Connect with us

জাতীয়

জিএসপি ফিরে না পেলে তা হবে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র -অর্থমন্ত্রী

Avatar photo

Published

on

SAMSUNG CAMERA PICTURESচাঁদপুর প্রতিনিধি:
আমেরিকায় অগ্রাধিকারমূলক বাজার সুবিধা বা জিএসপি ফিরে পাওয়ার ক্ষেত্রে যে শর্তগুলো ছিল তা ইতিমধ্যে পূরণ করা হয়েছে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত এই সুবিধা ফিরে পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। জিএসপি ফিরে না পেলে এর জন্য একমাত্র রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রই দায়ী থাকবে বলেও মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী। তিনি জানান, জিএসপি সুবিধা বাতিল করলেও বাংলাদেশ সাত বিলিয়ন ডলার রফতানি করে। আমেরিকায় বাংলাদেশের পণ্যের বাজার উন্মুক্ত রয়েছে।
গতকাল দুপুরে চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার হাসিমপুরে ড. মুহাম্মদ মানসুরউদ্দীন মহিলা কলেজের কৃতী ছাত্রী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন। সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, দুর্যোগ ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী (মায়া) বীর বিক্রম, রেলমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান ও কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. গোলাম হোসেন। অর্থমন্ত্রী বলেন, “আমাদের সীমিত স¤পদ চালিকা শক্তি। এখন বৈষম্যের হার হ্রাস পেয়েছে। দারিদ্র্য দূরীকরণের হার ২ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। এ দেশের এলিটরা যদি উদার হন তাহলে দেশকে আরো এগিয়ে নেয়া সম্ভব হবে। এক্ষেত্রে এলিটদের এগিয়ে আসতে হবে।” মন্ত্রী বলেন, “দেশের ৫০ শতাংশ নারী। নারী পেছনে পড়ে থাকলে আমাদের ৫০ শতাংশ পুরুষ কিছুই করতে পারবে না। তাই বর্তমান সরকার নারীর শিক্ষা ও কর্মদক্ষতায় অত্যন্ত মননশীল।” তিনি বলেন, ‘আমাদের বার্ষিক প্রবৃদ্ধি ৬ শতাংশ। এখন চিন্তা করতে হবে, এটিকে কিভাবে ৮ থেকে ১০ শতাংশে উন্নীত করা যায়। এই প্রবৃদ্ধিতে যেতে হলে নারীদের এগিয়ে যেতে হবে।” মুহিত বলেন, “আমাদের সৌভাগ্য, কৃষক-শ্রমিকদের দক্ষতা-পরিশ্রমে দেশ আজ অনেক দূর এগিয়ে গেছে। আমাদের রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করতে হবে।” বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, “সরকারের উন্নয়নের ধারায় গ্রামগুলো এখন শহরে রূপান্তরিত হচ্ছে। আমাদের রফতানি আজকে দাঁড়িয়েছে, ৩০ দশমিক ২ বিলিয়নে। রিজার্ভ ২২ বিলিয়নে। সবদিক থেকেই আমরা পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের তুলনায় এগিয়ে আছি।”
জিএসপি স¤পর্কে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, “অনেক দেশেই আমেরিকায় জিএসপি সুবিধা পায় না। জিএসপি সুবিধার জন্য আমাদের যেসব শর্ত দেয়া হয়েছিল ইতিমধ্যে তার সবগুলোই পূরণ হয়েছে। তাই জিএসপি সুবিধা না পাওয়ার কোনো কারণ নেই। আশা করা হচ্ছে, আমরা শিগগির জিএসপি সুবিধা পাবো।” তিনি বলেন, “আজকে নারী ও তাদের কর্মদক্ষতায় আমরা ভারত থেকে এগিয়ে রয়েছি। জননেত্রী শেখ হাসিনা ২০২১ সালের যেই রূপকল্প ঘোষণা করেছে তা রূপান্তরিত হবেই। আমরা শিক্ষাখাতে এগিয়ে যাচ্ছি। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বাণিজ্যসহ বিভিন্ন সেক্টরে বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।” দুর্যোগ ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী (মায়া) বলেন, “এই সরকারের আমলেই বিনামূল্যে বই দেয়া হয়েছে। শেখ হাসিনার হাত ধরে শিক্ষার প্রচার-প্রসার ঘটছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সুনাম-সুখ্যাতি করেছে।” রেলমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক বলেন, “শিক্ষাক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধু সবচাইতে বড় অবদান রেখেছেন। আর বঙ্গবন্ধুর এই অবদানকে ভালো করে শেখ হাসিনার সরকার এগিয়ে যাচ্ছে। যেখানে নারী শিক্ষার প্রসার ঘটেছে।” শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সেমিনারে প্রবন্ধ পাঠ করেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আহসানুল হক চৌধুরী। বক্তব্য দেন কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন। অনুষ্ঠানে অতিথিবৃরা কৃতি শিক্ষার্থীদের মাঝে বই উপহার তুলে দেন। প্রথিতযশা লোকসাহিত্যিক, লোকগাথা সংগ্রাহক এবং লোকসাহিত্যিক গবেষক মরহুম অধ্যাপক ড. মনসুরউদ্দীনের নামে কচুয়ার হাশিমপুর গ্রামে ২০০৯ সালে ড. মনসুরউদ্দীন মহিলা কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে কলেজটি শতভাগ পাস করে আসছে।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জাতীয়

ঢাকার দক্ষিণ বনশ্রীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ডিএসসিসির অভিযান

Avatar photo

Published

on

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে দক্ষিণ বনশ্রী ও পশ্চিম নন্দীপাড়া সংযোগ সড়ক এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ডিএসসিসি। মঙ্গলবার দুপুরে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়।

অভিযানকালে দক্ষিণ বনশ্রী কে ব্লক ও পশ্চিম নন্দি পাড়া সংযোগ সড়কে অবৈধভাবে দখল করে নির্মিত একটি বাড়ির দেয়াল ও গেট ভেঙে দেয়া হয়। ইফতেখার মাহমুদ নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি রাস্তা দখল করে এই দেয়াল ও গেট নির্মাণ করেছিলেন বলে জানা যায়।

স্থানীয়রা জানায়, দফায় দফায় এই বাড়ির মালিক রাস্তাটি দখল করে দেয়াল ও গেট নির্মাণ করেন। ফলে স্থানীয়দের চলাচলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। তাই সড়কটি দখলমুক্ত করার দাবি দীর্ঘদিনের।

অভিযান প্রসঙ্গে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান জানান, ইতিপূর্বে এখানে অভিযান চালিয়ে দুই বার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলেন তা পুনরায় দখল করে দেয়াল ও গেট নির্মাণ করা হয়। তাই স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে দেয়ালটি জায়গাটি সম্পূর্ণরূপে দখলমুক্ত করতে আজকের এই অভিযান চালানো হয় বলে জানান তিনি।

Continue Reading

Highlights

দেশকে এগিয়ে নেব, এটিই প্রতিজ্ঞা: প্রধানমন্ত্রী

Avatar photo

Published

on

সারা বিশ্বে যুদ্ধ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শান্তি থাকলেই প্রগতি ও উন্নতি আসে। বাঙালি শান্তিতে বিশ্বাস করে। আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই।

তিনি বলেন, শান্তি থাকলেই কিন্তু প্রগতি আসে, উন্নতি হয়, এগিয়ে চলা যায়। সেটিই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য, এভাবেই আমরা এগিয়ে যেতে চাচ্ছি। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাব, এটিই আমাদের প্রতিজ্ঞা।

বুধবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২৪ উদ্‌যাপন উপলক্ষ্যে চার দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, সারাবিশ্বের যুদ্ধ বন্ধ হোক। বন্ধ হোক অস্ত্র প্রতিযোগিতা। এ অস্ত্র প্রতিযোগিতায় যে অর্থ (খরচ করা হচ্ছে), তা মানুষের জ্ঞানবিজ্ঞান, গবেষণা, জলবায়ু পরিবর্তন, নারী ও শিশুর বিকাশ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশের উন্নয়নসহ বিশ্বের উন্নয়নের নানান কাজে ব্যয় হোক।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজ মহান একুশে ফেব্রুয়ারি শহিদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বাঙালি জাতি নিজের মাতৃভাষাকে মর্যাদা দেওয়ার জন্য মহান আত্মত্যাগ করেছে। মাতৃভাষা রক্ষায় যারা আত্মত্যাগ করেছে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। বাঙালি জাতি রক্ত দিয়ে ভাষার মর্যাদা দিয়ে গেছে।

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুমানা আলী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. হাকিম আরিফ।

Continue Reading

Branding

বর্ণ্যাঢ্য আয়োজনে দেশেরপত্রের ১৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

Avatar photo

Published

on

বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হলো বহুল প্রচারিত ‘দৈনিক দেশেরপত্র’র ১৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ‘মানবতার কল্যাণে সত্যের প্রকাশ’ এই স্লোগানকে হৃদয়ে ধারণ করে দৈনিক দেশেরপত্র পত্রিকার ১৫ বছরে পদার্পণ করল।

এ উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে ‘মানবতার কল্যাণে সাংবাদিকতা’ শৗর্ষক এক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর আলোচনা রাখেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিবৃন্দ।

দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি প্যানেলে ছিলেন বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এবং বিএফইউজে এর সভাপতি ওমর ফারুক।
অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন এশিয়ান টিভির চেয়ারম্যান আলহাজ হারুন-উর-রশিদ সিআইপি।

দৈনিক বজ্রশক্তি পত্রিকার সম্পাদক এসএম সামসুল হুদার পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন পিনাকল মিডিয়া লিমিটেড এর চেয়ারম্যান ও হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম। উল্লেখ্য, দৈনিক দেশেরপত্র পিনাকল মিডিয়া লিমিটেড এর একটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান।

প্রধান আলোচক তাঁর বক্তব্যে বলেন- ধর্মের নামে চলা যাবতীয় অধর্মের বিপরীতে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরছে দেশেরপত্র। ধর্মীয় উগ্রবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, ইসলামবিদ্বেষ, নারীবিদ্বেষ, ধর্মব্যবসা, গুজব, ধর্মীয় উন্মাদনা এ সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে সত্যের মশাল হচ্ছে দেশেরপত্র। সত্যের এই মশালকে নিভিয়ে দেয়ার জন্য অনেক প্রতিবন্ধকতাই সৃষ্টি করা হয়েছে কিন্তু কোনো প্রতিবন্ধকতাই দেশেরপত্রকে রুখতে পারেনি আর পারবেও না ইনশাল্লাহ।

সভাপতির বক্তব্যে দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক রূফায়দাহ পন্নী বলেন, দেশেরপত্রের একটি সংখ্যাও যিনি হাতে নিয়েছেন তিনিও নিশ্চয়ই লক্ষ্য করে থাকবেন যে, এই পত্রিকা বিজ্ঞাপন প্রধান নয়, কোনো কর্পোরেশনের স্বার্থ রক্ষা করার জন্য এই পত্রিকার জন্ম হয়নি। এ পত্রিকা কেবল সংবাদ ও কিছু তথ্যের ধারক নয়, এটি একটি আদর্শিক পত্রিকা। আমরা ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য দাঁড়িয়েছি। অন্যায়ের সাথে কখনো আপোস করতে শিখিনি, আপোস করব না ইনশাল্লাহ।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাটি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর সভাপতি কিংবদন্তী গিটারিস্ট এনামুল কবীর, একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত পরিচালক মসিহ উদ্দিন শাকের, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর সাবেক সভাপতি ও যুগবার্তার হেড অব নিউজ রফিকুল ইসলাম সুজন, কালিয়াকৈর প্রোসক্লাবের সভাপতি আউয়ুব রানা প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দৈনিক দেশেরপত্রের সহকারী নির্বাহী সম্পাদক ডা. মাহবুব আলম মাহফুজ, সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক কবি রিয়াদুল হাসান, সিনিয়র রিপোর্টার ফরিদ উদ্দিন রব্বানি প্রমুখ।

Continue Reading