Connect with us

চট্টগ্রাম বিভাগ

হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম কাবাডি টুর্নামেন্ট-২০২৩ এর ফাইনাল অনুষ্ঠিত

Avatar photo

Published

on

বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নোয়াখালীতে হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম কাবাডি টুর্নামেন্ট ২০২৩ এর ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে উজ্জ্বল স্পোর্টিং ক্লাব। রানার আপ হয় লাকসাম আবু উবায়দা স্পোটিং ক্লাব।

রবিবার (২৪ ডিসেম্বর) বিকালে সোনাইমুড়ী উপজেলার চাষীরহাট নুরুল হক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়। খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

হেযবুত তওহীদের কেন্দ্রীয় কমিটির ক্রীড়া সম্পাদক রিয়াল তালুকদার এর সঞ্চালনায় হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম কাবাডি টুর্নামেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এনামুল হক বাপ্পার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম বলেন, যে কোনো জাতির উন্নতি, অগ্রগতির পেছনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ঐ জাতির তরুণ সমাজ। অথচ আমাদের তরুণ সমাজ মাদক, জঙ্গিবাদী আদর্শ, অপরাজনীতি, ডিভাইস আসক্তিসহ বিভিন্নভাবে বিপথে পরিচালিত হচ্ছে, স্বার্থবাদী অপরাজনীতির হাতিয়ার হয়ে নিজেদের জীবন হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে। এ সকল ষড়যন্ত্রের হাত থেকে যদি জাতিকে রক্ষা করতে হয় তাহলে তরুণদের জন্য সুস্থ বিনোদন ও খেলাধুলার ব্যবস্থা করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আমাদের শরীর ও মন গঠনে খেলাধুলার বিকল্প নেই। তাই আমাদের তরুণ সমাজকে যাবতীয় ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড থেকে বিরত রাখতে, তাদের মধ্যে গতিশীলতা, ভ্রাতৃত্ববোধ সৃষ্টি করে সুস্থ জাতি গঠনের লক্ষ্যে এই কাবাডি টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছে । এর মাধ্যমে আমাদের জাতীয় খেলা কাবাডির ব্যাপারে তরুণরা উৎসাহিত হবে, তরুণ সমাজ মাদক, ইভটিজিং, অপরাজনীতি থেকে বিরত থাকবে। তবে খেলাধুলায় যেন অসুস্থ প্রতিযোগিতা, রেষারেষি না থাকে, সকলের প্রতি সেদিকে লক্ষ্য রাখার আহ্বান জানান হেযবুত তওহীদের এই নেতা।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তওহীদ কাবাডি দলের চেয়ারম্যান এসএম সামছুল হুদা, ইলদ্রিম মিডিয়ার চেয়ারম্যান খাদিজা খাতুন, তিতাস গ্যাস লিমিটেডের প্রাক্তন উপ মহাব্যবস্থাপক আয়শা সিদ্দিকা, টুর্নামেন্ট আয়োজন কমিটির প্রধান উপদেষ্টা নিজাম উদ্দিন, চাষীরাট উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক মো. মহিউদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা মেহরাব হোসেন ভুট্টু, আবুল কাশেম মেম্বার, শাহাদাত হোসেন রাসেল, আলমগীর হোসেন মেম্বার প্রমুখ।

৯ নভেম্বর ৩২ টি দলের অংশগ্রহণে হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম কাবাডি টুর্নামেন্টের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়।

দীর্ঘ দেড় মাস যাবৎ সুশৃংখলভাবে উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে প্রথম রাউন্ড, দ্বিতীয় রাউন্ড, কোয়ার্টার ফাইনাল, সেমিফাইনাল ও ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিটি দলের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করেন মেকদাদ এন্ড মেহরাদ স্পোর্টিং ক্লাব।

ফাইনাল খেলায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে উজ্জ্বল স্পোর্টিং ক্লাব। রানার আপ হয় লাকসাম আবু উবায়দা স্পোটিং ক্লাব।

খেলা শেষে খেলা পরিচালনা পরিষদের সদস্যদেরকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান, সেরা রেডার, সেরা ডিফেনডার, ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ ও বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন অনুষ্ঠানে আগত অতিথিবৃন্দ।

দীর্ঘ দেড় মাস ধরে চলমান টুর্নামেন্টে ৬৪ টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই প্রতিটি খেলা অত্যন্ত সুশৃংখল ও শান্তিপূর্ণ উপায়ে সমাপ্ত হওয়ায় অনুষ্ঠানে আগত অতিথি ও ক্রিয়া প্রেমী দর্শকগণ সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানান।

উল্লেখ্য, যুবসমাজকে মাদক, সন্ত্রাস, অপরাজনীতি ইত্যাদি থেকে মুক্ত রেখে একটি আলোকিত ও সুস্থ জীবন উপহার দেওয়ার জন্য নিরলসভাবে পরিশ্রম করে চলেছেন হেযবুত তওহীদের মাননীয় এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম। প্রতিবছরই ফুটবল, কাবাডি, ব্যাটমিন্টনসহ বিভিন্ন ধরনের দেশীয় টুর্নামেন্টের আয়োজন করে আসছেন তিনি। এরই অংশ হিসেবে তাঁর নিজ এলাকা নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার পোরকরা গ্রামে ‘হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম কাবাডি টুর্নামেন্ট -২০২৩’ এর আয়োজন করা হয়।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চট্টগ্রাম বিভাগ

প্রবাসীর স্ত্রীকে চড়থাপ্পড়: হামলার শিকার নারী কাউন্সিলর

Avatar photo

Published

on

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:
লক্ষ্মীপুর পৌরসভার নারী কাউন্সিলর রাহিমা বেগমের বিরুদ্ধে সালিসি বৈঠকে ডেকে নিয়ে পারভীন বেগম নামে এক প্রবাসীর স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। পরে কাউন্সিলর নিজেই হামলার শিকার হন। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলার ঘটনাও ঘটেছে।

শুক্রবার (১২ মে) সন্ধ্যায় লক্ষ্মীপুর পৌরসভার (১৫ নম্বর ওয়ার্ড) পশ্চিম লক্ষ্মীপুর এলাকার ফারুক ড্রাইভারের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করে থানা হেফাজতে রেখেছে পুলিশ। আহত রাহিমা ও পারভীন সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

আটকরা হলেন- দালাল বাজার ডিগ্রি কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্র ফারদিন ইয়াসিন অনিক, লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্র মেহেদী হাসান ও নিশাদ।

রাহিমা লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও পশ্চিম লক্ষ্মীপুর এলাকার বাবরের স্ত্রী। আহত পারভীনের পশ্চিম লক্ষ্মীপুর এলাকার আবুধাবি প্রবাসী ফারুক হোসেনের স্ত্রী।

আহত পারভীনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রায় ১৭-১৮ দিন আগে পাশ্ববর্তী এক নারীর সঙ্গে পারভীনের ঝগড়া হয়। ওই নারী কাউন্সিলর রাহিমার কাছে বিচার দেয়। এতে হঠাৎ করে শুক্রবার সন্ধ্যায় রাহিমা তাকে লিপি নামে এক নারীকে দিয়ে সালিসের কথা বলে ডেকে নেয়। কিন্তু এর আগে সালিসি বৈঠকের বিষয়ে তিনি কিছুই জানতেন না। লিপির বাসায় গেলে ছেলে ও ভাগিনাসহ পারভীনকে একটি কক্ষে ঢুকিয়ে দরজা আটকে দেওয়া হয়। পরে বিভিন্ন কথা নিয়ে রাহিমা ক্ষিপ্ত হয়ে ছেলে ও ভাগিনার সামনেই তাকে চড়-থাপ্পড় দেয়। একপর্যায়ে দেওয়ালের সঙ্গে পারভিনের মাথায় সজোরে আঘাত করে রাহিমা। এটি সহ্য করতে না পেরে পারভীনের ছেলে ফারদিন ইয়াসিন অনিক ও ভাগিনা মেহেদি হাসান বাধা দেয়। এনিয়ে ঘটনাস্থলে হাতাহাতি হয়। পরে রাহিমা ফোন দিয়ে লোকজন নিয়ে এসে ফের পারভীন, তার ছেলে ও ভাগিনাকে মারধর করায়। এতে বাধা দিতে গেলে পারভীনের বাবা কফিল উদ্দিন, ভাই পারভেজ হোসেন, বোন লিপি আক্তারকেও মারধর করেছে রাহিমার লোকজন।

রাহিমার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এক নারীর সঙ্গে ঝগড়ার ঘটনায় পারভীনকে ডেকে বিষয়টি মীমাংসা করে দেওয়া হয়েছে। এরপরই পারভীনের লোকজন এসে রাহিমার ওপর হামলা করে। এতে পারভীন মাথায় আঘাত পায়। বর্তমানে তিনি সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসলেহ উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। তদন্ত করে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মারামারির ঘটনায় দু’জন নারী হাসাপাতালে ভর্তি আছেন।

লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশ সুপার মাহফুজ্জামান আশরাফ জানান, ঘটনাটি শুনেছি। এ ঘটনায় বিস্তর তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ওসিকে বলা হয়েছে।

Continue Reading

চট্টগ্রাম বিভাগ

সোনাইমুড়ীতে ব্যবসায়ীর ছিনতাইকৃত কাঁচামাল বিক্রির টাকাসহ আটক ২

Avatar photo

Published

on

সোনাইমুড়ী থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ব্যবসায়ীর ছিনতাইকৃত সবজি বিক্রির এক লাখ টাকা ও ছিনতাইকৃত ট্রাকসহ চক্রের দুই সদস্য আটক করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো- লক্ষ্মীপুরের রামগতি থানার ওয়াহিন উদ্দিন (৩০) ও রুবেল (৪০)।

গতকাল সোমবার সকালের দিকে চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার (২১ মার্চ) বিকেলে আসামিদের নোয়াখালী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়।

জানা যায়, গত ১৮ মার্চ কাঁচামাল ব্যবসায়ী মনির উদ্দিন (৪৫) লক্ষীপুরের রামগতি থানা এলাকার বিভিন্ন চাষীদের নিকট হইতে ১০ টন ঢেঁড়শ ক্রয় করে ট্রাকে করে ঢাকায় নিয়ে আসছিলেন। পথিমধ্যে বিকাল অনুমান সাড়ে ৫টার দিকে বোঝাইকৃত ট্রাকটি নিয়ে সোনাইমুড়ীর বগাদিয়া সাকিনস্থ চেরাং বাড়ীর সামনে পৌঁছলে তাদের পথরোধ করে ছিনতাইকারী চক্রটি। ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যরা অস্ত্র দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে সবজি বোঝাই ট্রাক, নগদ টাকা, দুটি স্মার্টফোন নিয়ে যায়। এসময় চক্রটি তাদেরকে সিএনজিতে উঠাইয়া অজ্ঞাত স্থানে নিয়া হাত পা বেধে ফেলে চলে যায়।

সোনাইমুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ জিয়াউল হক জানান, ব্যবসায়ী মনির উদ্দিন সোনাইমুড়ী থানায় অভিযোগ দিলে ট্রাক ও মালামাল উদ্ধারে নামে পুলিশ। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় চক্রটির অবস্থান শনাক্ত করে চট্টগ্রাম এর কোতোয়ালী থানা এলাকায় আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় কোতোয়ালি থানা পুলিশের সহযোগীতায় ০২ জন ডাকাতকে আটক করে। তাদের দেয়া স্বীকারোক্তি মোতাবেক ঢেঁড়শ বিক্রির এক লাখ ৪৬ হাজার টাকা এবং ছিনতাইকৃত ট্রাকটি উদ্ধার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

মঙ্গলবার (২১ মার্চ) বিকেলে আসামিদের নোয়াখালী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে বলেও জানান সোনাইমুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ জিয়াউল হক।

Continue Reading

চট্টগ্রাম বিভাগ

হেযবুত তওহীদ কর্মীদের মারধর: ক্ষমা চেয়ে আপোষ করলো চরমোনাই অনুসারীরা

Avatar photo

Published

on

ভ্রাম্যমাণ সংবাদদাতা:
চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ বাজারে অন্যায়ভাবে হেযবুত তওহীদ কর্মীদেরকে মারধর করার ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছে চরমোনাই অনুসারীরা। ভবিষ্যতে এমন কাজ আর করবে না বলে ক্ষমা চেয়ে একটি আপোষ মীমাংসাপত্রে স্বাক্ষর করে তারা।

রবিবার (২০ মার্চ) সন্ধ্যায় হাজীগঞ্জ থানার গোলঘরে একটি শালিস বৈঠকে চরমোনাই অনুসারীরা ক্ষমা চেয়ে আপোষ মীমাংসায় স্বাক্ষর করেন।

হেযবুত তওহীদের কর্মী মোহাম্মদ রাসেল মিঠু ও গোলাম রাব্বানি রাসেল জানান, আমরা মোটর মেকানিক হিসেবে হাজীগঞ্জ বাজারের পাইলট স্কুলের সামনে একটি দোকানে কাজ করি। গত ৯ মার্চ বাদ-মাগরিব চরমোনাই অনুসারী মাদ্রাসার ছাত্র রিফাত, হৃদয়, সিয়ামসহ ১০-১২ জনের একটি দল হেযবুত তওহীদ সম্পর্কে অহেতুক বিভিন্ন মিথ্যা বানোয়াট কথা তুলে ধরে অতর্কিত হামলা চালিয়ে আমাদেরকে মারধর করে। এ ঘটনায় আমরা হাজীগঞ্জ থানায় অভিযোগ করলে রবিবার সন্ধ্যায় এসআই মো. আজিজুর রহমান উভয় পক্ষকে ডেকে থানার গোল ঘরে একটি শালিস বৈঠকের মাধ্যমে চরমোনাই অনুসারীরা ক্ষমা চাইলে আমরা আপোষ মীমাংসা হই।

শালিস বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, হাজীগঞ্জ পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজী কবির হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা কাজী মিঠু, কাজী বিল্লাল হোসেন সহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

হেযবুত তওহীদের চাঁদপুর জেলা সভাপতি মোঃ মঈন উদ্দীন জানান, আমাদের আন্দোলনটি একটি অরাজনৈতিক। দীর্ঘ ২৮ বছর থেকে সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ, ধর্ম নিয়ে অপরাজনীতি, ধর্ম ব্যবসার বিরুদ্ধে প্রকৃত ইসলামের আদর্শ তুলে ধরে গণসচেতনতার লক্ষে সারাদেশে হাজার হাজার সভা, সমাবেশ, সেমিনার, শান্তিপূর্ণভাবে চালিয়ে যাচ্ছে। আমাদের এ আদর্শিক আন্দোলনের বিরুদ্ধে একটি ধর্মান্ধ স্বার্থান্বেষী মহল বিভিন্ন গুজব-হুজুগ রটিয়ে আমাদেরকে হয়রানি সহ ধর্মপ্রাণ সাধারণ মানুষের মাঝে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে আসছে। ওইদিন হাজীগঞ্জ বাজারেও আমাদের কর্মীদেরকে মারধরের ঘটনা ঘটায়। ধর্ম এসেছে মানবতার জন্য। আমরা সে মানবতার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি।

হাজীগঞ্জ থানার এসআই মো. আজিজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, চরমোনাই অনুসারীরা ভবিষ্যতে এমন কাজ আর করবে না বলে ক্ষমা চেয়ে একটি আপোষ মিমাংসাপত্রে স্বাক্ষর করেছে।

Continue Reading