Connect with us

দিনাজপুর

ঘোড়াঘাটে কৃষক ‘‘মাঠ দিবস-২০১৬’’ অনুষ্ঠিত

Avatar photo

Published

on

Ghoraghat News  29.01

শাহ্ আলম মন্ডল, ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার কাশিয়াতলা (শীতল) গ্রামে ২৯ জানুয়ারী, শুক্রবার বেলা ৪টায় ‘ফসল নিবিড়তা ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধিকরণে চার ফসল ভিত্তিক ফসল বিন্যাস উদ্ভাবন’ শীর্ষক মাঠ দিবস- ২০১৬ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, কৃষি গবেষণা কেন্দ্র, বারি, রাজবাড়ি, দিনাজপুর এ মাঠ দিবসের আয়োজন করে।
এ কর্মসূচীর পরিচালক ও সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, বারি, গাজিপুর- এর মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডক্টর আ,সা,ম মাহবুবুর রহমান খাঁন এর সভাপতিত্বে এবং দিনাজপুর কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের সরেজমিন গবেষণা বিভাগের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ নুরুজ্জামান এর সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউট এর মহাপরিচালক ডক্টর মোঃ রফিকুল ইসলাম মন্ডল। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, দিনাজপুর গম গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক ডক্টর মোহাম্মদ হোসেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর দিনাজপুর অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ জুলফিকার হায়দার, সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, বারি, জয়দেবপুর, গাজিপুর- এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডক্টর মোঃ আক্কাস আলী, বোর্ড অব ম্যানেজমেন্ট সদস্য আলহাজ¦ মোঃ খলিলুর রহমান মন্ডল এবং দিনাজপুর কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডক্টর মোঃ মাহফুজ বাজ্জাজ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডক্টর মোঃ রফিকুল ইসলাম মন্ডল বলেন, “বাংলাদেশের মানুষের খাদ্য চাহিদা মিটিয়েও বিভিন্ন ফসল বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে। বর্তমানে বাংলাদেশ কৃষিক্ষেত্রে ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছে। এ সাফল্যের ধারা অব্যহত রাখতে হলে কোন আবাদি জমি ফেলে রাখা যাবেনা। দেশের কৃষি ক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির জন্য চার ফসল ভিত্তিক ফসল বিন্যাস ঘটাতে হবে।” অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ ছাড়াও স্থানীয় কয়েকজন কৃষক প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন।
কাশিয়াতলা (শীতল) গ্রামের কৃষক আবু হোসাইন মোঃ আলী মাসুম এর জমিতে গিয়ে দেখা যায়, ৩ একর ২৫ শতক জমিতে ২ ফসল রোপা আউশ এবং আমন ধান তোলার পরে এখন তিনি মজুরদের নিয়ে রবি শষ্য সরিষা ও আলু তুলছে। কয়েকদিনের মধ্যে চতুর্থ ফসল হিসেবে বোরো ধান রোপন করবেন। অথচ তার জমির আশেপাশে আবাদি জমিগুলো আমন ধান তোলার পরে ফাঁকা পড়ে রয়েছে।
কৃষক আবু হোসাইন মোঃ আলী মাসুম বলেন, “আগে আমার জমিতে বছরে মাত্র দুই বার ধান উৎপাদন করতাম। বাকী সময় জমি ফাঁকা পড়ে থাকতো। কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের সরেজমিন গবেষণা বিভাগের পরামর্শে এখন বছরে চার ফসল আবাদ করছি। অর্থনৈতিকভাবেও আগের তুলনায় দিগুণ আয় বেড়েছে। আমার দেখাদেখি গ্রামের অন্য কৃষকেরাও এখন বছরে চার ফসল উৎপাদনে আগ্রহী হয়েছে।”
দিনাজপুর কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডক্টর মোঃ মাহফুজ বাজ্জাজ জানান, “দিনাজপুরের এ অঞ্চলের আবাদি জমিগুলোতে চার ফসল ভিত্তিক ফসল বিন্যাস উদ্ভাবনের ফসলধারা হচ্ছে- ১. রোপা আউশ ধান (বৈশাখ- আষাঢ়), ২. রোপা আমন ধান (শ্রাবণ- কার্তিক), ৩. রবি শষ্য (কার্তিক- মাঘ) ও ৪. বোরো ধান (মাঘ- বৈশাখ)।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Highlights

দিনাজপুরে মা-ছেলেকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি, সিআইডির ৩ সদস্য আটক

Avatar photo

Published

on

নিউজ ডেস্ক:
রংপুর থেকে দিনাজপুরের চিড়িরবন্দর উপজেলায় গিয়ে এক বাড়ী থেকে দুজনকে অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে সিআইডির (পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ) তিনজন সদস্যকে আটক করে পুলিশী হেফাজতে নেয়া হয়েছে। এর হচ্ছেন সিআইডির একজন সহকারী পুলিশ সুপার, একজন সাব ইন্সপেক্টর ও একজন কনস্টেবল। তাদের বহনকারী গাড়ির চালককেও তাদের সাথে আটক করা হয়েছে।

রংপুরে সিআইডির এসপি আতাউর রহমান বলেন, ওই তিনজন তার কোন অনুমতি ছাড়াই দিনাজপুরে গিয়ে ওই ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে তিনি জেনেছেন। “তারা আমার কোন পারমিশন নেয়নি। নিজেরাই সেখানে গেছে বেসরকারি গাড়ি নিয়ে। এখন দিনাজপুর জেলা পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আছে। তারা যে সিদ্ধান্ত নিবে সে অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেয়া হবে”।

ওদিকে ঢাকায় সিআইডির মুখপাত্র মোঃ আজাদ রহমান বলেন, ঘটনাটি তারা শুনেছেন এবং বিস্তারিত তথ্যের অপেক্ষায় আছেন। আমরা শুনেছি। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে বিভাগীয় যা ব্যবস্থা নেয়ার সেটি করা হবে।

দিনাজপুর ও রংপুরের পুলিশ প্রশাসন সূত্রগুলো জানিয়েছে, চিরিরবন্দর উপজেলা সদরের সোলেমান শাহপাড়ায় সোমবার রাতে নাটকীয় কায়দায় বাড়ী থেকেই মা ও ছেলেকে অপহরণ করে নেয় একদল ব্যক্তি। রাত সাড়ে নয়টার আট/নয় জন একটি মাইক্রোবোস নিয়ে সেখানে যায়। তাদের সাথে ২/৩টি মোটরসাইকেলও ছিলো।

কালো রংয়ের ওই মাইক্রোবাস থেকে নেমে তারা ঘরে ঢুকে মধ্যবয়সী এক নারী ও ছেলেকে তুলে নেয়। বাড়িতে থাকা একটি মোটরসাইকেলও তারা নিয়ে যায়। পরে ওই নারীর স্বামী ও এক আত্মীয়কে ফোন করে তাদের মুক্তির জন্য পনের লাখ টাকা দাবি করা হয়।

এ নিয়ে মঙ্গলবার দিনভর অপহরণকারীদের সাথে তাদের আলোচনা চলে এবং এর মধ্যে ঘটনা সম্পর্কে স্থানীয় পুলিশও অবহিত হয়। পরে আট লাখ টাকা মুক্তিপণ রফা হলে অপহরণকারীদের টাকা নিতে হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় আসতে বলা হয় কিন্তু সেখানে পৌঁছানো মাত্রই তারা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

পরে তাদের ধাওয়া করে দিনাজপুর সদরের দশমাইল নামক স্থান থেকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। চিরিরবন্দর থানার ওসি (ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) সুব্রত কুমার সরকার ঘটনাটি সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

Continue Reading

Highlights

দিনাজপুরে বজ্রপাতের ঘটনায় মোট ৭ জনের মৃত্যু

Avatar photo

Published

on

দিনাজপুরে সদর ও চিরিরবন্দর উপজেলায় বজ্রপাতে শিশু-কিশোরসহ সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় গুরুতর আহত হয়েছে তিন শিশু। মৃতদের মধ্যে তিনজন চিরিরবন্দরের এবং চারজন সদরের। সোমবার (২৩ আগস্ট) বিকেলে এ বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে।

চিরিরবন্দরে মৃতরা হলেন- উপজেলার সুকদেবপুর গুড়িয়াপাড়ার সাইফুল ইসলামের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (২৮), আলতাফ হোসেনের ছেলে আব্বাস আলী (২৫) ও মোকছেদ আলীর ছেলে নুর ইসলাম (২৬)।

চিরিরবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার জানান, বিকেল সাড়ে ৩টায় ওই গ্রামের একটি পুকুরে তিনজন মাছ ধরছিলেন। এসময় বজ্রপাত হলে গুরুতর আহত হন তারা। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

অপরদিকে একই সময় শহরের নিউটাউন এলাকায় বজ্রপাতে চারজনের মৃত্যু হয়। এরা হলো- আপন (১৬), মিম (১০), হাসান (১২) ও সাজ্জাদ (১৩)। আহতরা হলো- মমিনুল (১৬), আতিক (১৬) ও সাজু (১৫)।

আহতদের মধ্যে মমিনুল ও আতিক দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি রয়েছে। হতাহতরা সবাই ৮ নম্বর নিউটাউন ও রেলঘুন্টি এলাকার বাসিন্দা।

কোতোয়ালি থানার ওসি মোজাফ্ফর হোসেন জানান, দুপুর থেকে দিনাজপুর শহরে বৃষ্টি হচ্ছিল। এর মধ্যে কয়েকজন শিশু ও কিশোর ৮ নম্বর নিউটাউনের মাঠে ফুটবল খেলছিল। বৃষ্টি বেড়ে গেলে মাঠের পাশে একটি ছাউনির নিচে আশ্রয় নেয় তারা। এসময় সেই ছাউনির উপর বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলে চারজনের মৃত্যু হয়। আহত হয় তিনজন।

স্থানীয়রা আহত তিনজনকে উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এর মধ্যে দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এদিকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার মাসুদ রানা জানান, বজ্রপাতে মৃতদের মরদেহ হাসপাতালে নিয়ে আসে স্থানীয়রা। এছাড়াও আহত তিনজনকে নিয়ে আসা হয়েছে। এদের মধ্যে দুইজনকে হাসপাতালের আইসিইউ ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

Continue Reading

Highlights

নবাবগঞ্জে করোনা রোগীদের বাড়িতে পুষ্টিকর খাবার দিলেন ইউএনও নাজমুন নাহার

Avatar photo

Published

on


হাসিম উদ্দিন নবাবগঞ্জ দিনাজপুর:
দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে করোনা ভাইরাস(কোভিট-১৯) আক্রান্ত পরিবার গুলোর মাঝে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পবিত্র মাহে রমজানে খাদ্য সমাগ্রী উপহার প্রদান করা হয়েছে ।
উপজেলায় গত ১৪ই এপ্রিল কুশদহ ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামের এক জন ,গোলাপগঞ্জ ইউনিয়নের শাল দিঘিগুচ্ছ গ্রামের একজন ও শালখুরিরার একজন মোট তিন ব্যক্তির শরীরে করোনা শনাক্ত হয় । এর পরেই ঐ তিন পরিবারসহ পাশের আরো ১৩০টি পরিবারকে লকডাউন ঘোষনা করেন উপজেলা প্রশাসন। লকডাউন পরিবার গুলোকে সরকারি সহয়তা ও খাদ্য সমাগ্রী প্রদান করেছেন উপজেলা প্রশাসন। আজ বুধবার বিকালে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যাগে করোনা শনাক্ত পরিবার তিনটির বাড়ীতে পুষ্টিকর খাদ্য উপহার সমাগ্রী পাঠিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ নাজমুন নাহার। উপহার সামগ্রীর মধ্যে ছিল কলা, আপেল, কমলা, গুঁড়া দুধ, সুজি, ডিম, সাবান , খেজুরসহ বিভিন্ন ধরনের শাক ।

Continue Reading