Connect with us

বিবিধ

সন্তান কেন হচ্ছে না, জানতে চান?

Avatar photo

Published

on

62_1r110521bowens053
স্পোর্টস ডেস্ক:
পৃথিবীজুড়ে লাখ লাখ মানুষ প্রতি বছর প্রজনন সমস্যা নিয়ে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নেন। প্রজনন অক্ষমতা বিশ্বজুড়ে একটি চ্যালেঞ্জ। তবে এর মোকাবেলা করতে হবে ধীরস্থির মনোভাব নিয়ে। আপনাকে হতে হবে ধৈর্য্যশীল, হতে হবে সহযোগী মনোভাবাপন্ন এবং সর্বোপরি প্রজনন অক্ষমতা বিষয়ক জ্ঞান বৃদ্ধি আপনার সমস্যা সমাধানে ভূমিকার রাখতে পারে। এমনকি প্রজনন সমস্যার ব্যাপারে আপনি হতোদ্যম ও বিভ্রান্তকর অবস্থার মুখোমুখি হলেও আপনাকে ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে এগুতে হবে। অনেক ক্ষত্রেই চিকিৎসক সমস্যার মূল খুঁজে সম্ভাব্য সব কৌশল প্রয়োগ করে আপনার সমস্যার সমাধান করে দিতে পারেন। সাধারণ পদক্ষেপ থেকে শুরু করে চিকিৎসা বিজ্ঞানের অনেক আধুনিক পদ্ধতির মাধ্যমে বর্তমানে সন্তান না হওয়া সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব হচ্ছে। সন্তান ধারণে অথবা জন্মদানে অক্ষমতাকে বন্ধ্যাত্ব বলে। সুনির্দিষ্টভাবে বলতে গেলে এক বছর কোনো জন্মবিরতিকরণ পদ্ধতি ছাড়া নিয়মিত যৌনমিলনের পরেও সন্তান ধারণে ব্যর্থতাকে বন্ধ্যাত্ব বলে। বন্ধ্যাত্ব দুই ধরনের- প্রাইমারি ও সেকেন্ডারি।

বন্ধাত্বের কারণ:
অনেক কারণেই বন্ধ্যাত্ব হতে পারে। বর্তমানে সমীক্ষায় দেখা যায় যে অর্ধেকেরও বেশি বন্ধ্যাত্ব ঘটে নারীদের বিভিন্ন জটিলতার কারণে। এরপর রয়েছে পুরুষের শুক্রের সমস্যা এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে অজানা কারণেও বন্ধ্যাত্ব হয়ে থাকে। বর্তমানে বিভিন্ন দেশে বন্ধ্যাত্বের হার বেড়ে গেছে। প্রথম সন্তান ৩০ বছরের বেশি বয়সে হওয়ার কারণে বর্তমানে বন্ধ্যাত্বের সংখ্যা ৩ থেকে ৫ শতাংশ। কনডম এবং জরায়ুর ভেতরে ব্যবহৃত বিভিন্ন জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ব্যবহারের ফলে যৌনবাহিত রোগের ঝুঁকি বেশি থাকায় সন্তান ধারণে অক্ষমতা বা বন্ধ্যাত্ব হয়ে থাকে।

গর্ভধারণে প্রতিবন্ধকতা:
গর্ভসঞ্চার বা গর্ভধারণের যে পদ্ধতি তা আপাতদৃষ্টিতে সরল মনে হলেও তা যে সবসময় ওই সরল পথে চলবে তা নয়। ব্যক্তির বয়স, জীবনযাত্রার ধরন শারীরিক সমস্যা ইত্যাদি প্রজনন অক্ষমতার কারণ হতে পারে। অরক্ষিত যৌনসঙ্গমে কেউ এক বছরের মধ্যেও গর্ভবতী হতে না পারলে তাকে প্রজনন অক্ষমতা বলে বিবেচনা করা যেতে পারে। প্রজনন অক্ষমতার জন্য স্বামী বা স্ত্রীর যে কোনো একজন অথবা উভয়েই দায়ী হতে পারেন। আবার কখনো কখনো কোনো কারণ নাও পাওয়া যেতে পারে। আপনি সন্তান উৎপাদনে সক্ষম কি না তা কয়েকটি প্রশ্নমালার উত্তর থেকে জানা যেতে পারে। চিকিৎসকের সহায়তার পাশাপাশি আপনি বা আপনার স্ত্রীর সন্তান না হওয়ার সম্ভাব্য কারণ বা সম্ভাব্য চিকিৎসা কৌশল নিয়ে ভাবতে পারেন। সন্তান না হওয়ার জন্য নিজেকে অপরাধী ভাববেন না বা একে অপরকে দোষারোপ করবেন না। এই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে একে অপরের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিন।
প্রশ্নগুলো হলো- যথেষ্ট সু¯’ শুক্র (ঝঢ়বৎস) আছে কি? নারীর ডিম্বকে নিষিক্ত করার জন্য একজন পুরুষকে অবশ্যই যথেষ্ট সক্রিয় এবং পরিণত শুক্র উৎপাদনে সক্ষম হতে হবে। ডিম্ব নিঃসৃত হয়েছে কি? ডিম্ব ও শুক্রের মিলনের জন্য ডিম্বাশয় থেকে একজন নারীর ডিম্ব নিয়মিত নিঃসৃত হওয়া আবশ্যক। শুক্র ও ডিম্ব মিলিত হতে পারছে কি? শুক্র ও ডিম্বের মিলনের জন্য উভয়কেই পুরুষ বা নারীর প্রজননতন্ত্রে বাধাহীনভাবে চলাফেরার সুযোগ থাকতে হবে। এদের চলার পথে যেন কোনো প্রতিবন্ধকতা না থাকে। ভ্রুণ কি প্রতিস্থাপিত হতে পারে? একটি ভ্রুণকে (ঊসনৎুড়) অবশ্যই জরায়ুতে প্রতিস্থাপিত হতে সক্ষম হতে হবে। বয়স কি প্রজননকে ব্যাহত করছে? ৩৫ বছর বয়সে নারীদের ডিম্বের সংখ্যা ও মান যথেষ্ট কমে যায়। ৪০ বছর বয়সে এই সমস্যা আরো বেড়ে যায়। এ কারণে একজন নারীর বয়স যদি ৩৫ বছরের বেশি হয় তাহলে তার কেন সন্তান হচ্ছে না তা মূল্যায়নে কখনো বিলম্বিত করা উচিৎ নয়। একজন পুরুষ সারা জীবন শুক্র উৎপাদন করতে পারে। সুতারং প্রজনন সমস্যায় পুরুষের বয়স কোনো বিষয় নয়। একটি শিশু ধারণের জন্য একজন নারীর ওভারি থেকে অবশ্যই একটি পরিপক্ক ডিম্বক নিঃসৃত হতে হবে। এই ডিম্বক তার ফেলোপিয়াল নালীতে সু¯’ শুক্রাণুর জন্য অপেক্ষা করে যৌনমিলনের সময় পুরুষ প্রায় ১০ মিলিয়ন পরিণত এবং স্বাভাবিকভাবে নগনক্ষম শুক্রাণু নিঃসৃত করে। এদের মধ্যে একটি শুক্রাণু ডিম্বানুকে নিষিক্ত করতে পারে। নিষিক্তকরনের পর ডিম্বানু গর্ভাশয়ে বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়। এই সময়ে গর্ভফুলের মাধ্যমে মায়ের শরীর থেকে পুষ্টি উপাদান সংগ্রহ করে এবং অন্যান্য জৈবিক ক্রিয়া সম্পাদন করে। কিন্তু পেলভিক সংক্রামণের কারণে ফেলোপিয়ান টিউব ক্ষতিগ্রস্ত হলে ডিম্বক নিষিক্তকরণ বা প্রতিস্থাপন সম্ভব নয়।

গর্ভসঞ্চারের সম্ভবনা বৃদ্ধির জন্য প্রাথমিক পদক্ষেপ:
আপনার বয়স, স্বাস্থ্য এবং কতদিন ধরে গর্ভসঞ্চারের চেষ্টা করছেন তার ওপর ভিত্তি করে চিকিৎসক আপনাদের গর্ভসঞ্চারের সম্ভাবনা বৃদ্ধির জন্য প্রথমে কিছু সাধারণ পদক্ষেপ গ্রহণের পরামর্শ দেবেন, যা ফলপ্রসূ হতে পারে। একজন নারীর উর্বর সময় (ঋবৎঃরষব ঃরসব) শনাক্তকরণের বহুবিধ পদ্ধতি রয়েছে। এ বিষয়ে আমরা এখন আলোচনা করছি। কিছু কিছু ক্ষেত্রে জীবনযাত্রার ধরণ পরিবর্তন অথবা স্বাস্থ্য বিষয়ক অভ্যাস বদলালে প্রজনন সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।

নির্ধারিত সময় হতে পারে মূল চাবিকাঠি:
ডিম্বক্ষরণ (ঙাঁষধঃরড়হ) হচ্ছে এ রকম কোনো নারীর দ্বারাই কেবল গর্ভধারণ করা সম্ভব, ডিম্বক্ষরণের ঠিক আগে বা ক্ষরণকালীন যৌনসঙ্গম গর্ভসঞ্চারের সর্বোত্তম সুযোগ সৃষ্টি করে। কিছু আলামত দেখে ডিম্বকরণের সময় চিহ্নিত করা যায়। এসব আলামতের মধ্যে আছে দেহের তাপমাত্রা বৃদ্ধি, গ্রীবাদেশীয় শ্লেষ্মার (ঈবৎারপধষ সঁপড়ঁং) পরিবর্তন এবং খঁঃবরহুরহম যড়ৎসড়হব বা খঐ-এর আকষ্মিক বৃদ্ধি।

১। দেহের তাপমাত্রা বৃদ্ধি:
হরমোনের মাত্রা বাড়ার কারণে দেহের স্বাভাবিক তাপমাত্রা (ইধংধষ নড়ফু ঃবসঢ়বৎধঃঁৎব) ডিম্বকরণের ঠিক আগে নেমে যায়। এই তাপমাত্রা আবার বেড়ে যায় ডিম্বকরণের ঠিক পরে। প্রজেস্টেরন (চৎড়মবংঃবৎড়হব) হরমোনের মাত্রা বেড়ে গেলে তাপমাত্রা নেমে যাওয়ার দিনটিতে অথবা তাপমাত্রা বৃদ্ধির পূর্বে স্ত্রীর সঙ্গে সঙ্গমের চেষ্টা করুন।

২। জরায়ুগ্রীবার শ্লেষ্মা পরিবর্তন:
জরায়ু গ্রীবার শ্লেষ্মা সাধারণভাবে ঘন ও ঘোলাটে থাকে। ডিম্বক্ষরণের পূর্বে অথবা ঋতুচক্রের নবম অথবা দশম দিনে এই শ্লেষ্মা পরিষ্কার এবং প্রসারণক্ষম হয়ে ওঠে যেন শুক্র ফেলোপিয়ান টিউবের পথে যাত্রা করতে পারে। শ্লেষ্মার এই পরিবর্তন আপনার চোখে ধরা পড়ার এক অথবা দু’দিনের মধ্যে যৌনমিলনের চেষ্টা করুন। অথবা শ্লেষ্মা পুনরায় ঘন না হওয়া পর্যন্ত একদিন অন্তর যৌনমিলন করুন।

সঠিক সময় সম্পর্কে কিছু পরামর্শ:
তাপমাত্রা সম্পর্কে সবচাইতে সঠিক তথ্য পাওয়ার জন্য বিদেশে মার্কারি থার্মোমিটার (এতে একশটি চার্টও থাকে) অথবা ডিজিটাল থার্মোমিটার ব্যবহার করা হয়। এছাড়া ডিম্বকরণ সম্পর্কে পূর্বাভাস প্রদানকারী যন্ত্রাদিও কিনতে পাওয়া যায়। আপনি যদি দেহের তাপমাত্রা দেখতে চান তাহলে সবসময় সকালে ঘুম থেকে ওঠে কোনো কাজ শুরু করার আগেই তাপমাত্রা নেবেন। আপনি যদি অসু¯’ থাকেন এবং রাতে অস্থির সময় কাটিয়ে থাকেন তবে তাপমাত্রার হেরফের হতে পারে। বিষয়টি চার্টে লিপিবদ্ধ করতে ভুলবেন না। যদি যৌনি থেকে বিন্দুপাতন (ঝঢ়ড়ঃঃরহম) অথবা অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণ হয় সেটাও লিপিবদ্ধ করুন এবং চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলুন। ডিম্বক্ষরণের সম্ভাব্য সময়কালে প্রতি একদিন অন্তর যৌনমিলনে সচেতন হোন।

যেসব ধরণ গর্ভধারনের প্রতিবন্ধকতা হতে পারে:
ধূমপানের কারণে নারীদের ইস্ট্রোজেনের মাত্রার পরিবর্তন এবং ডিম্বের উৎপাদন হ্রাস পেতে পারে। জরায়ু গ্রীবার শ্লেষ্মার নিকোটিনের উপস্থিতি শুক্রের জন্য বিষাক্ত হতে পারে। অন্যদিকে ধূমপানের কারণে পুরুষদের শুক্রের সংখ্যা কমে যায়, শুক্রের চলাচল ব্যাহত হয় এবং অস্বাভাবিক আকৃতির শুক্র তৈরি হয়।

মদ ও মাদক:
অতিরিক্ত মদ্যপানের ফলে শুক্রের সংখ্যা কমে যায় এবং অস্বাভাবিক শুক্র উৎপাদিত হয়। মাদক- যেমন মারিজুয়ানা এবং কোকেনের ব্যবহারে নারীদের হরমোন উৎপাদনে বিঘœ ঘটে এবং পুরুষের শুক্র উৎপাদন হ্রাস পায়।

অণ্ডকোষের তাপ:
পুরুষের অণ্ডকোষ সারাদেহের তাপমাত্রার তুলনায় কয়েক ডিগ্রি শীতল। অণ্ডকোষ যখন খুব বেশি গরম থাকে শুক্রের উৎপাদন হ্রাস পায়। বেশি তাপমাত্রা, প্যান্টি পরিধান ইত্যাদি অণ্ডকোষের তাপ বৃদ্ধি করতে এবং প্রজনন ক্ষমতা কমিয়ে দেয়।

ওজনের সমস্যা:
যেসব নারী বেশি স্থুলকায় (ঙাবৎবিরমযঃ) অথবা কম ওজনের, তারা প্রায়ই গর্ভধারণে সমস্যায় পড়েন। খুব বেশি অথবা খুব কম চর্বি হরমোন মাত্রাকে প্রভাবিত করে এবং ডিম্বক্ষরণে সমস্যা সৃষ্টি করে।

কঠোর ব্যায়াম:
ঘন ঘন কঠোর ব্যায়াম (যেমন প্রতিদিন লম্বা পথে দৌঁড়ানো) নারীদের হরমোন উৎপাদন কমিয়ে দিতে পারে। পুরুষদের ক্ষেত্রেও একই সমস্যা হতে পরে, নারীদের ক্ষেত্রে এ ধরনের কঠোর ব্যায়াম অনিয়মিত মাসিক অথবাড রজঃবদ্ধতার কারণ হতে পারে। এর ফলেও প্রজনন সমস্যা দেখা দিতে পারে।

অন্যান্য কারণ:
সন্তানধারণে সমস্যা সৃাষ্টি করছে এমন আরো কিছু কারণ নিয়ে চিকিৎসক আপনার সঙ্গে আলোচনা করতে পারেন। কিছু তৈলাক্ত পদার্থ শুক্রাণু জখম বা ধ্বংস করে ফেলতে পারে। কিছু ওষুধ সেবনের ফলে হ্রাস পেতে পারে শুক্রাণুর সংখ্যা। অনেক নারীর ক্ষেত্রে, উদ্বেগ ও অবসাদজনিত কারণে ডিম্বক্ষরণ বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

স্বাস্থ্য বিষয়ক পরামর্শ:
মনে রাখবেন আপনারা এককভাবেই কেবল এই সমস্যার শিকার নন। পৃথিবীতে আরো অসংখ্য দম্পতি আছে যারা স্বাভাবিকভাবে সন্তানের মাতৃত্ব বা পিতৃত্ব অর্জন করতে পারেননি। সুতারং চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে অন্যকোনো পদ্ধতিতে সন্তানের মা হতে চেষ্টা করুন। স্বামী-স্ত্রী উভয়ে মিলে যে সিদ্ধান্তই নিন না কেন তা আপনাদের পারিবারিক জীবনকে আনন্দময় করে তুলবে।


Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিবিধ

চিফ হিট অফিসার এর দায়িত্ব কি?

Avatar photo

Published

on

উইকিপিডিয়া অনুসারে, চিফ হিট অফিসার (Chief Heat Officer), বা সিএইচও (CHO) হলেন একজন পৌরসভার সেবক, যিনি চরম উচ্চ তাপদাহ মোকাবেলা এবং শহুরে তাপের প্রভাব হ্রাস করার বিষয়ে কাজ করেন। বেশিরভাগ প্রধান তাপ কর্মকর্তাদের শহর, দেশ এবং স্থানীয় সরকারের অন্যান্য কার্যালয় দ্বারা নিয়োগ করা হয়। ২০২০ এর সালের গোড়ার দিকে এই পদটির আবির্ভাব ঘটে। ওই বছর গরম জলবায়ুর বেশ কয়েকটি শহরে ছায়া বৃদ্ধি, শীতলকরণ কেন্দ্রের ব্যবস্থা , গাছ লাগানো এবং তাপ-বিরোধী কাজের সমন্বয়ের মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনের ক্রমবর্ধমান প্রভাব প্রশমিত করার চেষ্টা করার জন্য প্রধান তাপ কর্মকর্তা নিয়োগ করে। এর মধ্যে লস অ্যাঞ্জেলেস, মিয়ামি-ডেড কাউন্টি, মেলবোর্ন, এথেন্স এবং ফ্রিটাউনে প্রাথমিক হিট অফিসার পদ তৈরি করা হয়েছিল। পদটি তৈরির উদ্যোগটি আটলান্টিক কাউন্সিল দ্বারা সংগঠিত হয়েছিল অ্যাড্রিয়েন আর্শট – রকফেলার ফাউন্ডেশনের রিজিলিয়েন্স সেন্টারে।

Continue Reading

বিবিধ

সিদ্দিক বাজার বিস্ফোরণ ২০২৩

Avatar photo

Published

on

সিদ্দিক বাজার দুর্ঘটনা ২০২৩

২০২৩ সালের ৭ মার্চ ঢাকার সিদ্দিক বাজারের একটি ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এই দুর্ঘটনায় ১৬ জন মানুষের মৃত্যু হয়। আহত হয় শতাধিক ব্যাক্তি। বিস্ফোরণে পাশাপাশি দুটি বহুতল ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একটি ভবন সাততলা এবং আরেকটি ভবন পাঁচতলা। এর মধ্যে সাততলা ভবনের বেসমেন্ট, প্রথম ও দ্বিতীয় তলা বিধ্বস্ত হয়। আর পাঁচতলা ভবনের নিচতলাও বিধ্বস্ত হয়। এই ভবনের দ্বিতীয় থেকে পঞ্চম তলা পর্যন্ত ব্র্যাক ব্যাংকের কার্যালয়। বিস্ফোরণের পর ভবনটিকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানান রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যান মো. আনিছুর রহমান মিঞা। ওই ভবনে গ্যাসের লাইনের ছিদ্র থেকে গ্যাস জমেছিল। সেটা থেকে বিস্ফোরণ হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।[1][2][3]

ঘটনা প্রবাহ-
৭ মার্চ ২০২৩ মঙ্গলবার বিকাল ৪টা ৫০ মিনিটের দিকে নর্থ সাউথ রোডের ১৮০/১ হোল্ডিংয়ে ওই সাত তলা ভবনে বিস্ফোরণ ঘটে। ভবনটি গুলিস্তানে বিআরটিসির বাস কাউন্টারের পাশে। বিস্ফোরণের পরপরই চারপাশ ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। বিকট আওয়াজে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে আশেপাশে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা এসে উদ্ধারকাজ শুরু করেন। একে একে বাড়তে থাকে ইউনিটের সংখ্যা। সাথে যোগ দেন স্থানীয়রাও। ফায়ারসার্ভিসের মোট ১১টি ইউনিট এসে উদ্ধার কাজ চালায়।[4]

প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায় গুলিস্তানের বিস্ফোরণ-
ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মো. শাহজালাল বলেন, বিকাল সাড়ে চারটার দিকে হঠাৎ বিকট একটি শব্দ হয়। এসে দেখি মানুষ পড়ে আছে, চিল্লাচিল্লি করছে। লোহার গেট, ভবনের দেওয়াল ভেঙে রাস্তায় পড়েছে। একটা বাস ওই ভবনের সামনে ছিল। বাসের যাত্রীদের অনেকেই আহত হয়েছেন। কয়েকজন গুরুতর আহত হয়েছেন। [2]

স্থানীয় একটি দোকানের কর্মচারী সম্রাট ঘটনার বিবরণ দিয়ে বলেন, ‘কস্তুরী হোটেল থেকে খাবার খেয়ে আমি মাত্র বের হয়েছি। তারপরই বিকট শব্দে ধোঁয়া শুরু হয়। ১০০ জনের ওপরে মানুষ আহত হয়েছে। মনে হয় ফিল্ম দেখতাছিলাম। মানুষ উইড়া উইড়া যাচ্ছে চারদিকে। ওপর থেকে যখন গ্লাসগুলো আসতেছে, তখন মনে হয় শুটিংয়ে যেভাবে মানুষের শরীরে ঢুকে যায়, ঠিক সে রকম পরিস্থিতি দেখছিলাম।’[2]

বিস্ফোরণ থেকে বেঁচে গেছেন ওই ভবনটির নিচতলার বাদশা ট্রেডিংয়ের শ্রমিক আনোয়ার হোসেন। তার ভাষ্য, দোকানের ম্যানেজার কথায় চা আনতে বাইরে গিয়েছিলেন তিনি। হঠাৎ বিস্ফোরণে বিকট আওয়াজে তিনি চেতনা হারান। বিস্ফোরণের আগে দোকানের ভেতরে অন্তত তিনজন ছিলেন এবং দোকানের বাইরে ছিলেন স্যানিটারি দোকানের ৭-৮ জন শ্রমিক। চেতনা ফেরার পর দোকানের বাইরে থাকা শ্রমিকদের হাসপাতালে নিতে দেখলেও ভেতরে থাকা মহাজন ও বাকিদের বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানান বাদশা।[4]

ওই ভবনের সামনে রাস্তার ওপর ভ্যানে করে বেল বিক্রি করছিলেন দিলীপ দাস। বিস্ফোরণে তিনিও আহত হয়েছেন। দিলীপ বলেন, বিস্ফোরণের সঙ্গে সঙ্গে ধোঁয়ায় অন্ধকার হয়ে যায় আশপাশের এলাকা। পথচারীদের ওপর বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে পড়তে দেখেছেন তিনি। বিস্ফোরণে তার এক ক্রেতাও আহত হয়েছেন।[4]

আরেক প্রত্যক্ষদর্শী সামনের বিল্ডিংয়ে থাকা প্রত্যক্ষদর্শীদের একজন বলেন, আমি প্যান্ট পড়তেছিলাম, শব্দ শুনে এসে দেখি সব ধোঁয়া ধোঁয়া, সব অন্ধকার।[5]

ঘটনার পর বিস্ফোরণ হওয়া ভবনের বিপরীতে সামনের বিল্ডিংয়ে থাকা একজন প্রতিক্রিয়ায় বলেন, বিকট শব্দ শুনে অফিস থেকে বাইরে এসে দেখি সব অন্ধকার। অনেক মানুষ আহত অবস্থায় পড়ে রয়েছেন। অনেকে মারাও গেছেন। পরে আমরা ধরাধরি করে ৫-৬ জনকে একটি পিকআপে তুলে দিয়েছি। তাদের মেডিকেলে নিয়ে গেছে।[5]

অপর একজন বলেন, আমি প্যান্ট পড়তেছিলাম, শব্দ শুনে এসে দেখি সব অন্ধকার। চারিদিকে রক্ত আর রক্ত।[5]

Page Source : সিদ্দিক বাজার বিস্ফোরণ ২০২৩

Continue Reading

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম নিয়ে যেভাবে সতর্ক থাকবেন

Avatar photo

Published

on

টেক এক্সপ্রেস ডেস্ক:
গত ২০ বছর ধরে ইন্টারনেট ব্যবহারের পরিমাণ বেড়েছে, একইসঙ্গে বিকাশ ঘটেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের। বিনোদনের অংশ হিসেবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ব্যবহার শুরু হলেও, বিগত এক দশকেরও বেশি সময়ে এটি বিনোদনকে ছাড়িয়ে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই জায়গা করে নিয়েছে। বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি ছড়িয়ে পড়ার পর মানুষ ব্যাপক হারে ডিজিটাল যোগাযোগ প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করতে শুরু করে; ফলে, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে নিরাপত্তা বিষয়ক উদ্বেগের পরিমাণও বেড়ে যায়।

বিভিন্ন সংবাদ প্রতিবেদনের মাধ্যমে জানা যায়, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের ব্যবহার ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে সাইবার অপরাধের পরিমাণও বেড়েছে আনুপাতিক হারে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ডিজিটাল যোগাযোগ প্ল্যাটফর্মগুলো সক্রিয়ভাবে এসব অপরাধীদের শনাক্ত করতে কাজ করছে এবং নিরাপদ ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম গড়ে তুলতে সুরক্ষা ব্যবস্থা আরও শক্তিশালী করছে।

তবে, বর্তমান হাইপার-কানেক্টেড ও সবসময় অনলাইনে সংযুক্ত থাকা বিশ্বে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা অনেক চ্যালেঞ্জিং একটি বিষয়। আজকাল অপরাধীরা বিভিন্নভাবে তরুণদের প্রলুব্ধ করে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করে এবং দুর্ভাগ্যবশত অনেক তরুণরাই অপরাধীদের এসব ফাঁদে পা দিয়ে প্রায়শই দুর্ভাগ্যজনক পরিণতির সম্মুখীন হয়। তাই, ব্যবহারকারীদের জন্য অপরিহার্য হচ্ছে তারা যেন কোনো অপরিচিত অ্যাকাউন্টের ব্যাক্তির সাথে যোগাযোগ না করে এবং ব্যক্তিগত কোনো তথ্য শেয়ার না করে। পাশাপাশি, ব্যবহারকারীদের অবশ্যই কমিউনিটি গাইডলাইন বা ডিজিটাল যোগাযোগ প্ল্যাটফর্মের গোপনীয়তা নীতিগুলো ভালোভাবে পড়ে, মেনে চলতে হবে। কমিউনিটি গাইডলাইন হচ্ছে ব্যবহারকারীদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য এসব ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলোর প্রথম প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। যেহেতু, সবার সাথে কানেক্টেড থাকার জন্য ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলো চমৎকার একটি উপায়, তাই আমাদের উচিত এ প্ল্যাটফর্মগুলো নিরাপত্তা নিশ্চিতে কী কী ব্যবস্থা রেখেছে সে সম্পর্কে অবহিত থাকা।

ডিজিটাল মাধ্যমগুলো ব্যবহারের সময় আমাদের উচিত শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা এবং ওটিপি (ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড) কারো সঙ্গে শেয়ার না করা। হ্যাকাররা পাসওয়ার্ড বা ওটিপি পেয়ে গেলে যে কারো অ্যাকাউন্টের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিতে পারে এবং অপরাধমূলক কাজে ব্যবহার করতে পারে। সম্প্রতি, ইমো’র মতো প্ল্যাটফর্ম ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা বাড়াতে ফ্ল্যাশ কল ফিচার চালু করেছে। নিজের অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখতে সবসময় আপনার অ্যাকাউন্ট আর অন্য কোনো ডিভাইসে লগ-ইন করা আছে কিনা তা চেক করুন; উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, আপনি আপনার ব্যবহৃত অ্যাপের সেটিং অপশনে গিয়ে ‘ম্যানেজ ডিভাইস’ অপশনে ক্লিক করে আপনার অ্যাকাউন্ট আর অন্য কোনো ডিভাইসে লগ-ইন করা আছে কিনা তা দেখতে পারেন (দেখে আপনার ডিভাইস ছাড়া অন্য সব ডিভাইস থেকে অ্যাকাউন্ট সাইন আউট করে ফেলুন)। ইতোমধ্যে, এমন একটি প্রবণতা দেখা যাচ্ছে যে, অপরাধীরা ব্যবহারকারীদের ফোন দিয়ে নিকট আত্মীয়ের ভান করে টাকা চায় এবং ভুক্তভোগীদেরকে বিপদে ফেলে। তাই, এ ধরণের বিষয়ে পুনরায় সেই আত্মীয়কে ফোন দিয়ে বা অন্য কোনো মাধ্যমে নিশ্চিত হয়ে নেয়া উচিত বা যাচাই করে নেওয়া উচিত যে আসলেই ফোনকারী আত্মীয় কিনা। দুর্ঘটনার বিষয়ে কোনো ফোনকল পেলে প্রথমেই সত্যতা যাচাই করে নিবেন যে সে ঘটনা ঘটেছে কিনা। কেউ যদি কোনো দুর্ঘটনা সম্পর্কে জানানোর জন্য আপনাকে কল করে, তাহলে আপনার আত্মীয় বা পরিচিতদের কল করে ঘটনাটি যাচাই করার চেষ্টা করুন এবং খবরটি বিশ্বাসযোগ্য কিনা তা পরীক্ষা করুন।

এ সম্পর্কে জনপ্রিয় তাৎক্ষণিক ডিজিটাল যোগাযোগ মাধ্যম ইমো’র প্রোডাক্ট ডিরেক্টর গেরেট বলেন, ‘ডিজিটাল প্রযুক্তি বিকশিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চমৎকার সুবিধার পাশাপাশি সতর্ক না থাকলে কিছু সমস্যারও সম্মুখীন হতে হয়। এ বাস্তবতাকে বিবেচনায় রেখে ইমোতে আমরা ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দিয়ে এ সমস্যা মোকাবেলায় প্রতিনিয়ত ব্যবস্থা নিয়ে যাচ্ছি। আমরা ইতোমধ্যেই জালিয়াতি বিরোধী এবং নিরাপত্তা বিষয়ক বিভিন্ন পদ্ধতি চালু করেছি, যেমন এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপশন সহ “সিক্রেট চ্যাট” ফিচার যা ব্যাবহারকারীদের তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে। এছাড়াও আমরা ব্যাবহারকারীদের আমাদের কমিউনিটি গাইডলাইন মেনে চলার ব্যাপারে উৎসাহিত করছি এবং ব্যবহারের সুবিধা গ্রহণের সময় নিরাপদ থেকে সর্বোচ্চ সুবিধা আদায়ের উপায় সম্পর্কে ব্যবহারকারীদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করছি। বিভিন্ন খাতের অন্যান্য অনেক ব্র্যান্ডও এমন ব্যবস্থা নিচ্ছে দেখে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত”।

আমাদেরকে বিচক্ষণতার সঙ্গে দুরদর্শী চিন্তার মাধ্যমে সোশ্যাল মিডিয়া ও ডিজিটাল কমিউনিকেশন প্ল্যাটফর্মগুলোর উপকারিতা ও সুবিধাগুলো বুঝতে হবে এবং এর মাধ্যমে সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত বিরূপ প্রভাব প্রতিরোধ করতে হবে। সুস্থধারার অনলাইন পরিবেশ বজায় রাখতে বাবা-মা, অভিভাবক ও শিক্ষকদের উচিত শিশু ও তরুণদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ও কথাবার্তা বজায় রাখা। পাশাপাশি, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলোর উচিত ব্যবহারকারীদের জন্য সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, যাতে তারা শঙ্কিত না হয়ে তাদের কার্যক্রমের সাথে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে এবং পরিবর্তিত সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারে। আমাদেরকে এসব বিষয়ে আরো জানতে হবে এবং সচেতন হতে হবে এবং সেই অনুযায়ী এগিয়ে যেতে হবে।

Continue Reading