নতুন প্রজন্মের মধ্যে নৈতিক মূল্যবোধ জগ্রত করতে হবে- শিক্ষামন্ত্রী

0

nurul_islam_nahidনোয়াখালী প্রতিনিধি:
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, আমরা নতুন প্রজন্মকে বিশ্বমানের শিক্ষা, জ্ঞান ও প্রযুক্তিতে দক্ষ মানবস¤পদ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। সেই সঙ্গে চাই নতুন প্রজন্মের মধ্যে নৈতিক মূল্যবোধের জাগরণ। সততা, নিষ্ঠা, জনগণের প্রতি শ্রদ্ধা ও দায়িত্বশীল এবং দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ পরিপূর্ণ মানুষ তৈরি করাই আমাদের লক্ষ্য। তিনি গতকাল দুপুরে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর মো. আবদুল হামিদের মনোনীত প্রতিনিধি হিসেবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
এ সময় মন্ত্রী আরো বলেন, আমরা প্রচলিত ও গতানুগতিক শিক্ষাব্যবস্থার মৌলিক পরিবর্তন করে গুণগতভাবে এক নতুন শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আমরা আমাদের নতুন প্রজন্মের জন্য চাই আধুনিক যুগের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ বিশ্বমানের শিক্ষা। তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষার মূল লক্ষ্য হচ্ছে- নতুন প্রজন্মকে আধুনিক বাংলাদেশের নির্মাতা হিসাবে প্রস্তুত করা। শিক্ষা ব্যবস্থার গুণগত পরিবর্তন করে সবার জন্য আধুনিক মানসম্মত যুগোপযোগী শিক্ষা নিশ্চিত করতে বদ্ধ পরিকর। তিনি আরো বলেন, উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্য হলো বিশ্বমানের জ্ঞানচর্চা গবেষণা নতুন নতুন জ্ঞান উদ্ভাবন ও সঞ্চারণের মাধ্যমে জ্ঞান ও দক্ষতার পরিপূর্ণ মানবস¤পদ গড়ে তোলা। একইভাবে দেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক অগ্রগতি সাধনের জন্য শিক্ষাকে সৃজনধর্মী প্রয়োগমুখী উৎপাদন সহায়ক করে তোলা। শিক্ষার্থীদের বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গিস¤পূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা এবং তাদের মধ্যে নেতৃত্বে বিকাশে সহায়তা করা। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে এক শোভাযাত্রা নিয়ে অনুষ্ঠান স্থলে যোগদান করেন শিক্ষামন্ত্রীসহ অতিথিরা। অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রথম সমাবর্তনের উদ্বোধন ঘোষণা করেন শিক্ষামন্ত্রী। সমাবর্তনে চারটি বিভাগের আটজন ছাত্র-ছাত্রীকে চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক ও তিনজন ছাত্র-ছাত্রীকে ভাইস চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। এছাড়া ৭১১ জন গ্রাজুয়েটদের মাঝে সনদ বিতরণ করা হয়। সমাবর্তনে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, নোয়াখালী জেলা প্রশাসক বদরে মুনির ফেরদৌস, পুলিশ সুপার ইলিয়াস শরীফ, জেলা আওয়ামী লীগ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যক্ষ খাইরুল আনম সেলিম, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহিন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও স্থানীয় সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

Leave A Reply