Connect with us

বিনোদন

পশ্চিমবঙ্গে গোয়েন্দা কাহিনি নিয়ে সিনেমা তৈরির হিড়িক

Avatar photo

Published

on

1কলকাতার বাসিন্দা তিন ‘ছবির পোকা’ অয়ন – দীপান্বিতা-সৌম্যদীপ আড্ডা মারছেন বাংলায় কেন এত বেশি গোয়েন্দা গল্প নিয়ে ছবি হচ্ছে, তা নিয়ে।

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন
ঈদের দুপুরে কলকাতার বাড়িতে আড্ডায় বসেছিলেন কয়েকজন বন্ধু – দীপান্বিতা ঘোষ মুখার্জী, অয়ন চক্রবর্তী আর সৌম্যদীপ গুহ। এরা সবাই স্কুল বা কলেজে পড়ান, আর তার বাইরে ভাল সিনেমা দেখতে ভালবাসেন।
সেদিন তাদের গল্পে হঠাৎই উঠে এসেছিল পশ্চিমবঙ্গে চলচ্চিত্রের একটা নতুন ট্রেন্ড নিয়ে আলোচনা: গোয়েন্দা গল্প নিয়ে কেন এত বেশি করে সিনেমা তৈরি হচ্ছে!
আড্ডায় শোনা গেল, “এতদিন ফেলুদা ছিল, তারপর শুরু হল একের পর এক ব্যোমকেশ। এখন এসে গেছে কিরিটি রায়, শবর.. আরও কত গোয়েন্দা। এক ব্যোমকেশের গল্পই তো কতজন পরিচালক তৈরি করছেন! ওভারডোজ না হয়ে যায়!”
ওভারডোজ কি? – এই প্রশ্নে দীর্ঘদিন সত্যজিত রায়ের সৃষ্টি ফেলুদার চরিত্রে অভিনয় করা সব্যসাচী চক্রবর্তী হেসে বললেন, “অনেকদিনফাঁকা মাঠে একা খেলছিলাম, ভালো লাগে নাকি! এবারে কম্পিটিশন এসেছে, খুব ভাল হয়েছে এটা। ফেলুর ভাষাতেই বলি, এবার কেসটা জমেছে!”

2“ফেলুর ভাষাতেই বলি, এবার কেসটা জমেছে!” বলছেন ফেলুদার চরিত্রে অভিনেতা সব্যসাচী চক্রবর্তী

অনেকদিন ফেলুদা একা গোয়েন্দা ছবির জগতে রাজত্ব করার পর কয়েক বছর আগে বাংলা ছবিতে হাজির হন শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৃষ্ট চরিত্র ব্যোমকেশ বক্সী।
শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের গোয়েন্দা ব্যোমকেশ আর নীহাররঞ্জন গুপ্তর গোয়েন্দা কিরিটি রায়কে নিয়ে বেশ কয়েকটি ছবি প্রযোজনা করেছেন কৌস্তুভ রায়।
তার বক্তব্য, “গোয়েন্দা গল্প বাঙালিদের খুব প্রিয়। তাই এখন দর্শক টানছে, ব্যবসাও দিচ্ছে।”
কিরিটি রায়ের একটি ছবি গত সপ্তাহেই মুক্তি পেয়েছে। আবার আরেকটির কাজ চলছে। সেই ছবিটি পরিচালনা করছেন, অনিকেত চ্যাটার্জী।
তাঁর কথায়, “পরিচালক যে ছবি করতে চাইছেন মন থেকে, সেটাই যে তিনি করতে পারবেন, এমন অবস্থা আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পের নয়। প্রযোজকদের কথাতেই ছবি তৈরি হয়। হয়তো একটা ভূতের ছবি হিট হয়ে গেল, সব প্রযোজক তখন ভূতের ছবি বানাতে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। সেরকমই একটা ব্যোমকেশ হিট হয়ে যাওয়ার পরেই সবাই এখন গোয়েন্দা গল্পের দিকে ঝুঁকেছে।”
কয়েকমাস আগে বড় পর্দায় প্রথম ছবি করেছেন পরিচালক অয়ন চক্রবর্তী। ‘ষড়রিপু’ নামের সেই ছবিতেও গোয়েন্দা হাজির।

3কলকাতার চলচ্চিত্র প্রযোজকদের নজর এখন গোয়েন্দা গল্পের দিকে

তিনি বলছেন, “বাঙালির গোয়েন্দা গল্প-প্রীতি নতুন কিছু নয়। কী সাহিত্যে, কী ফিল্মে, বাঙালির কাছে গোয়েন্দা গল্প বা থ্রিলারের জনপ্রিয়তা চিরকালীন। যেহেতু বাঙালি বুদ্ধিমান জাতি, তাই তারা বই পড়তে পড়তে বা সিনেমা দেখতে দেখতে নিজেরাই গল্পের রহস্য সমাধান করতে থাকে। সেকারণেই গোয়েন্দা গল্পের জনপ্রিয়তা এত বাংলায়।”
যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম স্টাডিজের অধ্যাপক সঞ্জয় মুখার্জি অবশ্য মনে করেন না যে শুধুই বাণিজ্যিক সাফল্যের কারণেই হঠাৎ করে গোয়েন্দা গল্প নিয়ে ছবি করার হিড়িক পড়েছে।
“পশ্চিমবঙ্গ বা কলকাতার যে নতুন নাগরিক সমাজ, এদের পাপ-পতন বা জীবনযাত্রার বিচিত্র ধরন, সেগুলো তাদের নিজেদের কাছেই অপরিচিত। তাই তাদের কাছে একটা তৃতীয় চক্ষু দরকার, যার চোখ দিয়ে দেখে অপরাধ আর সামাজিক বিচার সম্পন্ন হতে পারে বলে মানুষ মনে করছেন। সেজন্যই ব্যোমকেশের ছবি মানুষকে আকৃষ্ট করছে। এছাড়াও ভারতের সব বড় শহরগুলোতে অপরাধের ধরণ পাল্টাচ্ছে, সেটা সাধারণ মানুষের কাছে একটা আগ্রহের বিষয় হয়ে উঠেছে। আমার মনে হয় এটাই হঠাৎ করে আমাদের গোয়েন্দা গল্পের প্রতি প্রীতি,” বলছিলেন অধ্যাপক সঞ্জয় মুখার্জি।
গোয়েন্দা গল্প নিয়ে যত বেশি ছবি হচ্ছে, ততই খোঁজ পড়ছে কোন সাহিত্যিক কোন গোয়েন্দা গল্প লিখে গেছেন, সেসবের। ফেলুদা, ব্যোমকেশের পরে যেমন উঠে এসেছেন কিরিটি রায়, তেমনই এসেছেন একেবারে নতুন ধাঁচের গোয়েন্দা – শবর।
অন্য গোয়েন্দা ছবির নায়কদের থেকে শবরের ফারাক এটাই যে তিনি অন্যদের মতো প্রাইভেট ডিটেকটিভ নন। তিনি পুলিশ গোয়েন্দা।
শবরের স্রষ্টা – সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখার্জির কাছে জানতে চেয়েছিলাম বাকি সব গোয়েন্দাদের থেকে নিজের হিরোকে অন্যভাবে কেন তৈরি করলেন।

4সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় সৃষ্টি করেছেন অন্য ধরণের গোয়েন্দা চরিত্র – শবর। সে পুলিশ গোয়েন্দা।

মি. মুখার্জি বলছিলেন, “প্রাইভেট ডিটেক্টিভ বলে বাস্তবে যারা আছেন, তারা তো আর খুন বা ওই ধরণের গুরুতর অপরাধের সমাধান করেন না, সেগুলো আসলে করে পুলিশই। সাহিত্য গুণে ফেলুদা বা ব্যোমকেশ অসাধারণ, তারা লেজেন্ড হয়ে গেছে – এ বিষয়ে কোনও সন্দেহ থাকতে পারে না, কিন্তু ওরা যা যা করে, সেটা অবাস্তব, কল্পনা। তাই আমাকে যখন গোয়েন্দা গল্প লিখতে বলা হল, তখন আমি ঠিক করলাম পরিচিত পথে হেঁটে প্রাইভেট ডিক্টেটিভ তৈরি করব না। বাস্তবে তো পুলিশই রহস্য সমাধান করেন। সেজন্যই শবরকে এইভাবে তৈরি করা।”
এই বছরে ইতিমধ্যেই গোয়েন্দা কাহিনি নিয়ে ছবি মুক্তি পেয়ে গেছে বেশ কয়েকটা। দুর্গাপুজো আর শীতের সময়ে মুক্তি পাওয়ার কথা আরও কয়েকটির। এবার আবার ফেলুদা গল্পের ৫০ বছর – তাই আসবে ডাবল ফেলুদা।
দর্শকদের কাছে পৌঁছিয়ে দেওয়ার আগে তাই এখন পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় চলছে শ্যুটিং। সেখানে যেমন রয়েছেন ফেলুদা, তেমনই আছেন গোয়েন্দা কিরিটিও।
তবে একের পর এক এত গোয়েন্দা কাহিনি পশ্চিমবঙ্গের দর্শক গিলতে পারবেন তো? সেই আশঙ্কা যে একেবারে নেই চলচ্চিত্র মহলে, তা নয়।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ঢালিউড

আরাফ খানের প্রযোজনায় জুটি বাঁধলেন নায়ক রোমান খান ও বলিউড কুইন রাখি সাওয়ান্ত

Avatar photo

Published

on

দুবাইয়ের স্বনামধন্য স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাফ খানের প্রযোজনায় আরও একটি বাংলাদেশী সিনেমায় অভিনয় করবেন বলিউড কুইন রাখি সাওয়ান্ত।

বিগ বস নামের এই সিনেমায় বলিউড কুইনের সাথে নায়ক হিসেবে থাকবেন বাংলাদেশের গাজীপুরের সন্তান রোমান খান। রাখি সাওয়ান্ত ও রোমান খান ছাড়াও সিনেমাটিতে দেখা যাবে ঢালিউড ও বলিউডের অনেক পরিচিত মুখ।

জানা গেছে, পুরো সিনেমটির দৃশ্য ধারণ দুবাইয়ের বিভিন্ন স্পটে। ইতোমধ্যে সিনেমাটির জন্য রাখি সাওয়ান্ত ও রোমান খানের সাথে প্রযোজক আরাফ খানের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে।

এর আগে আরাফ খানের প্রযোজনায় আরও একটি সিনেমায় নাম লিখিয়েছেন বলিউড কুইন রাখি সাওয়ান্ত। যেটিতে নায়ক হিসেবে থাকবেন বাংলাদেশের পরিচিত ও আলোচিত ইউটিউবার হিরো আলম। বিগ বস আরাফ খানের প্রযোজনার দ্বিতীয় ছবি।

Continue Reading

বিনোদন

‘বেকায়দায় পড়ে’ ক্ষমা চাইলেন রাশমিকা!

Avatar photo

Published

on

ভারতের দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় নায়িকা রাশমিকা মান্দানা। ক্যারিয়ারে বেশ কিছু ব্যবসাসফল সিনেমা উপহার দিয়েছেন এই অভিনেত্রী। ধীরে ধীরে বলিউডে নিজের পায়ের নিচের মাটি শক্ত করছেন তিনি।

‘গুডবাই’ সিনেমার পর আবার বলিউডে নতুন ছবি আসছে এই নায়িকার। ছবির নার ‘মিশন মজনু’। যদিও ছবিটি ওটিটি মঞ্চে মুক্তি পাবে। সোমবার ছিল এ ছবির বিশেষ স্ক্রিনিং। সেখানেই ক্ষমা চাইতে দেখা গেল রাশমিকাকে; কিন্তু কী কারণে তিনি ক্ষমা চাইলেন?

আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- ‘মিশন মজনু’ ছবিতে সিদ্ধার্থ মালহোত্রের বিপরীতে দেখা যাবে দক্ষিণী নায়িকা রাশমিকাকে। এরপর তাকে দেখা যাবে রণবীর কাপুরের বিপরীতে ‘অ্যানিমাল’ ছবিতে।

দিন দিন রাশমিকার জনপ্রিয়তা বাড়ছে, গত সোমবারের ঘটনায় তার প্রমাণ মিলল। ‘মিশন মজনু’ ছবিটি দেখতে আসেন এই নায়িকা। আলোকচিত্রীদের দেখামাত্র নিজস্ব ভঙ্গিতে ছবিও তুলতে দেন অভিনেত্রী।

এরপর ভক্তরা তাকে দেখতে পেয়েই দৌড়ে আসেন তার দিকে। রাশমিকা তড়িঘড়ি গাড়িতে উঠে পড়েন; কিন্তু তার ভক্তরা নাছোড়বান্দা। ছবি না তুলে যাবেন না। শেষমেশ নিরাপত্তার কারণেই গাড়ি নিয়ে চোখের পলকে বেরিয়ে যান তিনি। চলে যাওয়ার সময় হাতজোড় করে ক্ষমাও চেয়ে নেন ভক্তদের কাছে।

Continue Reading

বলিউড

আবারও নতুন পরিচয়ে সিবা আলী

Avatar photo

Published

on

শোবিজের রঙিন সড়কে সিবা আলী খান পা ফেলেছিলেন মডেল হিসেবে। র‌্যাম্পে নিয়মিত কাজের পর সুযোগ আসে অভিনয়ে। সিনেমা এবং নাটকে অভিনয় করে নিজেকে মেলে ধরার চেষ্টা করেন। তবে আলোচনায় আসেন ২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘স্টোরি অব সামারা’ সিনেমার মাধ্যমে।

এরপর বহুল আলোচিত ‘অপারেশন অগ্নিপথ’-এ শাকিব খানের সঙ্গে অভিনয় করে নায়িকা হিসেবে পরিচিতি পান সিবা। যদিও সেই ছবিটি মুক্তির আলোয় আসেনি। অভিনয়ের অসামান্য ইচ্ছে বুকে পুষে রাখলেও নানা কারণে সে পথ দীর্ঘ হয়নি। পড়াশোনার জন্য সিবা পাড়ি জমান বিদেশে। এরপর দেশে ফিরে পড়েন মহামারিজনিত বিরতিতে। ওই বিরতি কাটিয়ে ক্যামেরার সামনে ফিরেছেন বটে। কিন্তু নিয়মিত হননি। এই ফাঁকে সিবা আলী খান নজর দিলেন নির্মাণে।

হ্যাঁ, ক্যামেরার সামনে থেকে সোজা পেছনে। নিজের গল্পণ্ডচিত্রনাট্যে চারটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ইতোমধ্যে বানিয়ে ফেলেছেন। শুধু তাই নয়, পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা বানানোর ইচ্ছেও আছে তার মনে।

এদিকে আসন্ন একুশে বইমেলা উপলক্ষে লেখক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করছেন সিবা আলী খান। প্রকাশ হচ্ছে তার প্রথম গল্পগ্রন্থ ‘আত্মা’। সাতটি অতিপ্রাকৃত ও ভৌতিক গল্পে বইটি সাজিয়েছেন তিনি। এটি প্রকাশ করছে অন্বেষা প্রকাশন।

অভিনয় থেকে নির্মাণ ও লেখালেখিতে আসার প্রেক্ষাপট জানিয়ে সিবা আলী খান বলেন, ‘আসলে ফিল্মমেকিং নিয়ে অনেক আগে থেকেই আমার আগ্রহ ছিলো। এ বিষয়ে প্রশিক্ষণও নিয়েছি। গত বছর চারটা শর্টফিল্ম বানিয়েছি। এগুলোর গল্পণ্ডচিত্রনাট্য আমারই। তো গল্প নিয়ে এই চর্চা করতে গিয়েই মূলত লেখালেখিতে আসা। কিছু গল্প সিনেমার জন্য লিখেছিলাম, কিন্তু পরে আর বানানো হয়নি। সেগুলোকে সাজিয়েই বই করেছি।’

সিবা আলী খান নির্মিত স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমাগুলো হলো ‘হাঙ্গার’, ‘জলিল’, ‘ফ্রিডম’ ও ‘নীতু’। এগুলো নিয়ে তার পরিকল্পনা বিস্তৃত। প্রথমে বিভিন্ন ফেস্টিভ্যালে পাঠাবেন, এরপর মুক্তি দেবেন অন্তর্জালে। অভিনয় ছেড়ে সিবার মনোযোগ তাহলে নির্মাণ আর লেখা ঘিরেই? এমন প্রশ্নের বিপরীতে তার জবাব, ‘হ্যাঁ, ফিল্মমেকিংয়ে পূর্ণ মনোযোগ দিতে চাই। এর পাশাপাশি লেখালেখি চালিয়ে যেতে চাই। আর অভিনয়ও যে করবো না, তা নয়। পছন্দসই ভালো প্রজেক্ট পেলে ক্যামেরার সামনেও কাজ করবো।’

এদিকে সিবা আলী খান অভিনীত দুটি সিনেমা রয়েছে মুক্তির অপেক্ষায়। এগুলো হলো অনিরুদ্ধ রাসেল পরিচালিত ‘এনকাউন্টার’ ও ‘জামদানি’।

Continue Reading