতিষ্ঠাকামী এই আন্দোলনের নিরপরাধ, নির্দোষ, আইন মান্যকারী সদস্যরা আক্রান্ত হচ্ছে, তাদের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে, বাড়িঘর আক্রান্ত হচ্ছে। তাদের মানবাধিকার ভূলুণ্ঠিত হচ্ছে।”

হেযবুত তওহীদের মূল বক্তব্য তুলে ধরে তিনি বলেন, “হেযবুত তওহীদ তার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই সমগ্র মানবজাতিকে প্রকৃত ইসলামের পথে আহ্বান করছে। সকল অন্যায়-অশান্তি, অবিচার, মারামারি, হানাহানি, অনৈক্য থেকে বের হয়ে ঐক্য, শান্তি ও ন্যায়ের পথে সকলকে একতাবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানাই। আজ যে মহাসঙ্কটের মুখে মানবজাতি পতিত তা থেকে বের হয়ে আসতে আল্লাহর সার্বভৌমত্বের ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোনো বিকল্প নেই। এ কাজ শুধু আমাদের একার কাজ নয়। পৃথিবীর প্রতিটি মানুষেরই আজ একই কাজ, একই দায়িত্ব। তাই সবার প্রতি আহ্বান থাকবে, আপনারা আসুন; আমাদের হাতে হাত রেখে, কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মানবতার কল্যাণে নিজেদের উৎসর্গ করি। যদি আমাদের সাথে ঐক্যবদ্ধ না হন তাহলে অন্তত অপপ্রচার, প্রপাগান্ডা করবেন না।”

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন- ময়মনসিংহ বিভাগীয় সভাপতি এনামুল হক বাপ্পা, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সভাপতি নিজাম উদ্দিন, বরিশাল বিভাগীয় সভাপতি আল-আমিন সবুজ, খুলনা (অঞ্চল-১) সভাপতি মোতালিব খান, খুলনা (অঞ্চল-২) বিভাগীয় সভাপতি শামসুজ্জামান মিলন, সিলেট বিভাগীয় সভাপতি আলী হোসেন, ঢাকা মহানগর প্রচার সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান টিটু, সাংগঠনিক সম্পাদক মেসবাউল ইসলাম প্রমুখ।

মঞ্চে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন- হেযবুত তওহীদের সাহিত্য সম্পাদক রিয়াদুল হাসান, ঢাকা বিভাগীয় নারী বিষয়ক সম্পাদক তাসলিমা ইসলাম, ঢাকা জেলা সভাপতি ইউনুস মিয়া, বৃহত্তর মিরপুরের সভাপতি আব্দুল হক বাবুল, বৃহত্তর যাত্রাবাড়ীর সভাপতি ওলিউল্লাহ, সাভার থানা সভাপতি সোহেল তালুকদার প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি যৌথভাবে সঞ্চালনা করেন হেযবুত তওহীদের তথ্য সম্পাদক এস এম সামসুল হুদা ও শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ক উপকমিটির সম্পাদক শাহনেওয়াজ খান রিপন।

 

 

Continue Reading

Highlights

প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনায় গুলিস্তানের ভয়াবহ বিস্ফোরণ

Avatar photo

Published

on

গুলিস্তানে সাত তলা ভবনে বিস্ফোরণে নিহত মানুষের সংখ্যা বেড়ে ১৫ জন হয়েছে। এ ঘটনায় আরও অন্তত ৭০ জন আহত হয়েছেন।নিহত মানুষের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার বিকাল পৌনে পাঁচটার দিকে গুলিস্তানে বিআরটিসির বাস কাউন্টারের পাশে সাততলা ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযান শুরু করে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মো. শাহজালাল বলেন, বিকাল সাড়ে চারটার দিকে হঠাৎ বিকট একটি শব্দ হয়। এসে দেখি মানুষ পড়ে আছে, চিল্লাচিল্লি করছে। লোহার গেট, ভবনের দেওয়াল ভেঙে রাস্তায় পড়েছে। একটা বাস ওই ভবনের সামনে ছিল। বাসের যাত্রীদের অনেকেই আহত হয়েছেন। কয়েকজন গুরুতর আহত হয়েছেন।

স্থানীয় একটি দোকানের কর্মচারী সম্রাট ঘটনার বিবরণ দিয়ে বলেন, ‘কস্তুরী হোটেল থেকে খাবার খেয়ে আমি মাত্র বের হয়েছি। তারপরই বিকট শব্দে ধোঁয়া শুরু হয়। ১০০ জনের ওপরে মানুষ আহত হয়েছে। মনে হয় ফিল্ম দেখতাছিলাম। মানুষ উইড়া উইড়া যাচ্ছে চারদিকে। ওপর থেকে যখন গ্লাসগুলো আসতেছে, তখন মনে হয় শুটিংয়ে যেভাবে মানুষের শরীরে ঢুকে যায়, ঠিক সে রকম পরিস্থিতি দেখছিলাম।’

ফায়ার সার্ভিসের তথ্যমতে, ভবনের নিচতলায় স্যানিটারির দোকান ছিল। নিচতলায় বিস্ফোরণ ঘটে ওপরের কয়েকটি তলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেখানে এখনো উদ্ধারকাজ চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিসের ১১টি ইউনিট।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, গুলিস্তানে বিস্ফোরণের ঘটনায় প্রায় অর্ধশত ব্যক্তিকে ঢাকা মেডিকেলে আনা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৪ জনকে মৃত অবস্থায় আনা হয়।

নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে দুজন নারী ও ১৩ জন পুরুষ। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি।

Continue Reading