Connect with us

রাজনীতি

কারাগারে থেকেই এলএলএম শেষ করলেন রিজভী

Avatar photo

Published

on

কারাগারে বসেই এলএলএম (মাস্টার্স) পরীক্ষা শেষ করলেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শেষ পরীক্ষায় বসেন তিনি। আজকে দিয়ে মোট তিনটি পরীক্ষা কারাগারে দিলেন রিজভী। আজকেই তার ভাইভা (মৌখিক) পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

এর আগে পল্টন থানার মামলায় কারাবন্দি রুহুল কবির রিজভী গত ৪ জানুয়ারি পরীক্ষার অনুমতি দেন আদালত।

ওইদিন রিজভীর আইনজীবী কারাবিধি অনুসারে পরীক্ষার অনুমতির জন্য আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত তা মঞ্জুর করেন। রিজভীর পক্ষে আদালতে শুনানি করেন আইনজীবী সৈয়দ জয়নুল আবেদীন মেসবাহ। তাকে সহযোগিতা করেন আইনজীবী শেখ শাকিল আহম্মেদ রিপন।

রিজভীর আইনজীবীরা জানান, রিজভী নিজেও একজন আইনজীবী। তিনি এলএলবি পাশ করে আইন পেশায় যুক্ত আছেন। অধিকতর শিক্ষার জন্য তিনি এলএলএম (মাস্টার্স) করছেন।

জাসাসের কেন্দ্রীয় নেতা সৈয়দ আশরাফুল মজিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ হল ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ জানান, রাজধানীর বেসরকারি প্রাইম ইউনিভার্সিটি থেকে এলএলএম (মাস্টার্স) করছেন বিএনপির অন্যতম শীর্ষ নেতা রুহুল কবির রিজভী। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রাইম ইউনিভার্সিটির দুইজন শিক্ষক প্রয়োজনীয় অনুষঙ্গ নিয়ে কেরাণীগঞ্জের কারাগারে যান। পরে তারা রিজভীর লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ করেন।

এদিকে রিজভীর শরীর খুব একটা ভালো যাচ্ছে না বলে পরিবার জানিয়েছে। রিজভীর সহধর্মিণী আঞ্জুমান আরা বানু জানান, এমনিতেই তার স্বামীর ঠান্ডাজনিত সমস্যা রয়েছে। কারাগারে সেই সমস্যা আরো বেড়েছে। এরমধ্যেও তাকে নিয়মিত আদালতে আনা নেয়া করা হচ্ছে। ফলে শারীরিক জটিলতার আশঙ্কা রয়েছে। এমতাবস্থায় তিনি অবিলম্বে রিজভীর উন্নত চিকিৎসা ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবি করেন।

উল্লেখ্য যে, গত ১০ ডিসেম্বর বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশকে ঘিরে ৭ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দলের নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। ওইদিনই বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে প্রায় সাড়ে চারশতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়। সেদিন রুহুল কবির রিজভীকেও আটক করে কারাগারে নেয়া হয়।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Highlights

হেফাজত ও সরকার পরস্পরকে নিয়ে ‘স্বস্তিতে’ থাকার উপায় খুঁজছে

Avatar photo

Published

on

বাংলাদেশের কওমি মাদ্রাসা ভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের সাথে সরকারের সম্পর্ক কোন দিকে যাচ্ছে তা নিয়ে নতুন করে আলোচনা হচ্ছে রাজনৈতিক অঙ্গনে।

হেফাজতে ইসলামের নেতাদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাগুলো প্রত্যাহার ও আটক নেতাদের মুক্তির বিষয়ে সরকার ইতিবাচক মনোভাব দেখাচ্ছে। তবে সংগঠনটির নেতা মামুনুল হকের বিষয়ে সরকারের দিক থেকে এখনো তীব্র আপত্তি আছে।

সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর এসেছে রাজনীতিতে না জড়ানোর বিষয়ে সংগঠনটি সরকারকে ‘মুচলেকা’ দিয়েছে।যদিও সংগঠনটির মহাসচিব সংবাদ মাধ্যমে বিবৃতি দিয়ে দাবি করেছেন তারা সরকারকে কোনো বিষয়ে কোনো ‘মুচলেকা’ দেননি।

তবে গত মাসে সংগঠনটির একটি প্রতিনিধি দল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাতের পর এর সংগঠনটির যেসব নেতাকর্মী বিভিন্ন মামলায় আটক আছে তাদের মুক্তির প্রক্রিয়া শুরুর আশা করছে সংগঠনটি। একে হেফাজতের প্রতি সরকারের নমনীয় মনোভাব হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

এর মধ্যেই গণমাধ্যমের খবর এসেছে যে নেতা কর্মীদের মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের শর্তে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সরকারকে ‘বিব্রত না করার অঙ্গীকার’ করেছে সংগঠনটির নেতারা।

অন্যদিকে সামনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য রাজনৈতিক পরিবেশ ‘ঠিকঠাক’ করার অংশ হিসেবে রাজনৈতিক শক্তিগুলোর পাশাপাশি ধর্মভিত্তিক সংগঠনগুলোকেও নিজেদের দিকে টানা বা রাখার কৌশল হিসেবেই হেফাজতের প্রতি সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি কিছুটা নরম হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে।

হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর ইদ্রিস বিবিসি বাংলাকে বলেছে তারা সরকারকে কোনো বিষয়ে মুচলেকা দেননি তবে রাজনীতিতে না জড়ানোর বিষয়ে হেফাজতের আগের সিদ্ধান্তই বহাল আছে যে সংগঠনটি দলীয় রাজনীতি থেকে দূরে থাকবে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শাজাহান খান বলছেন আগে ভুল করে হেফাজত ‘বিএনপির ফাঁদে পা’ দিয়েছিলো এবং পরে সেই ভুল তারা বুঝতে পেরেছে।

আর প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া বলছেন যে সরকার প্রধান হিসেবে প্রধানমন্ত্রী সবার কথা শুনেন এবং হেফাজতে ইসলামের নেতাদের কথাও শুনেছেন।

২০১৩ সালে শাপলা চত্বরে এক সমাবেশের মাধ্যমে আলোচনায় এসেছিলো হেফাজতে ইসলাম। এরপর সংগঠনটি কোনো কোনো ইস্যুতে সরকারের অবস্থানের বিপক্ষে গেলেও শেষ পর্যন্ত সরকারের সাথে আলোচনায় এসে বিভিন্ন দাবি আদায় করেছে।

তবে ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে সংগঠনটির একজন নেতা মামুনুল হকের ভূমিকা দেশজুড়ে আলোচনার জন্ম দিয়েছিলো। পরে তিনি ভিন্ন অভিযোগে আটক হয়ে এখন জেলে। অন্যদিকে আরও কিছু ঘটনায় মামলার আসামি হয়ে আটক হয়েছেন এর কমপক্ষে পনের জন নেতা।

আড়াইশর বেশি মামলাও আছে সংগঠনটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। হেফাজত ইসলামের নেতারা বহুবার এসব মামলা তুলে নিয়ে আটক নেতাদের মুক্তির আর্জি জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছিলেন।

এমনকি সরকারকে বিব্রত না করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে একটি চিঠিও দিয়েছিলেন তারা। কিন্তু তারপরেও সুনির্দিষ্ট কয়েকজন নেতা ও তাদের মামলার বিষয়ে সরকারের কঠোর মনোভাবে পরিবর্তন আসছিলো না।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সাথে কথা বলে যে ধারনা পাওয়া গেছে সেটি হলো নির্বাচনের আগে বিএনপি তাদের বিভিন্ন দাবিতে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করার চেষ্টা করতে পারে বলে তারা মনে করছেন।

সে কারণেই বিএনপি ও জামাতসহ তাদের ঘনিষ্ঠ সংগঠনগুলো ব্যতিরেকে বাকীদের হয় আওয়ামী লীগের দিকে নিয়ে আসা নয়তো নিরপেক্ষ ভূমিকায় দেখতে চাইছে সরকার।

যেহেতু হেফাজতে ইসলামের মধ্যে কিছু ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলের নেতা আছেন এবং তারা বিএনপির দিকে ঝুঁকতে পারেন বলে অনেকে মনে করেন সেই প্রেক্ষাপটে সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের কাছ থেকে আগেই নিশ্চয়তা চায় সরকার যে সংগঠনটি কোনো রাজনৈতিক ইস্যুতে ব্যবহৃত হবে না।

ইতোমধ্যে সংগঠনটির দাবি মেনে সরকার এবারো বিশ্ব ইজতেমায় মাওলানা সা’দ কান্দালভীকে আসার অনুমতি দেয়নি। আবার তাদের কয়েকজন নেতাকর্মী মুক্তিও পেয়েছেন, যারা বিভিন্ন অভিযোগে আটক হয়ে জেলে ছিলেন।

সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক মীর ইদ্রিস বলছেন তারা গত সতেরই ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাত করে নেতাদের মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহার সহ বেশ কিছু দাবি তুলে ধরেছেন।

“আমরা দাবিগুলো তুলেছি। মামলাগুলো নিয়ে কাজ চলছে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে আবারো কথা হবে। কিন্তু আমরা কোথাও কোনো মুচলেকা দেইনি। মুচলেকা দেয়ার তো কিছু নেই কারণ হেফাজতে ইসলাম তো রাজনৈতিক দল না। এখানে যারা রাজনৈতিক নেতা তাদের নিজস্ব আলাদা দল আছে,” বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন তিনি।

মূলত ওই বৈঠকের পর থেকেই সরকারের সঙ্গে হেফাজতের সমঝোতা ও রাজনৈতিক কোনো ইস্যুতে না জড়ানোর বিষয়ে মুচলেকা দেয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ে।

যদিও সংগঠনটির একটি সূত্র জানিয়েছে হেফাজত নেতাদের মধ্যে মামুনুল হকের বিষয়ে সরকারের তীব্র আপত্তি আছে কারণ তিনি দেশের বিভিন্ন জায়গায় ওয়াজ করার নামে সরকার বিরোধী প্রচারণা চালিয়েছে বলে সরকার মনে করছে।

এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে হেফাজত নেতাদের বৈঠকগুলোতেও মিস্টার হকের বিষয়ে কোনো ছাড় না দেয়ার ইঙ্গিত দেয়া হয়েছিলো।

এ কারণেই এখন সংগঠনটির পক্ষ থেকে সরকারকে আশ্বস্ত করা হচ্ছে যে এর কোনো নেতা সরকার বিরোধী প্রচারণা বা রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে হেফাজতকে ব্যবহার করবে না।

আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য শাজাহান খান বিবিসি বাংলাকে বলছেন অরাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে হেফাজতে ইসলাম তাদের পরিমণ্ডলে কাজ করবে এটাই স্বাভাবিক এবং তারা তাদের যৌক্তিক দাবী দাওয়া প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরলে সরকার সেগুলো বিচার বিশ্লেষণ করে পদক্ষেপ নিতেই পারে।

তাছাড়া সামনে নির্বাচন আসছে এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এখনি নির্বাচনের বিষয়ে কথা বলছে। সে কারণে নির্বাচনের জন্য পরিবেশ তৈরির পাশাপাশি ধর্মভিত্তিক সংগঠনগুলো যেন বিরোধীদের দিকে হেলে না পড়ে সেজন্য সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে বলেও মনে করেন অনেকে।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া বিবিসি বাংলাকে বলছেন সামনে নির্বাচনে সব দল নির্বাচনে আসবে এবং সরকার সেজন্য নির্বাচন কমিশনকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।

পাশাপাশি অরাজনৈতিক সংগঠনগুলোও প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলছেন এবং হেফাজতসহ যে কারও আইনসিদ্ধ প্রস্তাবগুলোর প্রতি সরকার সবসময়ই ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করবে।

তবে হেফাজতে ইসলামিতে বিভিন্ন সময়ে সক্রিয় ছিলেন এমন একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন যে গত প্রায় দু বছর ধরেই সংগঠনটি সরকারের নিয়ন্ত্রণেই আছে। বিশেষ করে এর সাবেক আমির জুনায়েদ বাবুনগরীর মৃত্যুর পর সংগঠনটির ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ শক্ত হয় বলে এর নেতাদের অনেকে বলেছেন।

এখন নির্বাচনের বছরে এসে সরকার ও হেফাজতে ইসলাম- উভয়েই নিজেদের মধ্যকার বিরোধের জায়গাগুলো নিষ্পত্তি করে আরও স্বস্তিতে থাকতে চাইছে বলে মনে করছেন তাদের কেউ কেউ।

হেফাজত নেতা মীর ইদ্রিস বলছেন প্রধানমন্ত্রীর সাথে বৈঠকের পর চলতি মাসের মাঝামাঝি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে আবারো বৈঠক করেছেন তারা।

“মামলাগুলোর বিষয়ে তথ্য আমরা সংগ্রহ করছি। এরপর আবার আলোচনা হবে,” বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন তিনি।

-বিবিসি বাংলা

Continue Reading

রাজনীতি

বিএনপি হচ্ছে সাপ, সুযোগ পেলেই ছোবল মারবে: তথ্যমন্ত্রী

Avatar photo

Published

on

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি হচ্ছে সাপ। যখনি সুযোগ পাবে ছোবল মারবে।

নির্বাচন পর্যন্ত নেতাকর্মীদের সতর্ক অবস্থানে থাকার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, শেখ হাসিনাকে আবারও নির্বাচিত করে সরকার গঠন করে তবেই ঘরে ফিরতে হবে।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘বিএনপি, জামায়াতের সন্ত্রাস নৈরাজ্যের প্রতিবাদে শান্তিপূর্ণ অবস্থান কর্মসূচিতে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এসময় তথ্য মন্ত্রী বলেন, বিদেশিরাও এখন র‌্যাব,পুলিশসহ বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে প্রশিক্ষণ দিতে আগ্রহী। মন্ত্রী বলেন, আই এম এফ এর রিপোর্ট অনুযায়ী জিডিপিতে ৩৫ তম অর্থনীতির দেশ পৃথিবীতে ৩১ তম অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, আমাদের দল আজ যে সমাবেশ করছে এবং ঢাকা শহরের বিভিন্ন জায়গায় যে সমাবেশগুলো আমরা করেছি, সেগুলো শান্তি সমাবেশ। আর নয়াপল্টন, প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন জায়গায় বিএনপি যে সমাবেশগুলো করছে সেগুলো হচ্ছে দেশে অশান্তি সৃষ্টি করার লক্ষ্যে সমাবেশ। এই হচ্ছে আমাদের সমাবেশের সঙ্গে তাদের সমাবেশের পার্থক্য।

তিনি আরও বলেন, তারা দেশে অশান্তি সৃষ্টি করতে চায়। কিন্তু অশান্তি সৃষ্টির অপচেষ্টা চালিয়ে আর বিদেশিদের পদলেহন করে কোনো লাভ হয়নি। আমাদের নেতা-কর্মীরা সবসময় সতর্ক পাহারায়, সতর্ক অবস্থানে থেকে শান্তি সমাবেশ করার কারণে বিএনপি দেশে, ঢাকা শহরে অপচেষ্টা চালালেও অশান্তি সৃষ্টি করতে পারেনি।

ড. হাছান বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী সফরে এসে বলেছেন, বাংলাদেশের পরিস্থিতি অনেক ভালো হয়েছে এবং র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবিসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রশিক্ষণ দিতে চায়, সহায়তা করতে চায়। এটি হচ্ছে তাদের সর্বশেষ ঘোষণা। সুতরাং বিদেশিদের পদলেহন করে বিএনপির কোনো লাভ হয়নি। আর আজ বিএনপি ৫৪ দল মিলে সমাবেশ করেছে, প্রেসক্লাবের সামনে ১২ দল না ১৪ দল মিলে মঞ্চে ২৪ জন আর সামনে ছিল ১০ জন। আরো কয়েক জায়গায় বিএনপি সমাবেশ করেছে- দল হচ্ছে ১৪টা, মানুষ একশ এর বেশি নাই।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি বলেছিল সরকার পদ্মা সেতু করতে পারবে না। এখন তারা গোপনে পদ্মা সেতু দিয়ে ওপারে যায় আর ওপারে গিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে বক্তৃতা করে। করোনার টিকার বিরুদ্ধেও বিএনপি অপবাদ দিয়েছিল। পরে নেতারা গোপনে টিকা নিয়েছে। মেট্রোরেল চালু হওয়ায় সমগ্র বাংলাদেশ খুশি কিন্তু বিএনপি খুশি না। এখন আমরা অপেক্ষায় আছি কখন আপনারা মেট্রোরেলে চড়বেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমি কাগজে দেখলাম মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আর মির্জা আব্বাস হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। আমি তাদের রোগ মুক্তি কামনা করি। মির্জা ফখরুল, গয়েশ্বর বাবু আর মির্জা আব্বাসসহ নেতাদের জন্য আমরা করোনার এক্সট্রা ডোজ রেখেছি। আপনাদের দরকার হলে এক্সট্রা ডোজ নেন। আপনারা সুস্থ থাকুন, সরকারের বিরোধিতা করুন। কিন্তু দয়া করে দেশে অশান্তি সৃষ্টি করার অপচেষ্টা চালাবেন না। তাহলে দেশের মানুষ অতীতের মতোই আপনাদের প্রতিহত করবে। আর নির্বাচনে আসুন। নির্বাচনে না এলে অন্য কতগুলো দলের মতো আপনারাও হাওয়ায় মিলিয়ে যাবেন।

Continue Reading

Highlights

সহস্রাধিক নেতাকর্মী হত্যা করেও আন্দোলন দমাতে পারেনি আ.লীগ : ফখরুল

Avatar photo

Published

on

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বর্তমান ফ্যাসিস্ট সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে বিএনপির প্রায় ৪০ লাখ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়েছে। ৬০০ নেতাকর্মীকে গুম করেছে। সহস্রাধিক নেতাকর্মীকে হত্যা করেছে। এখনো কয়েক হাজার নেতাকর্মী জেলে আছেন।

শনিবার বিকালে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় নিহত তিন নেতার পরিবারের হাতে আর্থিক সহায়তা তুলে দেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল বলেন, অনেক শীর্ষ নেতাও জেলে আছেন। কিন্তু কারো মধ্যে হতাশা দেখিনি, সবাই উজ্জীবিত। এমন অবস্থার পরও আমরা কেউ পিছিয়ে নেই। আরও উজ্জীবিত হয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। যত অত্যাচার আসুক, নির্যাতন-নিপীড়ন আসুক আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বর্তমান ভয়াবহ দানব সরকারকে পরাজিত করব। সত্যিকার অর্থে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করব।

৭ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে সংঘর্ষের ঘটনায় নিহত হন পল্লবী থানার ৫ নম্বর ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেক দলের যুগ্ম সম্পাদক মকবুল হোসেন। তার স্ত্রী হালিমা আক্তার বর্ষা মেয়ে মিথিলা আক্তার মারিয়াকে নিয়ে বক্তব্য দেওয়ার সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন।

এ সময় উপস্থিত নেতাকর্মীরাও আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন। মিথিলা আক্তার বলেন, আমার স্বামী ভালো মানুষ। ঘর থেকে বের হয়ে লাশ হয়ে ফিরেছে। তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা করা হয়েছে। আমি এর বিচার চাই। তবে জানি এই সরকারের সময় আমার স্বামী হত্যার কোনো বিচার পাব না। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে হত্যাকারীদের বিচার করতে হবে।
গত ২৪ ডিসেম্বর গণমিছিলকে কেন্দ্র করে পঞ্চগড়ে সংঘর্ষে নিহত হন বোদা উপজেলা ময়দানদীঘি বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আব্দুর রশিদ আরেফিন। তার স্ত্রী শিরিন আক্তার ছেলে মোহাম্মদ আব্দুল আল মাহিকে দেখিয়ে বলেন, এতটুকু ছেলেকে যারা এতিম করেছে এর বিচার চাই।

গুলিতে নিহত বাগেরহাট জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম ভূইয়া তানুর স্ত্রী কানিজ ফাতেমা বলেন, আমার স্বামী আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীদের বর্বরতার শিকার। বাসা থেকে ডেকে নিয়ে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ মামলার বাদী আমি নিজেই। তাই ঘর থেকে বের হতে এখন ভয় পাই। ছেলের শোকে আমার শ্বশুর মারা গেছেন, শাশুড়িও অনেক অসুস্থ। বিএনপি ক্ষমতায় আসলে আমার স্বামীর সুষ্ঠু বিচার যেন আমি পাই। এ সময় সঙ্গে তার মেয়ে তানজিনা তাশমিও ছিলেন।

তাদের বক্তব্যের সময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ উপস্থিত নেতাদেরও কাঁদতে দেখা যায়। মির্জা ফখরুল বলেন, যারা প্রাণ দিয়েছেন তারা একটি আদর্শ ও লক্ষের জন্য প্রাণ দিয়েছেন। নিজের দেশকে মুক্ত ও একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য তারা প্রাণ দিয়েছেন। গত ২২ আগস্ট থেকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন শুরু করেছি। এখন পর্যন্ত আমাদের ১৫ জন ভাই শহিদ হয়েছেন। তারা পুলিশের গুলিতে ও আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীদের হামলায় শহিদ হয়েছেন।

এই ভয়াবহ ফ্যাসিবাদী অনির্বাচিত সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য অত্যাচার-নির্যাতন-নিপীড়ন চালিয়ে যাচ্ছে। তারা বীরের মতো শহিদ হয়েছেন। কেউ পেছনে পালাতে গিয়ে নিহত হননি, শহিদ হননি। তারা বুক পেতে দিয়ে চলে গেছেন। তারা দেশের জন্য যে আত্মত্যাগ করে গেছেন তা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। এর মধ্যে দিয়ে আমাদের নেতাকর্মীরা আরও ত্যাগ স্বীকারের জন্য শপথ গ্রহণ করেছেন।

তিনি বলেন, যুগে যুগে বড় কিছু অর্জন করতে গেলে এই আত্মত্যাগ করতে হয়। একাত্তরে আমরা যুদ্ধ করেছিলাম তখন লাখ লাখ মানুষ প্রাণ দিয়েছেন। তখন অনেক পরিবার অসহায় হয়ে পড়েছিল। আজকেও একটা দানবীয় শক্তি আমাদের সব অর্জনগুলোকে ধ্বংস করে দিয়েছে। আমরা কেউ শান্তিতে নেই। এ দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা, দেশের মানুষ যাকে মা বলে ডাকেন সেই নেত্রী খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে মিখ্যা মামলা দিয়ে বছরের পর বছর বন্দি করে রেখেছে। যারা কথায় উজ্জীবিত হয়ে নতুন সংগ্রাম শুরু করেছি, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে নেমেছি, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান আজকে সুদুর ৮ হাজার মাইল দূরে অবস্থান করছেন। এই গণতান্ত্রিক আন্দোলকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য প্রতিমুহূর্তে তিনি কাজ করছেন।

এ সময় গুম-খুন ও নির্যাতনের শিকার প্রতিটি নেতার পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে ধন্যবাদ জানান বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, প্রতিটি পরিবারের পাশে বিএনপি সব সময় পাশে থাকবে।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্সের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, চেয়ারপার্সন উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু, পঞ্চগড় জেলার সদস্য সচিব ফরহাদ হোসেন আজাদ, ঢাকা মহানগর উত্তরের সদস্য সচিব আমিনুল হক, বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এবিএম আবদুস সাত্তার, বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি এসএম জিলানী, সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহসান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসিন আলী প্রমুখ।

Continue Reading