Connect with us

Highlights

ভূমধ্যসাগরে চার বছরে মারা গেছে সাড়ে ৬ হাজার মানুষ

Avatar photo

Published

on

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
পরিবারে সচ্ছলতা ফেরানোর আশায়, অথবা যুদ্ধ-সংঘাত এড়াতে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে অনেকে ইউরোপের দেশগুলোতে পৌঁছানোর চেষ্টা করেন। বিদেশে পাড়ি দিতে গিয়ে তারা বেছে নেন সবচেয়ে ঝুঁকির পথ। নৌকা নিয়ে সাগর পাড়ি দেওয়ার মতো দুরুহ চেষ্টা করেন তারা। আর এতেই ঘটে প্রাণহানী। ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবিতে গত চার বছরে প্রাণ গেছে সাড়ে ছয় হাজার মানুষের।

জাতিসংঘের দেয়া তথ্যের বরাত দিয়ে মঙ্গলবার ফরাসি বার্তাসংস্থা এএফপি জানায়, কেবল চলতি বছরের প্রথম সাত মাসে এভাবে ঝুঁকি নিয়ে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে প্রাণ দিতে হয়েছে অন্তত ৯৭০ জনকে। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশিও আছেন।

সাম্প্রতিক মৃত্যুর উল্লেখ করে এএফপি জানায়, লিবীয় উপকূলে সর্বশেষ ৫৭ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যুর মধ্যদিয়ে চলতি বছর ভূমধ্যসাগর অতিক্রম করে ইউরোপের কোন দেশে পাড়ি জমাতে গিয়ে প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে প্রায় ৯৭০ জনে পৌঁছেছে। জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা আইওএম জানিয়েছে, কমপক্ষে ৫৭ অভিবাসন প্রত্যাশী লিবীয় উপকূলে তাদের নৌকা ডুবে যাওয়ায় প্রাণ হারিয়েছেন। মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টাকালে ঘটা যাওয়া এটিই সর্বশেষ মর্মান্তিক ঘটনা। জেনেভায় আইওএম-এর পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের জানানো হয়, নিখোঁজদের মধ্যে কমপক্ষে ২০ নারী ও দুই শিশু রয়েছে।

লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলির প্রায় ৭৫ মাইল পূর্বে অবস্থিত খোমস বন্দর থেকে নৌকাটি গত রোববার ছেড়ে যায়। পরে এতে সমস্যা দেখা দেয়। পানি উঠে যায় এবং এটি ডুবে যায়। আইওএম মুখপাত্র পল ডিলন বলেন, ‘স্থানীয় জেলে ও লিবীয় কোস্টগার্ড পানি থেকে ১৮ জনকে উদ্ধার করেছে।’ তিনি বলেন, ‘এসব হৃদয় শীতল করা ঘটনায় যারা নিয়মিত সাড়া দিচ্ছেন, আমাদের সেই স্টাঢদের প্রাণে বেঁচে যাওয়া এসব ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, এ নৌকা ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ আছেন কমপক্ষে ৫৭ জন।’

উদ্ধার হওয়াদের লিবিয়ায় নিয়ে আসা হয়েছে। জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক সংস্থাটি জানায়, লিবিয়ায় থাকা তাদের স্টাফরা প্রাণে বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের জরুরি চিকিৎসা সেবা, খাদ্য, পানি ও সান্ত্বনা দেন। জানা গেছে, তারা সকলে নাইজেরিয়া, ঘানা ও গাম্বিয়ার নাগরিক।

শুধু এ ঘটনাই নয়, ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে অভিবাসন প্রত্যাশীদের মৃত্যু এখন অনেকটাই নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হয়েছে। তারপরই থাকছে না ঝুঁকি নিয়ে ইউরোপে প্রবেশের এ চেষ্টা। চলতি বছর প্রথম সাত মাসেই সেখানে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৯৭০ অভিবাসন প্রত্যাশীর, যেখানে ২০২০ সালের পুরো বছরে এ সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৪১৭ জন। ২০১৯ সালে ভূমধ্যসাগরে ১ হাজার ৮৮৫ জন অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু হয়। এর আগের বছর ২০১৮ সালে সবচেয়ে বেশি ২ হাজার ২৯৯ জন অভিবাসন প্রত্যাশী ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে মারা যান।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Highlights

বই মেলায় আইয়ুব রানার ‘রকমারী ছড়া’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

Avatar photo

Published

on

অর্ধ সাপ্তাহিক সুবাণী সম্পাদক আইয়ুব রানা রচিত ‘রকমারী ছড়া’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। গত সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪) বিকেলে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে চলমান অমর একুশে বইমেলার মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে বইটির মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নী। আরও উপস্থিত ছিলেন দৈনিক বজ্রশক্তির সম্পাদক এসএম সামসুল হুদা, দানবীর সেখ সইদুল ইসলাম (কলকাতা), বইয়ের রচয়িতা আইয়ুব রানা প্রমুখ।

বইয়ের রচয়িতা আইয়ুব রানা জানান, বইটি একুশে বইমেলার ৩৮৪নং উচ্ছ্বাস প্রকাশনীর স্টলে পাওয়া যাচ্ছে। এ সময় তিনি ছড়া প্রেমিদের বইটি সংগ্রহ করার অনুরোধ জানান।

Continue Reading

Highlights

দেশকে এগিয়ে নেব, এটিই প্রতিজ্ঞা: প্রধানমন্ত্রী

Avatar photo

Published

on

সারা বিশ্বে যুদ্ধ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শান্তি থাকলেই প্রগতি ও উন্নতি আসে। বাঙালি শান্তিতে বিশ্বাস করে। আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই।

তিনি বলেন, শান্তি থাকলেই কিন্তু প্রগতি আসে, উন্নতি হয়, এগিয়ে চলা যায়। সেটিই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য, এভাবেই আমরা এগিয়ে যেতে চাচ্ছি। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাব, এটিই আমাদের প্রতিজ্ঞা।

বুধবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২৪ উদ্‌যাপন উপলক্ষ্যে চার দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, সারাবিশ্বের যুদ্ধ বন্ধ হোক। বন্ধ হোক অস্ত্র প্রতিযোগিতা। এ অস্ত্র প্রতিযোগিতায় যে অর্থ (খরচ করা হচ্ছে), তা মানুষের জ্ঞানবিজ্ঞান, গবেষণা, জলবায়ু পরিবর্তন, নারী ও শিশুর বিকাশ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশের উন্নয়নসহ বিশ্বের উন্নয়নের নানান কাজে ব্যয় হোক।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজ মহান একুশে ফেব্রুয়ারি শহিদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বাঙালি জাতি নিজের মাতৃভাষাকে মর্যাদা দেওয়ার জন্য মহান আত্মত্যাগ করেছে। মাতৃভাষা রক্ষায় যারা আত্মত্যাগ করেছে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। বাঙালি জাতি রক্ত দিয়ে ভাষার মর্যাদা দিয়ে গেছে।

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুমানা আলী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. হাকিম আরিফ।

Continue Reading

Branding

বর্ণ্যাঢ্য আয়োজনে দেশেরপত্রের ১৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

Avatar photo

Published

on

বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হলো বহুল প্রচারিত ‘দৈনিক দেশেরপত্র’র ১৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ‘মানবতার কল্যাণে সত্যের প্রকাশ’ এই স্লোগানকে হৃদয়ে ধারণ করে দৈনিক দেশেরপত্র পত্রিকার ১৫ বছরে পদার্পণ করল।

এ উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে ‘মানবতার কল্যাণে সাংবাদিকতা’ শৗর্ষক এক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর আলোচনা রাখেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিবৃন্দ।

দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি প্যানেলে ছিলেন বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এবং বিএফইউজে এর সভাপতি ওমর ফারুক।
অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন এশিয়ান টিভির চেয়ারম্যান আলহাজ হারুন-উর-রশিদ সিআইপি।

দৈনিক বজ্রশক্তি পত্রিকার সম্পাদক এসএম সামসুল হুদার পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন পিনাকল মিডিয়া লিমিটেড এর চেয়ারম্যান ও হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম। উল্লেখ্য, দৈনিক দেশেরপত্র পিনাকল মিডিয়া লিমিটেড এর একটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান।

প্রধান আলোচক তাঁর বক্তব্যে বলেন- ধর্মের নামে চলা যাবতীয় অধর্মের বিপরীতে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরছে দেশেরপত্র। ধর্মীয় উগ্রবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, ইসলামবিদ্বেষ, নারীবিদ্বেষ, ধর্মব্যবসা, গুজব, ধর্মীয় উন্মাদনা এ সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে সত্যের মশাল হচ্ছে দেশেরপত্র। সত্যের এই মশালকে নিভিয়ে দেয়ার জন্য অনেক প্রতিবন্ধকতাই সৃষ্টি করা হয়েছে কিন্তু কোনো প্রতিবন্ধকতাই দেশেরপত্রকে রুখতে পারেনি আর পারবেও না ইনশাল্লাহ।

সভাপতির বক্তব্যে দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক রূফায়দাহ পন্নী বলেন, দেশেরপত্রের একটি সংখ্যাও যিনি হাতে নিয়েছেন তিনিও নিশ্চয়ই লক্ষ্য করে থাকবেন যে, এই পত্রিকা বিজ্ঞাপন প্রধান নয়, কোনো কর্পোরেশনের স্বার্থ রক্ষা করার জন্য এই পত্রিকার জন্ম হয়নি। এ পত্রিকা কেবল সংবাদ ও কিছু তথ্যের ধারক নয়, এটি একটি আদর্শিক পত্রিকা। আমরা ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য দাঁড়িয়েছি। অন্যায়ের সাথে কখনো আপোস করতে শিখিনি, আপোস করব না ইনশাল্লাহ।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাটি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর সভাপতি কিংবদন্তী গিটারিস্ট এনামুল কবীর, একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত পরিচালক মসিহ উদ্দিন শাকের, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর সাবেক সভাপতি ও যুগবার্তার হেড অব নিউজ রফিকুল ইসলাম সুজন, কালিয়াকৈর প্রোসক্লাবের সভাপতি আউয়ুব রানা প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দৈনিক দেশেরপত্রের সহকারী নির্বাহী সম্পাদক ডা. মাহবুব আলম মাহফুজ, সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক কবি রিয়াদুল হাসান, সিনিয়র রিপোর্টার ফরিদ উদ্দিন রব্বানি প্রমুখ।

Continue Reading