চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টারে জুভেন্টাস টোটেনহ্যামকে হারিয়ে

0
চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টারে জুভেন্টাস টোটেনহ্যামকে হারিয়ে

চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টারে জুভেন্টাস টোটেনহ্যামকে হারিয়ে

চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে গেছে ইতালীয় জায়ান্ট জুভেন্টাস স্বাগতিক টোটেনহ্যামকে হারিয়ে । বুধবার ওয়েম্বলিতে অনুষ্ঠিত শেষ ষোলর ফিরতি লেগের ম্যাচে পিছিয়ে পড়ার পরও স্বাগতিক স্পার্সদের ২-১ গোলে হারায় সফরকারী জুভরা। ফলে দুই লেগে ৪-৩ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে উয়েফা টুর্নামেন্টের শেষ আটে পৌঁছে যায় সিরি এ লীগের ক্লাবটি।

নিজেদের মাঠে এমন একটি হারের ঘটনায় ক্ষুব্ধ স্পার্স কোচ মরিসিও পচেত্তিনো বলেছেন, ‘টোটেনহ্যাম দুটি বড় ভুলের মাসুল দিয়েছে’।

প্রথমার্ধে দক্ষিণ কোরিয়ার ফরোয়ার্ড সন হিউং-মিনের গোলে পিছিয়ে পড়া জুভেন্টাসকে দ্বিতীয়ার্ধে লড়াইয়ে ফিরিয়ে আনেন গঞ্জালো হিগুয়েইন। এরপর জয়সূচক গোলে ইতালীয় ক্লাবকে শেষ আটে পৌঁছে দেন পাওলো দিবালা।

ঘরের মাঠে শুরু থেকেই বেশ সপ্রতিভ ছিল টোটেনহ্যাম। এ সময় বেশ কয়েকটি আক্রমণ পরিচালনা করে ব্যর্থ হলেও প্রথমার্ধে লীডটা তারাই পেয়েছিল। ৩৯তম মিনিটে হিউং-মিন ডান দিকে ইংলিশ ডিফেন্ডার ট্রিপিয়ারের পাস থেকে ফাঁকায় বল পেয়ে অনায়াসে জালে পাঠান (১-০)। শুরু থেকে দারুণ খেলতে থাকা এই কোরীয় তারকা আগের মিনিটেও গোলের দারুণ একটি সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।

প্রথম লেগে ইতালী সফরে গিয়ে স্বাগতিক দলের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করে আসা টোটেনহ্যাম এই গোলের সুবাদে শেষ আটের পথে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে এসে ম্যাচে নাটকীয় মোড় নেয়। তিন মিনিটের ব্যবধানে দুটি গোল আদায়ের মাধ্যমে শেষ আটের টিকিট কেড়ে নেয় গত আসরের ফাইনালিস্টরা।

৬৪তম মিনিটে আচমকা এক আক্রমণে সমতায় ফেরে জুভেন্টাস। ডান দিক থেকে স্টেফান লিশ্টস্টাইনারের ক্রস থেকে বল পেয়ে দর্শনীয় হেডে সামনে বাড়ান সামি খেদিরা। শূন্যে থাকা বলটিতে পা বাড়িয়ে টোকা দিয়ে জালে জড়িয়ে দেন সুযোগ সন্ধানী আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার হিগুয়েইন (১-১)। সফরকারী দলের এমন আকস্মিক আক্রমনে হতভম্ব হয়ে পড়া স্বাগতিক দল এর রেশ কাটিয়ে উঠার আগেই মোক্খম আঘাতে একেবারেই ছিটকে পড়ে। তিন মিনিট পর অর্থাৎ ৬৭তম মিনিটে হিগুয়েইনের দারুণ এক পাস থেকে বল পেয়ে বেশ দ্রুত ডি-বক্সে ঢুকে জোরালো শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন দিবালা (১-২)। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের চলতি আসরে এটিই তার প্রথম গোল। এমন এক প্রতিঘাত থেকে আর মুক্ত হয়ে এগিয়ে যেতে পারেনি স্বাগতিক দল। ফলে ২-১ ব্যবধানের হার মেনে নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে পচেত্তিনোর দলকে।

তার মতে এই ম্যাচে টোটেনহ্যামই জয়ের দাবিদার। কারণ, ম্যাচে দীর্ঘ সময় তারাই আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছে। টোটেনহ্যামের আজেন্টাইনএই কোচ বলেন, ‘তিন মিনিটেরও কম সময়ের মধ্যে আমরা দুই গোল হজম করেছি। মাত্র দুটি ভুল। আর এতেই আমরা টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়লাম। দুই লেগের খেলায় আমরা অনেক কিছু করে দেখিয়েছি। এ জন্য আমি গর্ববোধ করছি। ম্যাচের অধিকাংশ সময় আমরা নিয়ন্ত্রন করেছি এবং দারুন খেলেছি। তারপরও এই হার আমাকে হতাশ করেছে।’বাসস।

Leave A Reply

Pinterest
Print