Connect with us

ঢাকা বিভাগ

ভাঙ্গায় নব-সরকারীকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভুয়া শিক্ষক নিয়োগ; ২৬ লক্ষ টাকা বিল জালিয়াতির চেষ্টা

Avatar photo

Published

on

Education-Ministry-2ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলায় নব সরকারীকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২৪ জন ভুয়া শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছে একটি প্রতারক চক্র। এদের মধ্যে ১৩ জনের নামে ২৬ লক্ষ টাকার বিল করে সোনালী ব্যাংক খেকে উঠানোরও চেষ্টা করেছিল প্রতারক চক্রটি। প্রশাসনের সর্তকতায় সেবার বিল তুলতে পারেনি। কিন্ত এ ভুয়া শিক্ষক নিয়ে নানা তালবাহানা শুরু করছে প্রতারক চক্রটি।

জানা যায় ,রেজিষ্টার্ড বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোতে ৪ টি পদ ছিল। ২০১৩ সালে সরকার বিদ্যালয় গুলোকে সরকারী করনের ঘোষনা দেয়। উক্ত বিদ্যালয় গুলোতে ৫ টি পদ দেখাইয়া ২০০৯ সালে ভাঙ্গার বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ২৪ জন ভুয়া শিক্ষক নিয়োগ দেখায় একটি চক্র। এদের নিকট থেকে হাতিয়ে নেয় জন প্রতি প্রায় ৩/৪ লক্ষ টাকা। অথচ নিয়োগকৃত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটি কিছুই জানেন না। থানমাত্তা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগ দেখানো হয়েছে মুকসুদপুর উপজেলার মোহাম্মদ আলীর পুত্র মোস্তাফিজুর রহমানকে , অথচ উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জুলহাস মাতুব্বর জানান মোস্তাফিজকে সে কখনো দেখেই নাই। পশ্চিম পাতরাইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজিয়া সুলতানাকে নিয়োগ দেওয়া হলেও উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ জসিম মাতুব্বর এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান।এ ভাবে ভাঙ্গা থানার ২৪টি বিদ্যালয়ে ২৪ জন শিক্ষক নিয়োগ দেখানো হয়েছে যাদের সংস্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান গন চিনেন না। এ ব্যাপারে ২৪টি বিদ্যালয়ের প্রধান গন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত দিয়েছেন যে তারা ভুয়া শিক্ষকদের সম্পর্কে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন একাধিক প্রধান শিক্ষক।এ সব শিক্ষক নিয়োগ দিয়েই ক্ষ্যান্ত হননি প্রতারক চক্রের হোতা হাজরাকান্দা গ্রামের আঃ রহমানের ছেলে আঃ জব্বার মিয়া। বেতন করার জন্য বিভিন্ন কর্মকর্তাদের জাল সই করে কাগজপত্র প্রেরন করেছেন বিভিন্ন দপ্তরে। ভুয়া ঐ ২৪ জনের মধ্যে মুস্তাফিজুর রহমান,জিন্নতুন্নেছা,আয়শা আক্তার,রাজিয়া , শিখা খানম , আলেয়া ও ইমারতের নামে সোনালী ব্যাংকে ১৪৭৪৪৭০ টাকার বিল করে জমা দেন যার বিল নং-১৮ তারিখ ২০-৭-১৫ এল এস সি নম্বর-২১১ , তারিখ ২২-৭-১৫। এ ছাড়াও এই সময় নিমা খানম ,নাজমুল হক ,ফেরদৌসী ,শাহনাজ ,রুমা আক্তার ও আবুল কালামের নামে ১১৯১৯১০ টাকার বিল করে সোনালী ব্যাংকে জমা দেন যাহার বিল নং- ১৯ ,তারিখ ২০-৭-১৭, এল এস সি নম্বর-২১০ ,তারিখ ২২-৭-১৫। তখন এজি অফিসার আবুল হোসেন এবং সোনালী ব্যাংকের অফিসার প্রমদ চন্দ্র বালার সর্তকতায় বিল দুটি তুলতে পারেনি এ প্রতারক চক্র। এ সব ভুয়া শিক্ষকদের বৈধ করার নানা তৎপরতা চালাচ্ছে প্রতারক চক্রটি বলে জানান ভাঙ্গা থানার সাবেক রেজি ঃ প্রাঃ বিদ্যালয়ের প্যানেল ভুক্ত শিক্ষক-শিক্ষিকা বৃন্দ। তারা হাইকোর্টে রিট করেছে বলেও জানা যায়।এ ব্যাপারে প্যানেল ভুক্ত শিক্ষক জিয়াউর রহমান ও ঝর্না আক্তার অভিযোগ ও হতাশার শুরে জানান হাইকোর্টে মামলা করে আমরা রায় পেয়েছি কিন্ত অবৈধ ভাবে ২৪ জন নিয়োগ পেলে আমরা কোথায় নিয়োগ পাব।
এ ব্যাপারে ভাঙ্গা উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, ২০১৩ বিদ্যালয় গুলো সরকারী ঘোষনার পর একটি প্রতারক চক্র ভুয়া কাগজ দেখিয়ে ২০০৯ সালে ২৪ জন শিক্ষককে ভাঙ্গার বিভিন্ন স্কুলে নিয়োগ দেখিয়েছে যাহা উপজেলা শিক্ষা অফিস জানে না।এ ব্যাপারে ২৪টি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট এই মর্মে প্রত্যয়ন দিয়েছে যে তারা নিয়োগকৃত শিক্ষকদের চিনেন না। তারা কোনদিন হাজিরা খাতায় ও সই করেননি। এ সব তথ্য গুলো আমরা আমাদের উর্ধতন কতৃপক্ষকে অবহিত করেছি।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আলমগীর হোসেন বলেন একটি প্রতারক চক্র ভুয়া শিক্ষক নিয়োগের নামে শিক্ষার পরিবেশকে কুলশিত করার চেষ্টা করছে। অচিরেই তাদের মুখোশ উন্মোচিত হবে।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সুত্রে জানা যায় সরকার নব সরকারীকৃত বিদ্যালয় গুলোতে ৪ জন শিক্ষক রাখার সিদ্বান্ত নিয়েছে এখানে কোন ৫ম পদ নেই। এ ছাড়াও ভাঙ্গায় ২৪ জন শিক্ষক নিয়োগের ব্যাপারে জেলা শিক্ষা অফিস কিছুই জানে না।এ ব্যাপারে আঃ জব্বার মিয়ার মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি।
যারা টাকার বিনিময়ে অবৈধ ভাবে শিক্ষক হতে চায়, যারা বৈধ নিয়োগ না পেয়ে জালিয়াতির মাধম্যে ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে চায় তারা আর যাই হোক শিক্ষক হতে পারে না। তাই এ ব্যাপারে উচ্চতর তদন্তের মাধ্যমে প্রতারক চক্রকে চিহ্নত করে তাদেরকে বিচারের দাবী করে সচেতন ভাঙ্গা বাসী।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ঢাকা

১৬নং ওয়ার্ডের সফল কাউন্সিলর মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসা

Avatar photo

Published

on

আশিকুর রহমান:
এলাকার জনসাধারণের সেবা সুনিশ্চিত করতে নিরলসভাবে কাজ করে আসছেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের পরপর দুইবারের নির্বাচিত ১৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসা। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী তিনি। বিগত দিনেও সফলতার সাথে ওয়ার্ডবাসীর সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন সফল কাউন্সিলর মোঃ মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসা। জনসেবায় নিজেকে আত্মনিয়োগে কুড়িয়েছেন জনসাধারণের অকৃত্রিম ভালোবাসা।

এলাকার সার্বিক উন্নয়ন অর্থাৎ জনসাধারণের চলাচলের অনুপযুক্ত রাস্তাঘাটা মেরামত, নির্মাণ ও প্রশস্তকরণ, ইউএনডিপি কর্তৃক কাজ বাস্তববায়ন, ড্রেন নির্মাণ, কবরস্থান নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ, দূর্যোগকালীন ব্যবস্থাপনা, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধিদের ভাতা প্রদান, ঈদগাহ মাঠের উন্নয়ন, নগর মাতৃ সদন হাসপাতাল স্থাপন, নিজস্ব অর্থায়নে বিভিন্ন নিচু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাটি ভরাট, মসজিদ-মাদ্রাসা ও বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানে আর্থিক অনুদান, বৃক্ষ রোপন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উৎসাহ প্রদানে শিক্ষা উপকরণ প্রদান, সুবিধা বঞ্চিত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন কার্যক্রমসহ জনকল্যাণমুখী নানাবিধ উন্নয়ন কার্মকান্ড বাস্তবায়ন করেন কাউন্সিলর মোঃ মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসা।

এলাকায় উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করতে গিয়ে নানা ধরনের ষড়যন্ত্রের মুখের পড়তে হয়েছে তাকে। ষড়যন্ত্রকারীদের সকল বাঁধা উপেক্ষা করে ওয়ার্ডকে সুন্দর, বাসযোগ্য ও ডিজিটাল করণের মাধ্যমে মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসা জনসাধারণের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। এলাকায় উন্নয়ন কর্মকান্ড চলমান রাখতে স্থানীয় জনগণ ভোটের মাধ্যমে মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসাকে জয়ী করার কথা জানান।

১৬নং ওয়ার্ডের স্থানীয় জনগণ জানায়, পরিচ্ছন্ন ও পরিশ্রমী ব্যক্তির দ্বারাই সমাজ পরিবর্তন হয়ে থাকে। সমাজ বা এলাকাকে পরিচ্ছন্ন রাখতে একজন পরিচ্ছন্ন ব্যক্তির কোন বিকল্প নেই। ব্যক্তি হিসেবে কাউন্সিলর মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসাকে পরিচ্ছন্ন মনের অধিকারী হিসেবে আখ্যায়িত করেন স্থানীয়রা। কর্মঠ, পরিশ্রমী, দক্ষ, সৎ, মেধাবী জনপ্রতিনিধি হিসেবে পুনরায় তাকে নির্বাচিত করতে চান তারা। তারা বলেন, বিগত দিনগুলোতে তার পরিশ্রমের কথা ভুলার নয়। আগে ৩নং ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট খানাখন্দে ছিল ভরা, চলাচলের জন্য একেবারেই ছিল অনুপযোগী। যার কারণে অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। কাউন্সিলর মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসার দিন-রাত পরিশ্রমের ফলে এখন আর সেই ভোগান্তি নেই। তিনি অতি অল্প সময়ে রাস্তা নির্মাণ ও মেরামত করে চলাচলে স্বস্তি ফিরিয়ে এনেছেন। তারা বলেন, রাস্তাঘাট ছাড়াও তার উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডগুলো চোখে পড়ার মত। একজন জনপ্রতিনিধির সকল গুণাবলি তার মধ্যে রয়েছে।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী মুসা, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ১৬নং ওয়ার্ডকে আধুনিকায়ন, সুন্দর ও বাসযোগ্য একটি ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তোলাই ছিল তার ধ্যান, জ্ঞান ও স্বপ্ন। সেই লক্ষ্যে তিনি সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচনের কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেব বিপুল ভোটে জয়যুক্ত হন। পরবর্তী দ্বিতীয় নির্বাচনেও জনসাধারণ ভোটের মাধ্যমে তাকে কাউন্সিলর হিসেবে সাদরে গ্রহণ করে নেন।

তিনি বলেন, দুইবারের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে ১৬নং ওয়ার্ডের লক্ষাধিক জনগণের নিরাপত্তা, চলাচলের জন্য রাস্তা-ঘাটের উন্নয়ন, অসহায়কে সহায়তাদান, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, কবরস্থান নির্মাণ, নিরাপদে ঘরে ফেরার ব্যবস্থাসহ আরও নানারকম উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করতে গিয়ে এলাকার জনসাধারণ উৎসাহ, সহযোগিতা ও পরামর্শ পেয়েছি। তাদেরকে আমি পাশে পেয়েছি। দেশের একজন সুনাগরিক ও জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার লক্ষ ও উদ্দেশ্যই ছিল, আমার নিজ এলাকার উন্নয়ন ও সাধারণ মানুষের সেবক হয়ে তাদের পাশে থাকার।

Continue Reading

গাজীপুর

জনসেবায় নিরলস কাজ করছেন গাজীপুর সিটির কাউন্সিলর শিরিষ

Avatar photo

Published

on

আশিকুর রহমান, গাজীপুর:
এলাকার জনসাধারণের সেবা সুনিশ্চিত করতে নিরলসভাবে কাজ করে আসছেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের পরপর দুইবারের নির্বাচিত ৪০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ আজিজুর রহমান শিরিষ। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের তৃতীয় ধাপের নির্বাচনেও কাউন্সিলর প্রার্থী তিনি। বিগত দিনেও সফলতার সাথে ওয়ার্ডবাসীর সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন সফল কাউন্সিলর মোঃ আজিজুর রহমান শিরিষ। জনসেবায় নিজেকে আত্মনিয়োগে কুড়িয়েছেন জনসাধারণের অকৃত্রিম ভালোবাসা।

এলাকার সার্বিক উন্নয়ন অর্থাৎ জনসাধারণের চলাচলের অনুপযুক্ত রাস্তাঘাটা মেরামত, নির্মাণ ও প্রশস্তকরণ, ইউএনডিপি কর্তৃক কাজ বাস্তববায়ন, ড্রেন নির্মাণ, কবরস্থান নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ, দূর্যোগকালীন ব্যবস্থাপনা, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের ভাতা প্রদান, ঈদগাহ মাঠের উন্নয়ন, নগর মাতৃ সদন হাসপাতাল স্থাপন, নিজস্ব অর্থায়নে বিভিন্ন নিচু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাটি ভরাট, মসজিদ-মাদ্রাসা ও বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানে আর্থিক অনুদান, বৃক্ষ রোপন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উৎসাহ প্রদানে শিক্ষা উপকরণ প্রদান, সুবিধা বঞ্চিত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন কার্যক্রমসহ জনকল্যাণমুখী নানাবিধ উন্নয়ন কার্মকান্ড বাস্তবায়ন করেন কাউন্সিলর আজিজুর রহমান।

এলাকায় উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করতে গিয়ে নানা ধরনের ষড়যন্ত্রের মুখের পড়তে হয়েছে তাকে। ষড়যন্ত্রকারীদের সকল বাঁধা উপেক্ষা করে ওয়ার্ডকে সুন্দর, বাসযোগ্য ও ডিজিটাল করণের মাধ্যমে আজিজুর রহমান শিরিষ জনসাধারণের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। এলাকায় উন্নয়ন কর্মকান্ড চলমান রাখতে স্থানীয় জনগণ ভোটের মাধ্যমে আজিজুর রহমান শিরিষকে জয়ী করার কথা জানান।

৪০নং ওয়ার্ডের স্থানীয় জনগণ জানায়, পরিচ্ছন্ন ও পরিশ্রমী ব্যক্তির দ্বারাই সমাজ পরিবর্তন হয়ে থাকে। সমাজ বা এলাকাকে পরিচ্ছন্ন রাখতে একজন পরিচ্ছন্ন ব্যক্তির কোন বিকল্প নেই। ব্যক্তি হিসেবে কাউন্সিলর মোঃ আজিজুর রহমান শিরিষকে পরিচ্ছন্ন মনের অধিকারী হিসেবে আখ্যায়িত করেন স্থানীয়রা। কর্মঠ, পরিশ্রমী, দক্ষ, সৎ, মেধাবী জনপ্রতিনিধি হিসেবে পুনরায় আজিজুর রহমানকে নির্বাচিত করতে চান তারা।

তারা আরও বলেন, বিগত দিনগুলোতে তার পরিশ্রমের কথা ভুলার নয়। আগে ৪০নং ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট খানাখন্দে ছিল ভরা, চলাচলের জন্য একেবারেই ছিল অনুপযোগী। যার কারণে অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। কাউন্সিলর মোঃ আজিজুর রহমান শিরিষর দিন-রাত পরিশ্রমের ফলে এখন আর সেই ভোগান্তি নেই। তিনি অতি অল্প সময়ে রাস্তা নির্মাণ ও মেরামত করে চলাচলে স্বস্তি ফিরিয়ে এনেছেন। তারা বলেন, রাস্তাঘাট ছাড়াও তার উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডগুলো চোখে পড়ার মত। একজন জনপ্রতিনিধির সকল গুণাবলি তার মধ্যে রয়েছে।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ আজিজুর রহমান শিরিষ জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৪০নং ওয়ার্ডকে আধুনিকায়ন, সুন্দর ও বাসযোগ্য একটি ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তোলাই ছিল তার ধ্যান, জ্ঞান ও স্বপ্ন। সেই লক্ষ্যে তিনি সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচনের কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেব বিপুল ভোটে জয়যুক্ত হন। পরবর্তী দ্বিতীয় নির্বাচনেও জনসাধারণ ভোটের মাধ্যমে তাকে কাউন্সিলর হিসেবে সাদরে গ্রহণ করে নেন।

তিনি বলেন, দুইবারের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে ৪০নং ওয়ার্ডের লক্ষাধিক জনগণের নিরাপত্তা, চলাচলের জন্য রাস্তা-ঘাটের উন্নয়ন, অসহায়কে সহায়তাদান, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, কবরস্থান নির্মাণ, নিরাপদে ঘরে ফেরার ব্যবস্থাসহ আরও নানারকম উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করতে গিয়ে এলাকার জনসাধারণ উৎসাহ, সহযোগিতা ও পরামর্শ পেয়েছি। তাদেরকে আমি পাশে পেয়েছি। দেশের একজন সুনাগরিক ও জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার লক্ষ ও উদ্দেশ্যই ছিল, আমার নিজ এলাকার উন্নয়ন ও সাধারণ মানুষের সেবক হয়ে তাদের পাশে থাকার।

Continue Reading

গাজীপুর

আসন্ন সিটি নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে জনসেবা সুনিশ্চিত করতে চান কাউন্সিলর মোশারফ

Avatar photo

Published

on

আশিকুর রহমান, গাজীপুর:
এলাকার জনসাধারণের সেবা সুনিশ্চিত করতে নিরলসভাবে কাজ করে আসছেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের গত নির্বাচনে নির্বাচিত ২২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মোশারফ হোসেন। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী তিনি। বিগত দিনেও সফলতার সাথে ওয়ার্ডবাসীর সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন সফল কাউন্সিলর মো. মোশারফ হোসেন। জনসেবায় নিজেকে আত্মনিয়োগে কুড়িয়েছেন জনসাধারণের অকৃত্রিম ভালোবাসা।

উক্ত এলাকার সার্বিক উন্নয়ন অর্থাৎ জনসাধারণের চলাচলের অনুপযুক্ত রাস্তাঘাটা মেরামত, নির্মাণ ও প্রশস্তকরণ, ইউএনডিপি কর্তৃক কাজ বাস্তববায়ন, ড্রেন নির্মাণ, কবরস্থান নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ, দূর্যোগকালীন ব্যবস্থাপনা, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধিদের ভাতা প্রদান, ঈদগাহ মাঠের উন্নয়ন, নগর মাতৃ সদন হাসপাতাল স্থাপন, নিজস্ব অর্থায়নে বিভিন্ন নিচু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাটি ভরাট, মসজিদ-মাদ্রাসা ও বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানে আর্থিক অনুদান, বৃক্ষ রোপন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উৎসাহ প্রদানে শিক্ষা উপকরণ প্রদান, সুবিধা বঞ্চিত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন কার্যক্রমসহ জনকল্যাণমুখী নানাবিধ উন্নয়ন কার্মকান্ড বাস্তবায়ন করেন কাউন্সিলর মোঃ মোশারফ হোসেন।

এলাকায় উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করতে গিয়ে নানা ধরনের ষড়যন্ত্রের মুখের পড়তে হয়েছে তাকে। ষড়যন্ত্রকারীদের সকল বাঁধা উপেক্ষা করে ওয়ার্ডকে সুন্দর, বাসযোগ্য ও ডিজিটাল করণের মাধ্যমে মোঃ মোশারফ হোসেন জনসাধারণের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। এলাকায় উন্নয়ন কর্মকান্ড চলমান রাখতে স্থানীয় জনগণ ভোটের মাধ্যমে মোঃ মোশারফ হোসেন মোল্লাকে জয়ী করার কথা জানান।

২২নং ওয়ার্ডের স্থানীয় জনগণ জানায়, পরিচ্ছন্ন ও পরিশ্রমী ব্যক্তির দ্বারাই সমাজ পরিবর্তন হয়ে থাকে। সমাজ বা এলাকাকে পরিচ্ছন্ন রাখতে একজন পরিচ্ছন্ন ব্যক্তির কোন বিকল্প নেই। ব্যক্তি হিসেবে কাউন্সিলর মোশারফ হোসেনকে পরিচ্ছন্ন মনের অধিকারী হিসেবে আখ্যায়িত করেন স্থানীয়রা। কর্মঠ, পরিশ্রমী, দক্ষ, সৎ, মেধাবী জনপ্রতিনিধি হিসেবে পুনরায় মোশারফ হোসেনকে নির্বাচিত করতে চান তারা। তারা বলেন, বিগত দিনগুলোতে তার পরিশ্রমের কথা ভুলার নয়। আগে ২২নং ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট খানাখন্দে ছিল ভরা, চলাচলের জন্য একেবারেই ছিল অনুপযোগী। যার কারণে অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। কাউন্সিলর মোশারফ হোসেনের দিন-রাত পরিশ্রমের ফলে এখন আর সেই ভোগান্তি নেই। তিনি অতি অল্প সময়ে রাস্তা নির্মাণ ও মেরামত করে চলাচলে স্বস্তি ফিরিয়ে এনেছেন। তারা বলেন, রাস্তাঘাট ছাড়াও তার উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডগুলো চোখে পড়ার মত। একজন জনপ্রতিনিধির সকল গুণাবলি তার মধ্যে রয়েছে।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোশারফ হোসেন জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ২২নং ওয়ার্ডকে আধুনিকায়ন, সুন্দর ও বাসযোগ্য একটি ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তোলাই ছিল তার ধ্যান, জ্ঞান ও স্বপ্ন। সেই লক্ষ্যে তিনি সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচনের কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেব বিপুল ভোটে জয়যুক্ত হন। পরবর্তী দ্বিতীয় নির্বাচনেও জনসাধারণ ভোটের মাধ্যমে তাকে কাউন্সিলর হিসেবে সাদরে গ্রহণ করে নেন।

তিনি বলেন, দুইবারের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে ২২নং ওয়ার্ডের লক্ষাধিক জনগণের নিরাপত্তা, চলাচলের জন্য রাস্তা-ঘাটের উন্নয়ন, অসহায়কে সহায়তাদান, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, কবরস্থান নির্মাণ, নিরাপদে ঘরে ফেরার ব্যবস্থাসহ আরও নানারকম উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করতে গিয়ে এলাকার জনসাধারণ উৎসাহ, সহযোগিতা ও পরামর্শ পেয়েছি। তাদেরকে আমি পাশে পেয়েছি। দেশের একজন সুনাগরিক ও জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার লক্ষ ও উদ্দেশ্যই ছিল, আমার নিজ এলাকার উন্নয়ন ও সাধারণ মানুষের সেবক হয়ে তাদের পাশে থাকার।

Continue Reading