Connect with us

জাতীয়

তথ্য কমিশন , নামমাত্র এক সংস্থার নাম

Avatar photo

Published

on

স্টাফ রিপোর্টার:
তথ্য জানার অধিকার আছে সবার। এ জন্য একটি আইনও আছে। তথ্য অধিকার আইন-২০০৯। আইনটি করা হয়েছিল নাগরিকের তথ্য পাওয়া ব্যপারটি সহজ করার জন্য। কিন্তু আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে ডুবতে বসেছে উদ্যোগটি। বলছিলেন তথ্য কমিশনের সাবেক কমিশনার অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম। তিনি বলেন, “আসলে যে উদ্দেশ্য নিয়ে তথ্য কমিশন ও তথ্য আইন করা হয়েছিল তার কিছুই হচ্ছে না। কমিশনকে স্বাধীন বলা হলেও আদতে তা নয়। অনেক সময় সরকারি সংস্থা থেকেও তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে অসহযোগী মনোভাব দেখানো হয়। যে কারণে, তথ্য অধিকার আইনের সুফল এখনও কাগজে কলমে রয়ে গেছে। নামেই আছে প্রতিষ্ঠানটি।”
গতকাল ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) এর উদ্যোগে সাগর-রুনী মিলনায়তনে আয়োজিত এক কর্মশালায় এসব কথা বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের এই অধ্যাপক। ‘তথ্য অধিকার আইন-২০০৯’ বিষয়ে কর্মশালায় অংশ নেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকরা।
আবেদনের ভুলের কারণে অনেক নাগরিক চেয়েও তথ্য পান না উল্লেখ করে সাদেকা হালিম বলেন, “আবেদনকারীরা তথ্য চেয়ে আবেদনের পর যখন না পান তখন আসেন তথ্য কমিশনে। কিন্তু তথ্য কমিশনে তাদের অর্ধেকেরও বেশি অভিযোগ ফিরে যায় আবেদনের ভুলের কারণে।” তিনি বলেন, “অনেকে বোঝেন না আবেদন কিভাবে করতে হবে। বিষয়টি এখনও জটিল। কিন্তু প্রতিবেশী দেশ ভারতের তথ্য কমিশনের চিত্র ভিন্ন। কোনো আবেদনকারী আবেদনে ভুল করলেও সেটাকে যতটুকু সম্ভব সংশোধন করে তথ্য পেতে সহযোগিতা করা হয়। কিন্তু আমাদের দেশে এই মানসিকতা এখনও চালু হয়নি।”
কমিশনের বিগত সময়ের কাজের তথ্য তুলে ধরে সাবেক তথ্য কমিশনার বলেন, “২০১০ থেকে ২০১৪ সালের আগস্ট পর্যন্ত তথ্য কমিশনে জমা পড়েছে মোট ৬৬৭টি অভিযোগ। এর মধ্যে ৩৩৭টি অভিযোগ আমলে নেয়া হয়। এসব অভিযোগের মধ্যে ৩২১ টি অভিযোগ শুনানির মাধ্যমে এবং ৩০৭টি অভিযোগ চিঠি পাঠানোর মাধ্যমে নি®পত্তি করা হয়। ভুল আবেদনের কারণে এসব অভিযোগ আমলে নেয়নি কমিশন।” তবে প্রশ্ন আছে চিঠি পাঠানোর মাধ্যমে অভিযোগ নি®পত্তি করা নিয়েও। এ প্রসঙ্গটিও এড়িয়ে যাননি সাদেকা হালিম। বললেন, “অভিযোগ যথাযথ না হলে কমিশন থেকে চিঠি দিয়ে অভিযোগকারীকে ভুল সংশোধন করে পরবর্তীতে আবারও আবেদন করতে বলা হয়। এতে যে পরিমাণ সময় ব্যয় হয় তাতে অভিযোগকারী দ্বিতীয়বার আবেদন করার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন। এ পদ্ধতি পরিবর্তন আনার সময় এসেছে।” শুধু পদ্ধতিগত নয়, আইনেরও পরিবর্তন আনার সময় এসেছে বলে মনে করেন দৈনিক সমকালের নির্বাহী স¤পাদক মুস্তাফিজ শফি। তিনি বলেন, “২০০৯ সালের পর পাঁচ বছর হতে চললো। রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক অনেক পরিবর্তন এসেছে। তাই তথ্য অধিকার আইনটিও পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে।”
সাংবাদিকদের তথ্য অধিকার আইন ব্যবহারের আহ্বান জানিয়ে তথ্য কমিশনের পরিচালক (প্রশাসন) আব্দুল করিম বলেন, “তথ্য অধিকার আইন স¤পর্কে এখনও অনেকে অন্ধকারে আছেন। এই আইনের ব্যবহার বাড়াতে হবে। এ জন্য সাংবাদিকদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের সুযোগ রয়েছে।” তবে উপস্থিত সাংবাদিকদের অনেকে আইনের সীমাবদ্ধতার কথা তুলে ধরে জানান, এই আইন থেকে সাংবাদিকরা খুব বেশি সুবিধা পেতে পারেন বলে মনে হয় না। কারণ, এই আইনের অনেক সীমাবদ্ধতা রয়েছে। আবেদন করলেই যে তথ্য পাওয়া যাবে এটারও নিশ্চয়তা নেই। তাছাড়া যে সময়সীমা বেঁধে দেয়া আছে তাও দেশের সাংবাদিকতার অনুকূল নয়।
ডিআরইউ’র সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত চতুর্থ ব্যাচের কর্মশালায় আরও বক্তৃতা করেন, ডিআরইউর প্রশিক্ষণ ও গবেষণা স¤পাদক মো. সাজ্জাদ হোসেন ও প্রশিক্ষণ উপ-কমিটির সদস্য সচিব মাহফুজা জেসমিন। উপস্থিত ছিলেন ডিআরইর অর্থ স¤পাদক আশরাফুল ইসলাম, সাংগঠনিক স¤পাদক মুরসালিন নোমানী, দপ্তর স¤পাদক শেখ মুহাম্মদ জামাল হোসাইন, সাংস্কৃতিক স¤পাদক আজিজুল পারভেজ, কল্যাণ স¤পাদক জামিউল আহসান সিপু, কার্যনির্বাহী সদস্য মো. মঈন উদ্দিন খান ও তোফাজ্জল হোসেন। তথ্য মন্ত্রণালয় ও তথ্য কমিশনের সহায়তায় ডিআরইউ তার সদস্যদের মধ্য থেকে দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রতি পর্বে ৫০ জন করে পর্যায়ক্রমে পাঁচশ’ জনকে ‘তথ্য অধিকার আইন-২০০৯’ বিষয়ে জানাতে কর্মশালা করেছে। গত ২২ আগস্ট দ্বিতীয় পর্যায়ের কর্মশালা শুরু হয়। এ পর্যন্ত প্রায় দুইশ’ সাংবাদিক এতে অংশ নেন।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Highlights

বই মেলায় আইয়ুব রানার ‘রকমারী ছড়া’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

Avatar photo

Published

on

অর্ধ সাপ্তাহিক সুবাণী সম্পাদক আইয়ুব রানা রচিত ‘রকমারী ছড়া’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। গত সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪) বিকেলে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে চলমান অমর একুশে বইমেলার মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে বইটির মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নী। আরও উপস্থিত ছিলেন দৈনিক বজ্রশক্তির সম্পাদক এসএম সামসুল হুদা, দানবীর সেখ সইদুল ইসলাম (কলকাতা), বইয়ের রচয়িতা আইয়ুব রানা প্রমুখ।

বইয়ের রচয়িতা আইয়ুব রানা জানান, বইটি একুশে বইমেলার ৩৮৪নং উচ্ছ্বাস প্রকাশনীর স্টলে পাওয়া যাচ্ছে। এ সময় তিনি ছড়া প্রেমিদের বইটি সংগ্রহ করার অনুরোধ জানান।

Continue Reading

জাতীয়

ঢাকার দক্ষিণ বনশ্রীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ডিএসসিসির অভিযান

Avatar photo

Published

on

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে দক্ষিণ বনশ্রী ও পশ্চিম নন্দীপাড়া সংযোগ সড়ক এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ডিএসসিসি। মঙ্গলবার দুপুরে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়।

অভিযানকালে দক্ষিণ বনশ্রী কে ব্লক ও পশ্চিম নন্দি পাড়া সংযোগ সড়কে অবৈধভাবে দখল করে নির্মিত একটি বাড়ির দেয়াল ও গেট ভেঙে দেয়া হয়। ইফতেখার মাহমুদ নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি রাস্তা দখল করে এই দেয়াল ও গেট নির্মাণ করেছিলেন বলে জানা যায়।

স্থানীয়রা জানায়, দফায় দফায় এই বাড়ির মালিক রাস্তাটি দখল করে দেয়াল ও গেট নির্মাণ করেন। ফলে স্থানীয়দের চলাচলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। তাই সড়কটি দখলমুক্ত করার দাবি দীর্ঘদিনের।

অভিযান প্রসঙ্গে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান জানান, ইতিপূর্বে এখানে অভিযান চালিয়ে দুই বার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলেন তা পুনরায় দখল করে দেয়াল ও গেট নির্মাণ করা হয়। তাই স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে দেয়ালটি জায়গাটি সম্পূর্ণরূপে দখলমুক্ত করতে আজকের এই অভিযান চালানো হয় বলে জানান তিনি।

Continue Reading

Highlights

দেশকে এগিয়ে নেব, এটিই প্রতিজ্ঞা: প্রধানমন্ত্রী

Avatar photo

Published

on

সারা বিশ্বে যুদ্ধ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শান্তি থাকলেই প্রগতি ও উন্নতি আসে। বাঙালি শান্তিতে বিশ্বাস করে। আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই।

তিনি বলেন, শান্তি থাকলেই কিন্তু প্রগতি আসে, উন্নতি হয়, এগিয়ে চলা যায়। সেটিই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য, এভাবেই আমরা এগিয়ে যেতে চাচ্ছি। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাব, এটিই আমাদের প্রতিজ্ঞা।

বুধবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২৪ উদ্‌যাপন উপলক্ষ্যে চার দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, সারাবিশ্বের যুদ্ধ বন্ধ হোক। বন্ধ হোক অস্ত্র প্রতিযোগিতা। এ অস্ত্র প্রতিযোগিতায় যে অর্থ (খরচ করা হচ্ছে), তা মানুষের জ্ঞানবিজ্ঞান, গবেষণা, জলবায়ু পরিবর্তন, নারী ও শিশুর বিকাশ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশের উন্নয়নসহ বিশ্বের উন্নয়নের নানান কাজে ব্যয় হোক।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজ মহান একুশে ফেব্রুয়ারি শহিদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বাঙালি জাতি নিজের মাতৃভাষাকে মর্যাদা দেওয়ার জন্য মহান আত্মত্যাগ করেছে। মাতৃভাষা রক্ষায় যারা আত্মত্যাগ করেছে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। বাঙালি জাতি রক্ত দিয়ে ভাষার মর্যাদা দিয়ে গেছে।

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুমানা আলী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. হাকিম আরিফ।

Continue Reading