অবরোধে পর্যটকশুন্য বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক

0

বঙ্গবন্ধু-সাফারি-পার্কশ্রীপুর প্রতিনিধি, গাজীপুর:
গাজীপুরের শ্রীপুরে দেশের অন্যতম বৃহৎ পর্যটন কেন্দ্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কেও লেগেছে অবরোধের উত্তাপ। ২০ দলের টানা হরতাল আর অবরোধ কর্মসূচীর কারণে প্রায় পর্যটকশুন্য হয়ে পরেছে পার্কটি। সেই সাথে বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে পার্কটির ইজারাদার প্রতিষ্ঠান।
পার্ক কর্তৃপক্ষ ও ইজারাদারী প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা যায়, দেশের সর্ববৃহৎ বিনোদন কেন্দ্র এ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক। প্রতি বছর ডিসেম্বর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত পর্যটনের ভরা মৌসুমে ছুটির দিনে পার্কে গড়ে ২৫ থেকে ৩০ হাজার ও অন্যান্য দিনে ১০ থেকে ১৫ হাজার পর্যটকের পদচারণায় দিনভর মুখরিত থাকতো পার্কটি। কিন্তু ২০ দলীয় জোটের হরতাল-অবরোধের কারণে গত কয়েকদিনে পর্যটক হ্রাস পেয়েছে আশঙ্কাজনক হারে। তারা জানায়, এ কয়দিনে ছুটির দিনে ১ থেকে দেড় হাজার ও অন্যান্য দিনে ৫ শত থেকে এক হাজারে। ১ম বছর পার্কের গেইট পাকির্ং, টাইগার রেস্টুরেন্ট, লায়ন রেস্টুরেন্ট, ফুডকোর্ট ১ ও ২ থেকে ইজারা বাবদ রাজস্ব আয় হয়েছিল প্রায় এক কোটি টাকা। গত মৌসুমে ইজারা আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৭ কোটি টাকায়। কিন্তু এ মৌসুমে এ আয় অনেকটাই কমে আসবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ইজারাদারী প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী।
পার্কের ইজারাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স ফয়সাল এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আলহাজ্ব কবির হোসেন জানান, পর্যটক কমে যাওয়ায় আর্থিক সংকটে পড়েছেন তারা। গেইটে প্রতিদিন ১ লাখ টাকার টিকেট বিক্রি হলে খরচ উঠে আসতে হিমশিম খেতে হয়। তার উপর অবরোধ আর হরতালে বিক্রি কমে দাঁড়িয়েছে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকায়। এতে প্রতিষ্ঠানটির দৈনিক লোকসান প্রায় ৯০ হাজার টাকা বলে জানান তিনি। তিনি আরও জানান, বর্তমান অবস্থা চলমান থাকলে আসন্ন অগাস্ট মাসে ইজারার মেয়াদ শেষে তাদের লোকসান দাড়াবে ৩ থেকে ৪ কোটি টাকা।
একই হারে লোকসান গুনতে হচ্ছে পার্কিং রেস্টুরেন্ট ফুডকোর্ট গুলোর ইজারাদারদেরও। ‘আফ্রিকান সাফারি’ থেকে ছুটির দিনে আয় হত প্রায় ১ লক্ষ টাকা, অন্যান্য দিন আয় হতো ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। অবরোধ হরতালের কারণে তা কমে দাঁড়িয়েছে ১৫ থেকে ২০ হাজার, অন্যান্য দিন ২ থেকে ৩ হাজার।
পার্কের রেঞ্জ কর্মকর্তা শিব প্রসাদ জানান, “দেশী-বিদেশী পর্যটকদের কাছে পার্কটি দিন-দিনই আকর্ষনীয় হয়ে উঠছে। এটি শুধু এখন আর বিনোদন কেন্দ্র নয়। ক্রমেই রাজস্ব আয়ের বড় উৎস হয়ে উঠবে। অবরোধ হরতালের প্রভাবে পার্কের পর্যটক আশংকাজনক হারে হ্রাস পেয়েছে।”

Leave A Reply