Connect with us

দেশজুড়ে

ঝিনাইগাতীতে ‘কল্পিত অভিযোগে’ মানববন্ধনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

Avatar photo

Published

on

নির্বাচনে সমর্থন না করা, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধসহ বিভিন্ন আক্রোশে অনুসারীদের নিয়ে ‘নাটকীয় মানববন্ধন’ করে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন আকরাম হোসেন নামে এক ব্যাক্তি।

শুক্রবার বিকালে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার ভালুকা গ্রামে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন মৃত আলী আকবরের ছেলে আকরাম হোসেন।

মানববন্ধনের সংবাদ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশ ও বিভিন্ন প্রশাসনিক দপ্তরে কল্পিত অভিযোগ দিয়ে তার পরিবারকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করা হচ্ছে এবং পরিবারের শান্তি বিনষ্ট হচ্ছে বলেও অভিযোগ তার।

৭০ বছর বয়সী বৃদ্ধ আকরাম হোসেনের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে তার ছেলে ফজলুল করিম। তিনি বলেন, গত ২৩ জানুয়ারি পার্শ্ববর্তী ফুলহারি গ্রামের ইউপি সদস্য ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যন মজনু মিয়া কল্পিত অভিযোগ তুলে আমাদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিভিন্ন দপ্তরের অভিযোগ দিয়ে অপপ্রচার করে আসছে। এমনকি পত্রিকায় আমাদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রচার করে আমাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করছে। এছাড়াও মিথ্যা মামলা দায়ের করে আমাদেরকে হয়রানী করছে। এতে আমার ও আমার পরিবারের সদস্যদের সুনাম, শান্তি ভঙ্গের মারাত্মক কারণ হয়ে দাড়িয়েছে।

উল্লেখ্য বিভিন্ন দপ্তরে দেওয়া মজনু মিয়ার অভিযোগ অনুযায়ী- গত ১৫ জানুয়ারি বিকাল ৪টায় ভালুকা গ্রামের জনৈক হাবিবর ও হালিমের বাড়ির সম্মুখে মৃত আঃ জলিলের পুত্র মোঃ মজনু মিয়াকে প্রাণ নাশের হুমকি ও রাম দা এবং চাকু নিয়া মারপিট মিথ্যা হুমকির কথা বলে এবং ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বলে গালাগালি করা, হত্যার হুমকি ইত্যাদি বিষয় নিয়ে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ করেন। অভিযোগেগ আকরাম হোসেনকে ১নং বিবাদী করা হয়েছে। ২নং বিবাদী করা হয় মো. ফজলুল করিম ওরফে ফজল হককে।

মজনু মিয়ার অভিযোগটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত উল্লেখ করে আকরাম হোসেন বলেন, ১৩ থেকে ১৭ জানুয়ারী পর্যন্ত তিনি ঢাকায় বিশ্ব ইজতেমায় ছিলেন। ২নং বিবাদী মোঃ ফজলুল করিম ওরফে ফজল হক ঘটনার পূর্ব থেকেই ঢাকায় অবস্থান করে ব্যবসায় লিপ্ত ছিলেন। ফরহাদ হোসেন ও জিব্রাইলকে ৩/৪ নং বিবাদী করা হয়েছে। মূলত ফরহাদ ও জিব্রাইল মো. মজনু মিয়ার বিরুদ্ধে আনীত একটি মামলার স্বাক্ষী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ আনয়ন করা হয়েছে। ১৫ জানুয়ারিতে বর্ণিত কোনো ঘটনাই ঘটেনি বলে দাবি করেন তিনি। এছাড়াও মজনু মিয়ার অভিযোগ উল্লেখিত চুরি, ডাকাতি, খুন, রাহাজানি, ছিনতাই এবং মুক্তিযোদ্ধাদের গালি দেওয়ার বিষয়টিও সম্পূর্ণ মিথ্যা বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ভালুকা গ্রামের হালিম মিয়া বলেন, আমার বাড়ির সামনে যে ঘটনার কথা মজনু বলছে সেই ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি। তবে তাদের মধ‍্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে দ্বন্দ্ব রয়েছে।

মজনু মিয়া বলেন, আকরাম আমার সাথে দীর্ঘদিন থেকে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝামেলা করে আসছে। তাই তার বিরুদ্ধে আমি মানববন্ধন করতে বাধ্য হয়েছি।

এদিকে মানববন্ধন ও অভিযোগের বিষয়টিকে ‘গ্রাম্য রাজনীতি’ বলে মন্তব্য করেছেন তার পরিবারের সদস্য ও গ্রামবাসীরা। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবিও তাদের।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Highlights

অধিকার আদায়ে শেরপুর প্রেসক্লাবে তালা দিয়ে সাংবাদিকদের অবস্থান কর্মসূচি পালন

Avatar photo

Published

on

শেরপুর প্রতিনিধি:

শেরপুর প্রেসক্লাবের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি বাতিলসহ ৬ দফা দাবী আদায়ের লক্ষে অধিকার বঞ্চিত জেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা শেরপুর প্রেসক্লাবে তালা ঝুলিয়ে অবস্থান ও প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করেছে। পরে পুলিশ প্রশাসনের অনুরোধে উভয়পক্ষ ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপে জেলায় কর্মরত শতাধিক সাংবাদিক প্রথম দিনের অবস্থান কর্মসূচী তুলে নেয়।

কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, পেশাজীবী সংগঠন পেশার মান উন্নয়ন, নিপীড়িত কর্মীদের পাশে দাঁড়ানো, তাদের বিপদে সহযোগিতা এবং পেশায় কর্মরতদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে কাজ করার কথা। কিন্তু প্রেসক্লাবের মত একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান কিছু ব্যক্তির জন্য কুলুষিত হচ্ছে। যা এই শেরপুরের জন্যেও লজ্জাজনক। দেশের প্রথম সারির মিডিয়াতে কাজ করা কিছু সাংবাদিকের বিরুদ্ধে হিংসা বসবত হয়ে কালো তালিকার ঘটনাও ঘটিয়েছে। এছাড়াও বিএনপি জামাত নেতৃবৃন্দের হাত থেকে প্রেসক্লাব মুক্ত করার দাবিও জানান তারা।

এসময় দৈনিক ভোরের চেতনা পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার ও মানবাধিকার সংস্থা আমাদের আইনের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক নূরে আলম চঞ্চলের সঞ্চালনায় কর্মসূচিতে যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার আদিল মাহমুদ উজ্জল, দেশ টিভির জেলা প্রতিনিধি আব্দুর রফিক মজিদ, আনন্দ টিভির জেলা প্রতিনিধি মারুফুর রহমান মারুফ, দেশ রুপান্তর পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি শফিউল আলম সম্রাট, দৈনিক আমাদের নতুন সময় পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি ইসমাইল হোসেন ও দৈনিক কালবেলা পত্রিকায় জেলা প্রতিনিধি তারিকুল ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অপস), শেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বছির আহমেদ বাদল সহ উভয়পক্ষের তিনজন প্রতিনিধি নিয়ে বৈঠক হয়। এসময় শেরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. শরিফুর রহমান, সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম আধার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আদিল মাহমুদ উজ্জাল, মহিউদ্দিন সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক মারুফুর রহমান মারুফ ও বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি নুরে আলম চঞ্চল বৈঠকে বসেন। বৈঠকে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হিসেবে আগামীকাল পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করা হয়। এছাড়াও পরবর্তিতে এ বিষয়ে জেলার শীর্ষ স্থানীয় প্রশাসনিক কর্মকতা ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দদের নিয়ে পরবর্তীতে বৈঠক করে সমাধানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে জানা যায়।

Continue Reading

দেশজুড়ে

অন্য নারীকে মা বানিয়ে প্রতারণার অভিযোগ

Avatar photo

Published

on

শেরপুর প্রতিনিধি: অন্য নারীকে ধর্মের মা বানিয়ে পাচ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে নকলার আছাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে। আছাদুজ্জামান শেরপুর জেলার নকলা উপজেলার আমজাদ হোসেনের ছেলে।

২৮ তারিখ রবিবার দুপুরে নকলা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আছাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে ৫ লক্ষ টাকা না দিয়ে উলটো পুলিশ এবং সাংবাদিকদের দিয়ে হয়রানীর অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী আয়শা বেগম তারাফুলি। আয়শা নকলা উপজেলার কৈয়াকুড়ি গ্রামের বাসিন্ধা।

তিনি বলেছেন, আছাদুজ্জামান সরলতার সুযোগ নিয়ে আমাকে ধর্মের মা বানায়। মায়ের দাবিতে নিয়মিত আমার বাড়িতে আসা যাওয়া শুরু করে। এক সময় আছাদ বিদেশে যাবে বলে আমাকে জানায় এবং আমার মেয়ের জামাইকে বিদেশে নিয়ে যাবে এই বলে সে আমার কাছ থেকে পাচ লক্ষ টাকা চায়। বানানো হলেও ছেলে বলে কথা, তাই আমি আমার স্বামীকে বুঝিয়ে সাক্ষী রেখে স্টেম্প করে টাকাগুলো দেই। পরে জানতে পারি সে যাবে না। আমার কাছে মিথ্যে বলে টাকা নিয়েছে। ঐ টাকা দিয়ে আছাদ দুটো ব্যাটারী চালিতো অটো কিনেছে।

তিনি আরো বলেন, কিছুদিন পর টাকা চাইতে গেলে আজ না কাল এসব বলে তালবাহানা শুরু করে এবং বলে আমি টাকা দিয়ে দিয়েছি। শুধু তাই নয় টাকা না দিয়ে অপরাধ চিএ নামের এক ম্যাগাজিনে মিথ্যা বানোয়াট খবর প্রকাশ করায় এবং আমার কাছ থেকে টাকা নেওয়ার (দলিল) স্টেম্প তাকে দিয়ে দিতে থানা থেকে এস আই সুমনকে পাঠিয়ে হুমকি দেয়। ২৪ ঘন্টার মধ্যে স্টেম্প না দিলে মামলায় জড়িয়ে জেলে পাঠানোর হুমকি দেয়। হুমকির বিষয়ে এসআই সুমন জানায়, আছাদুজ্জামানের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমি তদন্ত করতে তারাফুলির বাড়িতে যাই এবং দুই পক্ষকেই থানায় আসতে বলি। কিন্তু তারা কেউই থানায় আসে নি। আর স্টেম্প চাওয়ার ব্যাপারে তাদের সাথে কোন কথা হয়নি।
আসাদুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

তারাফুলি বলেন, বর্তমানে আমিসহ আমার পরিবারের লোকজন প্রান নাশ এবং মামলার ভয়ে দিন পার করছি। আমি প্রশাসনের কাছে আছাদুজ্জামানের সুষ্ঠ বিচার দাবি করছি। আয়শা বেগম তারাফুলির পক্ষে তার লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান মেয়ের জামাই শরিফুল ইসলাম। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নকলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোশারফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সহ প্রীন্ট এবং ইলেক্ট্রনি· মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

Continue Reading

দেশজুড়ে

বাজুস এর কমিটি বাতিলের দাবীতে শেরপুরে স্বর্ণ ব‍্যবসায়ীদের মানববন্ধন

Avatar photo

Published

on

শেরপুরে বাংলাদেশ জুয়েলার্স এসোসিয়েশন (বাজুস) এর জেলা শাখার কমিটি বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে সাধারণ জুয়েলারী ব্যাবসায়ীরা।

বৃহস্প্রতিবার দুপুরে শহরের খরমপুর মোড়ে এ মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। এসময় সাবেক কমিটির সহ-সভাপতি মো. শাহজাহান, সহ-সাধারণ সম্পাদক সামছুদ্দিন সমেশ, সদস্য আফজাল হোসেনসহ অন্যান্য নেতৃবন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে বলা হয়, গত বছর ৩০ ডিসেম্বর কেন্দ্র ঘোষিত ৫ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক চন্দন কুমার ঘোষ নিজ স্বার্থ চারিতার্থ করে কমিটির দুই জন সদস্যকে না জানিয়ে গোপনে বাকী ৩ সদস্য মিলে নির্বাচন কমিশন ও গঠনতন্ত্র বিরোধী ভোটার তালিকা করেন। এরপর ওই অবৈধ ভোটার তালিকা করে গত ২১ জানুয়ারী গোপনে তফসীল এবং ভোট বিহীন পকেট কমিটি ঘোষনা করেন। পরবর্তিতে আগামী ২৭ মে ওই কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠানের ঘোষনা করা হয়। এরই প্রতিবাদে এ মানববন্ধন করা হয়। তারা আগামী ২৭ মে শনিবার অভিষেক অনুষ্ঠানের সামনে অবস্থান কর্রসূচী এবং কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এবং স্থানীয় প্রশাসনকে স্মারকলিপি প্রদান করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এবিষয়ে বর্তমান কমিটির সভাপতি ইলিয়াস আলী শুধু শহরের ব্যবসায়ীদের নিয়ে ভোটার তালিকা করার কথা স্বীকার করে সকল সিদ্ধান্ত আহ্বায়ক কমিটির রেজুলেশন নিয়েই করা হয়েছে বলে জানান।

Continue Reading