Connect with us

ঝিনাইদহ

কালীগঞ্জে চাপালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চোঁখ থাকে উপরের দিকে!

Avatar photo

Published

on

school-pic-jhenaidahমনিরুজ্জামানর সুমন, ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার চাপালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটি চরম ঝুকি নিয়ে দাড়িয়ে আছে। যে কোন সময় ভবনের ছাদ ধ্বসে পড়ে ব্যাপক প্রানহানীর আশংকা রয়েছে। আর ভবনের ছাঁদ ঠেকাতে দেওয়া হয়েছে বাঁশের ঠেকনো।
সরেজমিনে দেখা গেছে, স্কুল ভবনের বিমগুলোতে এতোটাই ফাঁটল ধরেছে যে, সেগুলো যে কোনো সময় ধসে পড়তে পারে। প্রানহানীর আশংকার পরও অত্যান্ত ঝুঁকিপূর্ণ বাঁশের ঠেকনোর নিচে বসে ক্লাস করছে শিশুরা।
শিক্ষকরা বলছেন, উপায় না পেয়ে তারা ঝুঁকির মধ্যে ক্লাস নিতে বাধ্য হচ্ছেন। তবে তাদের চোখ থাকে উপরের দিকে। ক্লাস নেন আর ফাঁকে ফাঁকে উপরের দিকে চেয়ে দেখেন।
শিক্ষকরা জানান, তিনটি শ্রেণীকক্ষ রয়েছে বিদ্যালয়টিতে। আর একটি কক্ষে দাপ্তরিক কাজ করা হয়।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কমল কান্ত মজুমদার জানান, ১৯৭২ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। বে-সরকারি রেজিষ্ট্রার প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে দীর্ঘদিন শিশুদের পাঠদান চলছিল। ২০১৩ সালে বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ করা হয়।
তিনি আরো জানান, বর্তমানে ১৩৯ জন শিক্ষার্থী এই বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করছে। ৫ জন শিক্ষক নিয়মিত পাঠদান করে যাচ্ছেন। বিদ্যালয়টি সমাপনি পরীক্ষায় ভালো ফল করেছে। প্রতিবছরই শতভাগ পাশের পাশাপাশি ২/৩ জন করে ছাত্র-ছাত্রী বৃত্তির তালিকায় স্থান করে নিচ্ছে।
এই অবস্থায় তাদের বর্তমানে বড় সমস্যা বিদ্যালয় ভবন। যা এতোটাই ঝুঁকিপূর্ণ যে ছোট ছোট শিশুদের এই ভবনের নিচে বসিয়ে ক্লাস নিতে তারা ভয় পাচ্ছেন।
প্রধান শিক্ষক কমল কান্ত মজুমদার আরো জানান, দীর্ঘদিন টিনের চালায় প্রতিষ্ঠানটি চলে আসলেও ১৯৯৪ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর একটি ভবন নির্মান করে দেন। সেই ভবনেই তারা পাঠদান করে আসছিলেন।
কিন্তুু গত ৩ বছর হলো ভবনের বিমগুলোতে ফাঁটল ধরেছে। ছাদের প্লাষ্টারগুলো ধসে পড়ছে। গোটা ছদ নষ্ট হয়ে গেছে। একটু বৃষ্টি হলেই ছাদ ভেদ করে পানি পড়ে। ভবনের দুইটি বিমে ফাঁটল ধরেছে।
বিদ্যালয়ের শিক্ষক হারুন-অর রশীদ জানান, বেশ কয়েকবার তারা লিখিতভাবে বিষয়টি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে অবহিত করেছেন।
২ বছর হতে চললো এলজিইডি’র উপজেলা প্রকৌশলীরা এসে পরীক্ষা করে ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষনা দিয়েছেন। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় ঝুকিপুর্ন এই ভবনেই কাজ চালানো হচ্ছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সালমা খাতুন জানান, কালীগঞ্জ উপজেলায় এ জাতীয় কয়েকটি বিদ্যালয় ভবন আছে যা ঝুঁকিপূর্ণ।
তবে তার মধ্যে চাপালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। তারা ইতোমধ্যে ৫ টি প্রতিষ্ঠানের নতুন ভবন জরুরী বলে অধিদপ্তরে প্রস্তাব পাঠিয়েছেন। আশা করছেন দ্রুত এই সমস্যার সমাধান হবে।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কৃষি সংবাদ

শৈলকুপায় মরে যাচ্ছে শতশত বিঘা জমির পেঁয়াজ

Avatar photo

Published

on

পেঁয়াজ চাষী ইসলাম সর্দ্দার। প্রতিবছরের মত এবারও লাগিয়েছেন পেঁয়াজ। তবে এবারের অভিজ্ঞতাটা একটু ভিন্ন। পেঁয়াজ লাগাতে এনজিও থেকে নিয়েছেন লোন, বিক্রি করেছেন গোয়ালের গরু, রেখেছেন জমি বন্দক। যার সমস্ত টাকা দিয়ে কিনেছেন লাল তীর কিং নামে পেঁয়াজের বীজ। ১০ কেজি বীজ কিনতে খরচ হয়েছে ৫০ হাজার টাকা। সবই ঠিক ছিল। বীজ থেকে চারা হওয়ার পর তা লাগিয়েছিলেন জমিতে। তবে বিধি বাম। সপ্তাহ যেতে না যেতেই পেঁয়াজের গোড়ায় শেকড় না গজানো ও মাথা শুকিয়ে যাওয়ায় মরে যাচ্ছে পেঁয়াজ গাছ। এমন অবস্থার পর বুঝতে পারলেন এটা লাল তীর কিং বীজ না। ব্যবসায়ীদের পাল্লায় পড়ে ভারতীয় চারা, লাল তীর কিং ভেবে লাগিয়েছেন। এমন অবস্থা শুধু ইসলাম সর্দ্দারেরই না। ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলা জুড়ে থাকা প্রায় ৫শতাধিক পেঁয়াজ চাষীর অবস্থা এমন।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, ব্যবসায়ীদের পাল্লায় পড়ে নিম্নমানের ভারতীয় পেঁয়াজের বীজ কিনেই তাঁরা মহা বিপাকে পড়েছেন। এতে চাষিদের বিঘা প্রতি ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা ইতোমধ্যে খরচ হয়েছে। তবে কৃষি অফিস বলছে, আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় মরে যাচ্ছে পেয়াঁজ। শৈলকুপা উপজেলায় প্রায় এক হাজার হেক্টর জমির পেঁয়াজ নষ্ট হয়েছে। চাষের সময়ও পার হয়ে গেছে। এখন নতুন করে চারা তৈরি করে চাষ সম্ভব নয়। এঘটনার পর থেকে প্রতারক বীজ ব্যসায়ীরা পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

উপজেলার ধলহরাচন্দ্র, পাইকেনপাড়া, ধাওড়া, শিতালী, চরধলহরা, পাইকপাড়া, সাধুহাটি, মালিথীয়া সহ বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা যায়, জমিতে পেঁয়াজের চারা মরে মাটির সঙ্গে মিশে আছে। কোনো কোনো খেতের পেঁয়াজের চারায় শেকড় গজায় নি। যেখানে পেঁয়াজ লাগানোর কয়েকদিনের মধ্যেই পেঁয়াজের চারা সোজা হয়ে ওঠার কথা। সেখানে শেকড় না গজানোয় চারা সোজা হতে না পেরে লাল হয়ে মরে যাচ্ছে। উপজেলার চরমালিথীয়া গ্রামের নাসির উদ্দীন বলেন, ৯০ শতক জমিতে লাল তীর ভেবে করে প্রতি কেজি পাঁচ হাজার টাকা দরে ২ কেজি পেঁয়াজ বীজ কিনে বপন করি। চারা একটু বড় হলে সেগুলো মাঠে লাগানোর কিছুদিনের মাথায় লাল হয়ে মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। এখন মনে হচ্ছে এগুলো লাল তীর কিং বীজ না। প্রতারক ব্যবসায়ীরা এগুলো লাল তীর কিং বীজ বলে বিক্রি করেছেন। আসলে এগুলো ভারতীয় বীজ। পাইকপাড়া গ্রামের চাষী রেজাউল ইসলাম বলেন, লোন করে লাল তীর ভেবে ৫ হাজার টাকা কেজি দরে দানা কিনেছি। চারা গজানোর পর তা লাগানোর কিছুদিনের মধ্যেই মরে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে অনেক টাকা খরচ করে ফেলেছি। ভেবেছিলাম পেঁয়াজ বিক্রি করে ঋণ পরিশোধ করব। এখন সংসার চালানো কঠিন হয়ে গেল।

পেঁয়াজের বীজ বিক্রেতা উপজেলার ধাওড়া গ্রামের জিলানী বলেন, পেঁয়াজের দানা কিনে আমরা বিক্রি করি। এবার কী কারণে এমন হলো, তা বলতে পারব না। এমন তো হওয়ার কথা না। এমন ঘটনার পর রবিবার ক্ষতিগ্রস্ত পেঁয়াজ চাষিরা প্রতারক বীজ ব্যবসায়ীদের শাস্তি ও ক্ষতিপুরনের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে। শৈলকুপা থানা ও উপজেলা কৃষি অফিসের সামনে ক্ষতিগ্রস্ত শতাধিক চাষি বিক্ষোভ করে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আনিসউজ্জামান খান বলেন, কিছু অসাধু পেঁয়াজ বীজ ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন জায়গা থেকে নিম্নমানের বীজ কিনে এনে তা কৃষকেদের কাছে বিক্রি করেছে। ফলে পেঁয়াজের চারা জমিতে লাগানোর কয়েকদিনের মধ্যেই মরে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে আমার বীজ ব্যবসায়ী শৈলকুপার পাইকপাড়া গ্রামের আশরাফুল ইসলামের লিফলেট সংগ্রহ করেছি। অতিদ্রুতই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, দেশের মধ্যে শৈলকুপা উপজেলা অন্যতম পেঁয়াজ উৎপাদনকারি এলাকা। ইতোমধ্যে প্রায় ৯ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ চাষ করা হয়েছে।

Continue Reading

খুলনা বিভাগ

ঝিনাইদহে পৃথক মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ৩

Avatar photo

Published

on

ঝিনাইদহে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। শনিবার (১৪ জানুয়ারি) সকালে সদর উপজেলার কয়ারগাছি ও শৈলকুপা উপজেলার মুড়োতলা এলাকায় দুর্ঘটনাগুলো ঘটে।

নিহতরা হলেন- কালীগঞ্জ উপজেলার ষাটবাড়িয়া মনোহরপুর গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে শাকিল হোসেন (২২), একই গ্রামের মিতুল বিশ্বাসের ছেলে রাকিব হোসেন রকি (২১) ও শৈলকুপা উপজেলার পদমদী গ্রামের সোহরাব বিশ্বাসের ছেলে তুষার বিশ্বাস ( ৩৫)।

বারোবাজার হাইওয়ে থানার ওসি মঞ্জুরুল আলম জানান, সকালে ৮টার দিকে শাকিল হোসেন ও রাকিব হোসেন রকি কালীগঞ্জ উপজেলার ষাটবাড়িয়া মনোহরপুর গ্রাম থেকে মোটরসাইকেলে ঝিনাইদহ শহরে যাচ্ছিলেন। পথে ঝিনাইদহ ও যশোর মহাসড়কের কয়ারগাছি এলাকায় পৌঁছালে বিপরীতদিক থেকে আসা ইটবোঝা একটি ট্রাক তাদের মোটরসাইকেলটিতে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই দুজনই নিহত হন।

এদিকে, শৈলকুপা থানার ওসি মো. আমিনুল ইসলাম জানান, সকালে ১০টার দিকে তুষার শৈলকুপা থেকে পদমদী গ্রামে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। পথে উপজেলার মুড়োতলা এলাকায় পৌঁছালে ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া একটি বাসের তার মোটরসাইকেলকে চাপা দিলে তুষার বিশ্বাস গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

Continue Reading

ঝিনাইদহ

আবারও বিয়ে করলো কৌতুক সম্রাট টুকু

Avatar photo

Published

on

 

 

রাজকুমার রিজভী ইয়ামিন-ঝিনাইদহ।

আবারও বিয়ে করলো কৌতুক সম্রাট টুকু তবে এই বিয়েতে তার কোন হাত নেই এমনই এক কৌতুক নিয়ে ভক্তদের সামনে হাজির হয়েছে ঝিনাইদহের কৌতুক সম্রাট হুমায়ন টুকু। তার নিজেরই রচনায় কাজী পিকুর পরিচালনায়। এপেক্স মাল্টিমিডিয়ার সহযোগিতায় পি কে মাল্টিমিডিয়ার প্রযোজনায় রিলিজ হয়েছে ভিডিওটি। টুকুর সাক্ষাৎকার এ তিনি বলেন – অনেক মজা ও আনন্দের সাথে তিনি কাজটি করেছেন। ভক্তরাও অনেক আনন্দ পাবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। ইতিমধ্যে ভক্তদের অনেক সারা পেয়েছেন বলেও জানিয়েছেন পরিচালক কাজী পিকু।

Continue Reading