Connect with us

জাতীয়

জঙ্গিবাদে সাবেক সেনারা জড়িত হওয়ায় দুর্ভাবনা

Avatar photo

Published

on

gulshan hamlaগুলশানে জঙ্গী-বিরোধী অভিযানের পর বেরিয়ে আসছেন সেনাবাহিনীর একটি দল।

বিডিপি ডেস্ক: ঢাকার রূপনগরে শুক্রবার রাতে পুলিশের জঙ্গি বিরোধী অভিযানে নিহত ব্যক্তি সেনাবাহিনীর সাবেক একজন মেজর বলে নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশের আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর।
সংস্থার একজন কর্মকর্তা বিবিসিকে জানিয়েছেন, নিহত মেজর জাহিদুল ইসলাম গত বছর সেনাবাহিনী থেকে স্বেচ্ছায় অবসরে যান। এর আগে সেনাবাহিনীর আরেকজন চাকুরীচ্যুত মেজর জিয়াউল হককে জঙ্গি কার্যক্রমের পরিকল্পনাকারী হিসেবে বর্ণনা করেছে পুলিশ।
বাংলাদেশে বিভিন্ন সময় জঙ্গি হামলাগুলোর ধরন পর্যালোচনা করে কোন কোন বিশ্লেষক অনেকদিন ধরেই বলে আসছিলেন যে এগুলোর সাথে সামরিক কায়দায় প্রশিক্ষিত ব্যক্তির সম্পৃক্ততা থাকতে পারে। সর্বশেষ ঢাকার রূপনগরে পুলিশের ‘অভিযানে নিহত’ ব্যক্তি সেনাবাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত মেজর বলে জানা যাচ্ছে।
নিহত সেই ব্যক্তিকে প্রথমে পুলিশের দিক থেকে ‘মেজর মুরাদ’ নামে সনাক্ত করা হলেো পরবর্তীকালে জানা যায়, তার নাম জাহিদুল ইসলাম এবং গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায়। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, নিহত ব্যক্তি বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমির ৪৩ লং কোর্সে প্রশিক্ষণ শেষে ২০০০ সালে কমিশন লাভ করেন।
বাংলাদেশের আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের পরিচালক লে. কর্ণেল মোহাম্মদ রাশিদুল হাসান বিবিসিকে জানিয়েছেন, নিহত ব্যক্তি জাহিদুল ইসলামের পারিবারিক ঠিকানা এবং যেসব তথ্য সংবাদ মাধ্যমে এসছে সেগুলো সঠিক। গত বছর মেজর জাহিদুল ইসলাম পারিবারিক কারণ দেখিয়ে সেনাবাহিনী থেকে স্বেচ্ছায় অবসরে যান।

g h 2সেনাবাহিনীর সাবেক দুই কর্মকর্তার জঙ্গি কার্যক্রমে সংশ্লিস্টতা অনেককে ভাবিয়ে তুলেছে।

এর আগে সেনাবাহিনীর আরেকজন চাকুরীচ্যুত মেজর জিয়াউল হককে জঙ্গি কার্যক্রমের পরিকল্পনাকারী হিসেবে পুলিশ বর্ণনা করেছে।
সেনাবাহিনীর সাবেক এ দু’জন কর্মকর্তার জঙ্গি কার্যক্রমে সংশ্লিস্টতা অনেককে ভাবিয়ে তুলেছে। কোন কোন বিশ্লেষক মনে করছেন, সেনাবাহিনীর মধ্যে লুকিয়ে থাকা কোন ‘বঞ্চনা’ হয়তো তাদের সেদিকে ঠেলে দিয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে হবে।
নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, “পেছনের কী ইতিহাস, সেটা তো আমরা ঠিক জানিনা। কেন সে রিজাইন করলো, সে রেজিগনেশনের প্রেক্ষাপটটা কী? হতে পারে সেনাবাহিনীর ভেতরেও কোন ডিপরিভেইশনের ব্যাপার হতে পারে।”
এই ঘটনাকে একটি টেস্ট কেস হিসেবে ভালো করে খতিয়ে দেখা উচিত হবে বলে মি. হোসেন মনে করেন।
বাহিনীর ভেতরে কোন বঞ্চনা নাকি জঙ্গিবাদের আদর্শ তাকে সেদিকে নিয়ে গেছে – এ বিষয়টি খতিয়ে দেখা দরকার বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।
সম্প্রতি পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী নিষিদ্ধ সংগঠন জামা’তুল মুজাহিদীন-এর সাথে উচ্চ শিক্ষিত বিভিন্ন পেশার মানুষ জড়িত হয়েছে। এক্ষেত্রে সামরিক বাহিনীর দু’একজন জড়িত থাকার বিষয়টিকে অসম্ভব কিছু মনে করছেন না বিশ্লেষকরা।
জঙ্গিবাদ বিষেয়ে গবেষক নূর খান লিটন দীর্ঘদিন ধরেই বলছেন, বাংলাদেশে ব্লগার হত্যাকাণ্ডসহ যেসব জঙ্গি হামলা হয়েছে সেখানে সামরিক কায়দায় প্রশিক্ষিত ব্যক্তির সম্পৃক্ততা অনুমান করা যায়।

3বিশ্লেষকরা মনে করেন, সেনাবাহিনীর ভেতরে নজরদারী জোরদার থাকায় তারা হয়তো বাইরে গিয়ে জঙ্গি তৎপরতার সাথে জড়িত হয়েছে।

চাকুরিচ্যুত মেজর জিয়াউল হক এবং অবসরপ্রাপ্ত মেজর জাহিদুল ইসলামের ‘জঙ্গি সম্পৃক্ততার’ পর সে ধারণা আরো জোরালো হয়েছে।
মি. লিটন বলেন, “সিভিলিয়ানদের ভেতর কেউ যদি যুক্ত হয়, তার চেয়ে ভয়াবহ রূপ নেয় যখন এ ধরনের বাহিনীর অভ্যন্তরে একজন বা দু’জন যুক্ত হয়। ভয়ের বিষয়টা এখানে, সে যেমন প্রশিক্ষিত, পাশাপাশি সে কিন্তু অস্ত্র সংগ্রহ করার সামর্থ্য রাখে।”
কিন্তু এসব ব্যক্তি সামরিক বাহিনীর ভেতরে থাকতেই উগ্রপন্থায় জড়িত হয়েছে নাকি সেখান থেকে বেরিয়ে গিয়ে এর সাথে জড়িত হয়েছে তা নিয়ে নানা ধরনের অনুমান আছে।
বিশ্লেষকরা মনে করেন, সেনাবাহিনীর ভেতরে নজরদারী জোরদার থাকায় তারা হয়তো বাইরে গিয়ে জঙ্গি তৎপরতার সাথে জড়িত হয়েছে। সামরিক বাহিনীর ভেতরে যদি জঙ্গি সংগঠনগুলো কাউকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করে তাহলে তাতে অবাক হবার মতো কিছু নেই বলে বিশ্লেষকরা উল্লেখ করেন।
বিভিন্ন আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের উদাহরণ টেনে সাখাওয়াত হোসেন বলেন, সামরিক বাহিনীর কোন কর্মকর্তা জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়লে সেটি ভিন্ন মাত্রা যোগ করে।
তিনি বলেন, “এ ধরনের কোন কর্মকর্তা যদি এ ধরনের কোন সংগঠনের সাথে জড়িত হয়, তখন তাদের প্রেজেন্স (উপস্থিতি) একটা সংগঠনকে বেশি সংগঠিত করে। কারণ তাকে তখন একটা আইকনিক ফিগার হিসেবে দেখা হয়।”
বিশ্লেষকরা বলছেন, এখনো পর্যন্ত জঙ্গি সম্পৃক্ততায় সেনাবাহিনীর সাবেক দু’জন কর্মকর্তার নাম আসলেও তাতে ব্যাপকভাবে উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই।
আবার বিষয়টিকে একেবারে উপক্ষো না করে এর পেছনের কারণগুলো ভালোভাবে খতিয়ে দেখা দরকার বলেও তারা মনে করেন। বিবিসি বাংলা।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জাতীয়

ঢাকার দক্ষিণ বনশ্রীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ডিএসসিসির অভিযান

Avatar photo

Published

on

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে দক্ষিণ বনশ্রী ও পশ্চিম নন্দীপাড়া সংযোগ সড়ক এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ডিএসসিসি। মঙ্গলবার দুপুরে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়।

অভিযানকালে দক্ষিণ বনশ্রী কে ব্লক ও পশ্চিম নন্দি পাড়া সংযোগ সড়কে অবৈধভাবে দখল করে নির্মিত একটি বাড়ির দেয়াল ও গেট ভেঙে দেয়া হয়। ইফতেখার মাহমুদ নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি রাস্তা দখল করে এই দেয়াল ও গেট নির্মাণ করেছিলেন বলে জানা যায়।

স্থানীয়রা জানায়, দফায় দফায় এই বাড়ির মালিক রাস্তাটি দখল করে দেয়াল ও গেট নির্মাণ করেন। ফলে স্থানীয়দের চলাচলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। তাই সড়কটি দখলমুক্ত করার দাবি দীর্ঘদিনের।

অভিযান প্রসঙ্গে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান জানান, ইতিপূর্বে এখানে অভিযান চালিয়ে দুই বার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলেন তা পুনরায় দখল করে দেয়াল ও গেট নির্মাণ করা হয়। তাই স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে দেয়ালটি জায়গাটি সম্পূর্ণরূপে দখলমুক্ত করতে আজকের এই অভিযান চালানো হয় বলে জানান তিনি।

Continue Reading

Highlights

দেশকে এগিয়ে নেব, এটিই প্রতিজ্ঞা: প্রধানমন্ত্রী

Avatar photo

Published

on

সারা বিশ্বে যুদ্ধ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শান্তি থাকলেই প্রগতি ও উন্নতি আসে। বাঙালি শান্তিতে বিশ্বাস করে। আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই।

তিনি বলেন, শান্তি থাকলেই কিন্তু প্রগতি আসে, উন্নতি হয়, এগিয়ে চলা যায়। সেটিই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য, এভাবেই আমরা এগিয়ে যেতে চাচ্ছি। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাব, এটিই আমাদের প্রতিজ্ঞা।

বুধবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২৪ উদ্‌যাপন উপলক্ষ্যে চার দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, সারাবিশ্বের যুদ্ধ বন্ধ হোক। বন্ধ হোক অস্ত্র প্রতিযোগিতা। এ অস্ত্র প্রতিযোগিতায় যে অর্থ (খরচ করা হচ্ছে), তা মানুষের জ্ঞানবিজ্ঞান, গবেষণা, জলবায়ু পরিবর্তন, নারী ও শিশুর বিকাশ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশের উন্নয়নসহ বিশ্বের উন্নয়নের নানান কাজে ব্যয় হোক।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজ মহান একুশে ফেব্রুয়ারি শহিদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বাঙালি জাতি নিজের মাতৃভাষাকে মর্যাদা দেওয়ার জন্য মহান আত্মত্যাগ করেছে। মাতৃভাষা রক্ষায় যারা আত্মত্যাগ করেছে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। বাঙালি জাতি রক্ত দিয়ে ভাষার মর্যাদা দিয়ে গেছে।

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুমানা আলী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. হাকিম আরিফ।

Continue Reading

Branding

বর্ণ্যাঢ্য আয়োজনে দেশেরপত্রের ১৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

Avatar photo

Published

on

বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হলো বহুল প্রচারিত ‘দৈনিক দেশেরপত্র’র ১৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ‘মানবতার কল্যাণে সত্যের প্রকাশ’ এই স্লোগানকে হৃদয়ে ধারণ করে দৈনিক দেশেরপত্র পত্রিকার ১৫ বছরে পদার্পণ করল।

এ উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে ‘মানবতার কল্যাণে সাংবাদিকতা’ শৗর্ষক এক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর আলোচনা রাখেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিবৃন্দ।

দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি প্যানেলে ছিলেন বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এবং বিএফইউজে এর সভাপতি ওমর ফারুক।
অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন এশিয়ান টিভির চেয়ারম্যান আলহাজ হারুন-উর-রশিদ সিআইপি।

দৈনিক বজ্রশক্তি পত্রিকার সম্পাদক এসএম সামসুল হুদার পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন পিনাকল মিডিয়া লিমিটেড এর চেয়ারম্যান ও হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম। উল্লেখ্য, দৈনিক দেশেরপত্র পিনাকল মিডিয়া লিমিটেড এর একটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান।

প্রধান আলোচক তাঁর বক্তব্যে বলেন- ধর্মের নামে চলা যাবতীয় অধর্মের বিপরীতে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরছে দেশেরপত্র। ধর্মীয় উগ্রবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, ইসলামবিদ্বেষ, নারীবিদ্বেষ, ধর্মব্যবসা, গুজব, ধর্মীয় উন্মাদনা এ সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে সত্যের মশাল হচ্ছে দেশেরপত্র। সত্যের এই মশালকে নিভিয়ে দেয়ার জন্য অনেক প্রতিবন্ধকতাই সৃষ্টি করা হয়েছে কিন্তু কোনো প্রতিবন্ধকতাই দেশেরপত্রকে রুখতে পারেনি আর পারবেও না ইনশাল্লাহ।

সভাপতির বক্তব্যে দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক রূফায়দাহ পন্নী বলেন, দেশেরপত্রের একটি সংখ্যাও যিনি হাতে নিয়েছেন তিনিও নিশ্চয়ই লক্ষ্য করে থাকবেন যে, এই পত্রিকা বিজ্ঞাপন প্রধান নয়, কোনো কর্পোরেশনের স্বার্থ রক্ষা করার জন্য এই পত্রিকার জন্ম হয়নি। এ পত্রিকা কেবল সংবাদ ও কিছু তথ্যের ধারক নয়, এটি একটি আদর্শিক পত্রিকা। আমরা ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য দাঁড়িয়েছি। অন্যায়ের সাথে কখনো আপোস করতে শিখিনি, আপোস করব না ইনশাল্লাহ।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাটি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর সভাপতি কিংবদন্তী গিটারিস্ট এনামুল কবীর, একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত পরিচালক মসিহ উদ্দিন শাকের, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর সাবেক সভাপতি ও যুগবার্তার হেড অব নিউজ রফিকুল ইসলাম সুজন, কালিয়াকৈর প্রোসক্লাবের সভাপতি আউয়ুব রানা প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দৈনিক দেশেরপত্রের সহকারী নির্বাহী সম্পাদক ডা. মাহবুব আলম মাহফুজ, সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক কবি রিয়াদুল হাসান, সিনিয়র রিপোর্টার ফরিদ উদ্দিন রব্বানি প্রমুখ।

Continue Reading