Connect with us

আন্তর্জাতিক

যুক্তরাষ্ট্রের ১০০ সেনাকে হত্যার হুমকি আইএস’র

Published

on

isis2-665x385আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর ১০০ সদস্যের নাম, ঠিকানা ও ছবি অনলাইনে পোস্ট করে তাদের হত্যা করার জন্য “আমেরিকায় বসবাসকারী ভাইদের” প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। তথ্যটি ইন্টারনেটে পোস্ট করার পর পেন্টাগন জানিয়েছে, বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে তারা। শনিবার নাম প্রকাশ না করার শর্তে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেছেন, “তথ্যটির যথার্থতা আমি নিশ্চিত করতে পারছি না, তবে বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি।” “অভিযানের সময় নিরাপত্তা ও বাহিনীর সুরক্ষা নিয়মাবলী (ওপিএসইসি) সঠিকভাবে অনুসরণ করার জন্য আমরা সব সময়ই আমাদের সেনাদের উৎসাহিত করি,” বলেন তিনি। ইন্টারনেটে ছাড়া পোস্টটিতে, একটি গোষ্ঠি নিজেদের “ইসলামিক স্টেট হ্যাকিং ডিভিশন” পরিচয় দিয়ে ইংরেজিতে লিখেছে যে, তারা বেশ কয়েকটি সামরিক সার্ভার, ডাটাবেজ এবং ইমেইল হ্যাক করেছে এবং যুক্তরাষ্ট্র সামরিক বাহিনীর ১০০ সদস্যের তথ্যগুলো জনসম্মুখে এনেছে যেন “নিঃসঙ্গ” জঙ্গি হামলাকারীরা তাদের হত্যা করতে পারে। নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেখে মনে হয়নি তথ্যগুলো যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি সার্ভার থেকে হ্যাক করে নেয়া হয়েছে। সংবাদপত্রটিতে দেয়া উদ্ধৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনামা এক কর্মকর্তার বলেছেন, সেনা সদস্যদের অধিকাংশের নাম, ঠিকানা পাবলিক রেকর্ড, বাসস্থানের ঠিকান অনুসন্ধান সাইট এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে সংগ্রহ করা যেতে পারে। অন্যান্য কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে টাইমসের প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, সেনা সদস্যদের তালিকাটি আইএস’র উপর চালানো বিমান হামলার সংবাদ প্রতিবেদনে প্রকাশিত সেনা সদস্যদের নাম থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। আইএস সিরিয়া ও ইরাকের বিশাল অংশ দখল করে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছে, সেখানে তাদের অবস্থান লক্ষ্য করে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোট বিমান হামলা পরিচালনা করছে। আইএস’র পোস্টটিতে যাদের নাম, ঠিকানা দেয়া হয়েছে তাদের আমেরিকার অবিশ্বাসী, খ্রিস্টান ও “ক্রুসেডার” বা ধর্মযোদ্ধা হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। এদের ছবি, নাম, ব্যক্তিগত ঠিকানা ও সামরিক বাহিনীর যে শাখায় তারা কর্মরত সেই শাখার নাম উল্লেখ করা হয়েছে। অনেকের সামরিক পদবী দেয়া হলেও সবার পদবী দেয়া হয়নি।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *