খালেদা জিয়াকে মুক্ত করেই নির্বাচন – মির্জা ফখরুল

0

আসন্ন নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ঐক্যবদ্ধ, শান্তিপূর্ণ ও নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের মাধ্যমে এবং বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করেই একটি নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অবাধ নির্বাচনে যাবে বিএনপি।
গতকাল শনিবার বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে খুলনা নগরীর কেডিঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যালয় সংলগ্ন হেলাতলা মোড়ে অনুষ্ঠিত জনসভায় একথা বলেন তিনি ।

ভোর থেকে নগরীর শহীদ হাদিস পার্ক, পুরাতন যশোর রোড, পিকচার প্যালেস মোড় ও কেডি ঘোষ রোডে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পাশাপাশি শহরের বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সাঁজোয়া গাড়ি অবস্থান নেয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারের জরাজীর্ণ একটি কক্ষে রাখা হয়েছে। তাকে ন্যূনতম আইনি অধিকার দেয়া হয়নি। সেদিন তাকে দেখতে গিয়ে আমাদের চোখে পানি এসে গিয়েছিল। কিন্তু আমরা দেখলাম তিনি সেই আগের মতই তেজস্বী রয়েছেন। গণতন্ত্রের জন্য এ রকম ত্যাগ শিকার করতে অন্য কোনো নেত্রীকে আমরা আগে দেখি নাই। তিনি সম্পূর্ণ একাকী দীর্ঘ ১০ বছর নির্যাতন-নিপীড়ন সহ্য করেছেন। কিন্তু মাথা নত করেন নাই।

বিএনপি নেতারা জানান, পুলিশ দলীয় কার্যালয়ের সামনের কেডি ঘোষ রোডের পশ্চিম পাশে সমাবেশের মৌখিক অনুমতি দিলেও সকাল থেকে সেখানে মঞ্চ তৈরি ও মাইক টানাতে বাধা দেয়। তবে দুপুর ১টার পর থেকে মঞ্চ তৈরি ও মাইক টানানো শুরু হয়। তার আগে থেকেই নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থলে আসতে থাকেন। সমাবেশ শুরু পরপরই সমাবেশস্থল কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। দলের নেতারা অভিযোগ করেন, শুক্রবার রাত ও শনিবার সকালে বিএনপির ২৫ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে।

জনসভায় যোগ দিতে বিমানযোগে দুপুরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী খুলনায় পৌঁছেন। এছাড়া আগে থেকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু খুলনায় থেকে জনসভার কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেন।

বিএনপি খুলনা মহানগর সভাপতি ও খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জুর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, অ্যাড. নিতাই রায় চৌধুরী, সাবেক হুইপ মশিউর রহমান, উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য সৈয়দ মেহেদী রুমি, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মুজিবর রহমান সরোয়ার, প্রকাশনা সম্পাদক হাবিবুল ইসলাম হাবিব, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক সোহরাব হোসেন, জয়ন্ত কুমার কুণ্ডু, মাসুদ অরুন, আমিরুজ্জামান খান শিমুল, অমলেন্দু দাস, কবির মুরাদ, খুলনা জেলা বিএনপি সভাপতি অ্যাডভোকেট এসএম শফিকুল আলম মনা, খুলনা সিটি মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, বাগেরহাট জেলা সভাপতি আব্দুস সালাম, নড়াইল জেলা সভাপতি জাহাঙ্গীর বিশ্বাস, চুয়াডাঙ্গা সভাপতি অহেদুল ইসলাম বিশ্বাস, সাতক্ষীরা জেলা সাধারণ সম্পাদক তারিকুল হাসান, যশোর জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাবেরুল ইসলাম সাবু, ২০ দলীয় জোটের নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নগর বিজেপি সভাপতি অ্যাডভোকেট লতিফুর রহমান লাবু ও নগর জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি অধ্যাপক মাহফুজুর রহমান।

Leave A Reply

Pinterest
Print