Bangladesherpatro.com

মেসির জোড়া গোলে সোসিয়েদাদকে বিধ্বস্ত করেছে বার্সেলোনা

4

খেলা ডেস্ক:
লিওনেল মেসির জোড়া গোলে লা লিগায় রিয়াল সোসিয়েদাদকে ৬-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছে বার্সেলোনা। এদিকে ইয়ান ওবলাকের পেনাল্টি সেভের ম্যাচে আলাভেসকে কোনমতে ১-০ গোলে পরাজিত করে জয়ের ধারায় ফিরেছে শীর্ষে থাকা এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে ৮৬ মিনিটে ওবলাক দারুন দক্ষতায় পেনাল্টি রুখে দেন। তার আগে লুইস সুয়ারেজের ক্যারিয়ারের ৫০০তম গোলে ৫৪ মিনিটে এগিয়ে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। মৌসুমে বাকি রয়েছে আমর মাত্র ১০টি ম্যাচ।

এই মুহূর্তে দ্বিতীয় স্থানে থাকা বার্সেলোনার থেকে চার পয়েন্ট এগিয়ে টেবিলের শীর্ষস্থানটা অক্ষুন্ন রেখেছে দিয়েগো সিমিওনের দল। ১৯তম স্থানে থাকা আলাভেসের বিপক্ষে এ্যাথলেটিকোর জয়টা কষ্টকর হলেও বার্সেলেনোর জন্য সোসিয়েদাদকে উড়িয়ে দেয়া কোন ব্যপারই ছিল না। দাপুটে এই জয়ে এখনো এ্যাথলেটিকোর শিরোপা লড়াইলে মিশনে চাপ সৃষ্টি করে চলেছে কাতালান জায়ান্টরা। দারুন কিছু চ্যালেঞ্জিং সপ্তাহ কাটিয়ে এ্যাথলিটিকোকে কাল জয়ের পথে ফিরিয়েছেন ওবলাক। আন্তর্জাতিক বিরতির আগে শেষ ম্যাচে জয় পাওয়াটা দারুন আত্মবিশ^াসের। বিরতির এই সময়টিতে সিমিওনেও দলকে নিয়ে নতুন কিছু চিন্তা করার সুযোগ পাচ্ছেন।

ম্যাচ শেষে এ্যাথলেটিকো বস বলেছেন, ‘অন্যান্য অনেক ভাল মুহূর্তের মতই অনেকে অনেক গোল করবে আবার ম্যাচে কিছু ভাল সেভও হবে। একটি দলের জন্য একজন স্ট্রাইকার যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি একজন গোলরক্ষকের ভূমিকাও অনেক। তাদের কারনেই একটি দল শক্তিশালী হয়ে ওঠে।’ কালকের ম্যাচে বার্সেলোনা অন্তত একটি বিষয় প্রমান করতে পেরেছে, রোনাল্ড কোম্যানের অধীনে তারা মোটেই রক্ষনাত্মক দলে পরিণত হয়নি। এটাই সম্ভবত কোম্যানের অধীনে তাদের সেরা পারফরমেন্স।

কোম্যান বলেন, ‘সম্প্রতি দলের দারুন উন্নতি হয়েছে। লিগে আমরা বেশ কিছু ম্যাচে অপরাজিত রয়েছি। শিরোপা লড়াইয়ে ফিরে আসতে হলে এর বিকল্প নেই। কিন্তু এখনো আমরা এ্যাথলেটিকোর থেকে পিছিয়ে আছি, রিয়াল মাদ্রিদও সমান তালে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। শেষ পর্যন্ত আমাদের এই আবহ ধরে রাখতে হবে। গত ১০ ম্যাচে কালকের দুই গোলসহ মেসি করেছেন ১২ গোল।

৩৩ বছর বয়সী এই আর্জেন্টাইন সুপারস্টার বার্সেলোনার হয়ে জাভি হার্নান্দেজের ৭৬৭ ম্যাচ খেলার রেকর্ডকে ছাড়িয়ে গছেন। গতকাল সোমবার হুয়েস্কার বিপক্ষে মাঠে নেমে তিনি জাভিকে স্পর্শ করেছিলেন। সোসিয়েদারের মাঠে মেসির সাথে আরো গোল করেছেন আঁতোয়ান গ্রীজম্যান। এ ছাড়া সার্জিনো ডেস্টও করেছেন জোড়া গোল। বাকি গোলটি করেছেন ওসমানে ডেম্বেলে। সোসিয়েদাদের হয়ে দ্বিতীয়ার্ধে সান্তনা সূচক গোলটি করেছেন এ্যান্ডার বারেনেস্কা। লিগে এটি বার্সেলোনোর নবম এ্যাওয়ে ম্যাচে জয়।

আগামী ১০ এপ্রিল মৌসুমের দ্বিতীয় এল ক্ল্যাসিকোতে যদি বার্সা জয়ী হতে পারে তবে এটি হবে ক্লাবের ইতিহাসে এ্যাওয়ে ম্যাচে জয়ের রেকর্ড। ডেস্টের শট ক্রসবারে লেগে ফেরত আসে। ডেম্বেলের শট রুখে দেন সোসিয়েদাদ গোলরক্ষক এ্যালেক্স রেমিরো। ফিরতি শটে বল জালে প্রবেশ করান গ্রীজম্যান। ৪৩ মিনিটে মেসির সহায়তায় ব্যবধান দ্বিগুন করেন ডেস্ট। ৫৩ মিনিটে আবারো এই মার্কিন ডিফেন্ডারের গোলে ব্যবধান ৩-০’তে নিয়ে যায় বার্সা। সার্জিও বাসকুয়েটের এসিস্টে তিন মিনিট পর নিজের প্রথম গোল করেন মেসি। ৭১ মিনিটে ডেম্বেলের দুর্দান্ত গোলে আরো এগিয়ে যায় সফরকারীরা।

৬ মিনিট পর বারেনেস্কা স্কোরশিটে নিজের নাম লেখান। ফ্রেংকি ডি জংকে কাটিয়ে কোনাকুনি দুর্দান্ত শটে তিনি সোসিয়েদাদকে এক গোল উপহার দেন। ৮৯ মিনিটে মেসি নিজের দ্বিতীয় গোল করলে ব জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বার্সেলোনা। আলাভেসের বিপক্ষে স্বাভাবিক এ্যাথলেটিকোকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তলানির থেকে দ্বিতীয় স্থানে থাকা দলটির বিপক্ষে জয় নিশ্চিত করতে সিমিওনের শিষ্যদের ৫৪ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে। থমাস লেমারের ক্রস থেকে ডানদিকে মার্কোস লোরেন্টের থেকে বল পেয়ের যান কিয়েরান ট্রিপিয়ার। তার আড়াআড়ি ক্রসে পোস্টের খুব কাছে থেকে হেডের সাহায্যে বল জালে জড়ান সুয়ারেজ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.